মহারাষ্ট্রে হিরো কেরালায় জিরো

  যুগান্তর ডেস্ক ২৪ মে ২০১৯, ০২:০১ | অনলাইন সংস্করণ

মহারাষ্ট্রে হিরো কেরালায় জিরো

ভারতজুড়ে মোদি সুনামির মধ্যে বিপরীত চিত্র কেরালায়। এ রাজ্য থেকে শূন্য থলে নিয়ে ফিরতে হচ্ছে বিজেপিকে।

কংগ্রেস-ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফোর্স (ইউডিএফ) জোটের তাণ্ডবে বিপর্যস্ত ক্ষমতাসীন লেফ্ট ডেমোক্রেটিক ফোর্স (এলডিএফ)।

২০টি আসনের মধ্যে ১৯টিতেই জিতেছে কংগ্রেস-ইউডিএফ জোট। বামেরা শুধু আলাপ্পুঝা আসনে জয় পেয়েছেন। অন্যদিকে মহারাষ্ট্রে বিজেপির ভরা কলস। ৪৮টি আসনের মধ্যে ৪১টি জিতেছে শাসক দল ও তাদের শরিক শিবসেনা। খবর এনডিটিভি ও ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের।

কেরালার ওয়ানাড়ে বড় ব্যবধানে জয় হয়েছে রাহুল গান্ধীর। প্রায় সাড়ে ৩ লাখ ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন তিনি। শুধু ওয়ানাড়ই নয়, থিরুভানন্তপুরম, কন্নুর, পালাক্কাড, পাথানামথিট্টা এবং ত্রিসুর আসনে এলডিএফের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা উপেক্ষা করেই আসনগুলো লুফে নেয় কংগ্রেস-ইউডিএফ জোট।

বুথফেরত সমীক্ষায়ও ইউডিএফকেই এগিয়ে রাখা হয়েছিল। গড় হিসেবে দেখা গিয়েছিল ইউডিএফ পেতে পারে ১৪ থেকে ১৬টি আসন। এলডিএফ পেতে পারে চার থেকে পাঁচটি আসন। আর বিজেপি পেতে পারে এক থেকে দুটি আসন। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউডিএফ পেয়েছিল ১২ আসন। সিপিএম নেতৃত্বাধীন এলডিএফ পেয়েছিল ৮ আসন।

এদিকে মহারাষ্ট্রে ফের বিজেপি-শিবসেনা রাজ। শূন্য হাতে ফিরতে হচ্ছে কংগ্রেসকে। দেশের অন্যতম বৃহৎ এ রাজ্যে গতবারের মতোই ৪১টি আসনে জয় পেয়েছে বিজেপি-শিবসেনা জোট।

কংগ্রেস ও শারদ পাওয়ারের এনসিপি নিজেদের ভরাডুবি ঠেকাতে পারল না এবারও। গতবারও মহারাষ্ট্রে বিজেপি ২৩ ও শিবসেনা ১৮ আসন পেয়েছিল। গতবারের জেতা আসনগুলো এবারও কব্জায় রেখেছে উদ্ধব ঠাকরের দল। এতে স্পষ্ট, কংগ্রেসের এক সময়ের শক্ত ঘাঁটি মহারাষ্ট্রে নিজেদের জমি পুরোপুরি খুইয়েছেন রাহুল গান্ধীরা। এ রাজ্যে মাত্র একটি আসনই জিততে পেরেছে কংগ্রেস।

হরিয়ানায় ধুয়ে-মুছে সাফ কংগ্রেস-এপিপি : গেরুয়া ঝড়ে বিরোধীরা উড়ে গেল হরিয়ানায়ও। কংগ্রেস, ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল লোক দল, এপিপি-জেজেপি জোট- কেউই ধোপে টিকল না। কংগ্রেস শুধু সিরসা আসনটি ছিনিয়ে নিতে পেরেছে। কংগ্রেসের হুডা পরিবারের শক্তঘাঁটি রোহতক ও সোনিপতেও ব্যাপকভাবে হেরেছে বিরোধী দল। তিনবারের কংগ্রেস সাংসদ দীপেন্দর হুডা রোহতকে হারলেন বিজেপির অরবিন্দ কুমার শর্মার কাছে। সোনিপতেও সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ভুপিন্দর সিং হুডাকে এক লাখ ২৮ হাজার ভোটে হারালেন বিজেপির রমেশ চন্দ্র কৌশিক। মহেন্দ্রগড়ে কংগ্রেস প্রার্থী হরিয়ানার সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বাঁশি লালের কন্যা শ্রুতি চৌধুরীও পরাজিত হয়েছেন।

ছত্তিশগড়েও গেরুয়া ঝড় : ছত্তিশগড়ে ১১টি লোকসভা আসনের মধ্যে ৯টিতে পদ্ম ফুটিয়েছে বিজেপি। মাত্র দুটি আসন পেতে যাচ্ছে কংগ্রেস। মাওবাদী অধ্যুষিত বস্তার ও কোরবা আসন বিজেপির কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়েছে দলটি। বস্তারে বিধায়ক দীপক বেজ বিজেপির বায়দুরম কাশ্যপকে হারিয়েছেন। আর কোরবায় জোসনা চরনদাস মহান্ত জয়ী হয়েছেন। এবার দার্গ আসনটি হারিয়েছে কংগ্রেস। ২০১৪ সালে ১০টি আসনে জয়ী হয়েছিল বিজেপি।

মোদি সুনামি উড়িষ্যায় : কোনোও জোটে না গিয়ে স্বতন্ত্রভাবে লড়াই করেছিলেন উড়িষ্যার নবীন পাটনায়েকের বিজেডি। রাজ্যের ২১টি আসনের মধ্যে বিজেডি ১৪টিতে জয়ী হয়েছে। ২০১৪ সালের নির্বাচনে রাজ্য থেকে ২০টি আসনে জয়ী হয়েছিল বিজেডি। এবার মোদি সুনামি এ রাজ্যেও আঘাত হেনেছে। সাত আসন বিজেডির কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়েছে বিজেপি।

মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেসের এক : মধ্যপ্রদেশে ২৯টি আসনের মধ্যে ২৮টিতেই জয়ী হয়েছে বিজেপি। একটিতে কংগ্রেস। কোনো রকমে ছিন্দওয়ারা আসনটি ধরে রেখেছে দলটি। গতবারের জেতা গুনা আসনটি খুইয়েছে রাহুলের দল। এবার মধ্যপ্রদেশের প্রাথমিক ফল বুথফেরত সমীক্ষাকেও ছাপিয়ে গিয়েছে। বুথফেরত সমীক্ষার গড়ে দেখা গিয়েছিল মধ্যপ্রদেশের ২৯ আসনের মধ্যে বিজেপি পেতে পারে ২৩টি আসন।

কর্নাটকে ধরাশায়ী কংগ্রেস-জেডিএস জোট : সারা দেশেই মুখ থুবড়ে পড়েছে জোট। কর্নাটকেও তার ব্যত্যয় ঘটেনি। কংগ্রেস জেডিএস জোটকে পর্যুদস্ত করে জয়জয়কার বিজেপির। এ গেরুয়া ঝড়ে একইসঙ্গে টলে গেল কর্নাটক সরকারও।

ঘটনাপ্রবাহ : ভারতের জাতীয় নির্বাচন-২০১৯

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: jugantor.mail[email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×