মোজাম্বিকে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪১৭

  যুগান্তর ডেস্ক ২৪ মার্চ ২০১৯, ১৩:১৮ | অনলাইন সংস্করণ

ঘূর্ণিঝড় ইদাই
ঘূর্ণিঝড় ইদাইয়ের তাণ্ডব। ছবি: সংগৃহীত

এ যাবৎকালের সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের মুখে পড়েছে আফ্রিকা। গত সপ্তাহে মহাদেশটির দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ১৭৭ কিলোমিটার বেগে আঘাত হানে ঘূর্ণিঝড় ইদাই।

ইদাইয়ের আঘাতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪১৭ জন। শনিবার দেশটির পরিবেশ ও ভূমিমন্ত্রী সেলসো কোরেইয়া এ তথ্য জানান। খবর বিবিসির।

সেদিনের ওই ঘূর্ণিঝড়ের সঙ্গে শুরু হয় নজিরবিহীন বন্যা। এতে এই অঞ্চলের অন্তত তিনটি দেশ মোজাম্বিক, মালাবি ও জিম্বাবুয়ের ২৬ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েন।

পানির স্তর বাড়তে থাকায় গাছের ডালে, বাড়ির ছাদে আশ্রয় নিয়ে জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করছেন তারা।

রাস্তাঘাট তলিয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। খাবার নেই, পানযোগ্য পানি নেই। ক্ষুধা-তৃষ্ণায় মৃত্যুর প্রহর গুনছেন হাজার হাজার মানুষ।

১৩ মার্চ প্রথমে জিম্বাবুয়েতে আঘাত হানে ঘূর্ণিঝড় ইদাই। তাণ্ডব চালানোর পর বৃহস্পতিবার মালাবি ও মোজাম্বিকে আছড়ে পড়ে।

সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মোজাম্বিক। ঝড়ে দেশটির বেইরা শহরের ৯০ শতাংশই ধ্বংস হয়ে গেছে।

এই দুর্যোগকে আফ্রিকার এ যাবৎকালের সবচেয়ে মারাত্মক প্রাকৃতিক দুর্যোগ বলে অভিহিত করেছে জাতিসংঘ। ঘূর্ণিঝড় হানার পরই বন্যার পানি বাড়তে থাকে।

বন্যায় মোজাম্বিক ‘সাগরে’ রূপ নিয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির কর্মকর্তারা। আটকে পড়েছে ৪০ হাজার পরিবার। উদ্ধারকারী দলগুলো প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছাতে না পারায় মানুষের জীবন নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে।

মোজাম্বিকের প্রেসিডেন্ট ফিলিপ নিউসি বলেন, আমরা খুবই কঠিন সময় পার করছি। বন্যার পানি প্রায় ৮ মিটার উচ্চতা পর্যন্ত উঠতে পারে বলে আমাদের ধারণা ছিল। কিন্তু সেই সীমাও অতিক্রম করেছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×