যেভাবে হামলার স্থান ত্যাগ করেছিল বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা (ভিডিওসহ)

প্রকাশ : ১৫ মার্চ ২০১৯, ১৯:১২ | অনলাইন সংস্করণ

  অনলাইন ডেস্ক

গুলির শব্দ শুনে ঘটনাস্থল থেকে মাঠে ফিরে আসছেন ক্রিকেটাররা। ছবি: সংগৃহীত

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে ভয়াবহ হামলায় প্রাণে বেঁচে গেছেন বাংলাদেশের জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। ওই মসজিদে বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা পবিত্র জুমা আদায় করার কথা ছিল। মসজিদের ভেতরে গুলির প্রচণ্ড আওয়াজ শুনে বাইরে থাকা ক্রিকেটাররা দ্রুত স্থান ত্যাগ করে রক্ষা পান।

ইএসপিএনের সাংবাদিক মোহাম্মদ ইসামের টুইট করা এক ভিডিওতে দেখা যায়, নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার ঘটনার পর বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা হাগলি পার্কের মধ্য থেকে হেঁটে নিরাপদ আশ্রয়ে যাচ্ছেন৷ এসময় তাদের নিরাপত্তা দিতে কোনও পুলিশ সদস্যকে দেখা যায়নি৷

মসজিদে সন্ত্রাসীর ওই এলোপাতারি গুলিতে ৪৯ জন নিহত হন। ভয়াবহ এ হামলায় সারা বিশ্বে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় বইছে।

সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের ক্রিকেটাররা নানাভাবে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন এ ঘটনার।  

এ ঘটনার প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে টুইটবার্তায় পাকিস্তান অধিনায়ক লিখেছেন,  নিউজিল্যান্ডের মসজিদে হামলার ঘটনা শুনে আমি খুবই দুঃখ পেয়েছি।  এ ঘটনায় যারা শহীদ হয়েছেন তাদের পরিবারের প্রতি গভীর সহানুভূতি জানাচ্ছি। ইবাদতখানাতেও এখন মানবিকতা হারিয়ে গেছে। বাংলাদেশ ক্রিকেট দল নিরাপদে থাকায় আল্লাহকে ধন্যবাদ।

পাকিস্তান জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক আজহার আলী টুইট বার্তায় বলেন, এ হামলায় যাদের পরিবারের মানুষ নিহত হয়েছেন তাঁদের কথা ভেবে আমার হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। এখানে খেলোয়ার ও বুদ্ধিজীবীরাও আক্রান্ত হয়েছেন। তারপরও বাংলাদেশ দল নিরাপদে আছে তা শুনে স্বস্তিবোধ করছি। এরকম কাপুরুষদের কোনো ধর্ম ও জাতি নেই।

পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ টুইটবার্তায় বলেন,  নিউজিল্যান্ডের মসজিদে হামলার ঘটনা শুনে আমি খুবই দুঃখ পেয়েছি।  এ ঘটনায় যারা শহীদ হয়েছেন তাদের পরিবারের প্রতি গভীর সহানুভূতি জানাচ্ছি। ইবাদতখানাতেও এখন মানবিকতা হারিয়ে গেছে। বাংলাদেশ ক্রিকেট দল নিরাপদে থাকায় আল্লাহকে ধন্যবাদ।

সরফরাজকে রিটুইট করে ফয়সাল অনি নামের বাংলাদেশের এক ক্রিকেটপ্রেমী বলেন, জ্বী ভাই, বাংলাদেশের ক্রিকেট দল নিরাপদ কিন্তু আমাদের দেশের তিনজন ওই হামলায় নিহত হয়েছেন।

আমানউল্লাহ করিম নামের পাকিস্তানের এক নাগরিক লেখেন, বাংলাদেশের উচিত ভবিষ্যতে আর নিউজিল্যান্ডের মাটিতে কোনো ম্যাচ না খেলা। যেমন সামান্য হামলার অজুহাতে পাকিস্তানের মাটিতে শ্রীলংকা টিম আর আসছে না।

নুসরাত জাহান মিম নামের একজন টুইটবার্তায় বলেন, নিউজিল্যান্ড, তোমাদের জানা উচিত কীভাবে অন্য দেশের নাগরিকদের রক্ষা করতে হয়।

মোহাম্মদ আদিল নামের পাকিস্তানের এক স্কুল ক্রিকেটার লেখেন, বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে নিরাপদে রাখার জন্য আল্লাহকে ধন্যবাদ। পাকিস্তান থেকে আমি বাংলাদেশ ও বাংলাদেশি মানুষদের প্রতি গভীর ভালোবাসা জানাই।

Bangladesh team escaped from a mosque near Hagley Park where there were active shooters. They ran back through Hagley Park back to the Oval. pic.twitter.com/VtkqSrljjV

— Mohammad Isam (@Isam84) March 15, 2019