পারস্য উপসাগরে উত্তেজনা বাড়ছে, বড় সংঘাতের আশঙ্কা

  যুগান্তর ডেস্ক ১৯ জুলাই ২০১৯, ১১:২২ | অনলাইন সংস্করণ

পারস্য উপসাগরে উত্তেজনা বাড়ছে, বড় সংঘাতের আশঙ্কা
ছবি: এএফপি

পারস্য উপসাগরে একের পর এক উত্তেজনামূলক ঘটনাবলীর পর একটি ইরানি ড্রোন ধ্বংস করার খবর দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এর আগের ঘটনাগুলোর জন্য তেহরানকে দায়ী করে আসছে যুক্তরাষ্ট্রসহ তার উপসাগরীয় মিত্রদেশগুলো।

আরব আমিরাত ও সৌদি তেলট্যাংকারে হামলাসহ জাহাজের গায়ে লিমপিট মাইন স্থাপনের অভিযোগের তীরও তেহরানের দিকে। এছাড়া সিরিয়া ও ইয়েমেনে ছায়াযুদ্ধ নিয়েও উত্তেজনা রয়েছে।

গত মে মাসে ইরানি বাহিনীর কাছ থেকে হুমকির আভাসের জবাবে ইরানি জলসীমার কাছে একটি রণতরী ও বি-৫২ বোমারু বিমান মোতায়েনের ঘোষণা দিয়েছে পেন্টাগন।

জুনে যুক্তরাষ্ট্রের একটি সামরিক নজরদারি ড্রোন গুলি করে ধ্বংস করেছে তেহরান। এতে ইরানের বিরুদ্ধে বিমান হামলার হুমকি দিয়েও শেষ মুহূর্তে এসে তা থেকে সরে আসেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

তিনি তখন বলেন, এ হামলা সমানুপাতিক হতো না এবং সেখানে বড় ধরনের হতাহতের হুমকি ছিল।

গত ৪ জুলাইয়ে জাবাল আল-তারিক প্রণালীর কাছ থেকে একটি ইরানি তেল ট্যাংকার জব্দ করে ব্রিটেন। মার্কিন মিত্র দেশটির দাবি, ওই ট্যাংকারে তেল নিয়ে সিরিয়ার পরিশোধনাগারে যাওয়া হচ্ছিল, যেটা ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞার লঙ্ঘন।

ব্রিটেনের এই পদক্ষেপকে ক্ষুব্ধ ইরান দস্যুতা হিসেবে আখ্যায়িত করে। সপ্তাহখানেক পরে পারস্য উপসাগরে সশস্ত্র ইরানি বোট একটি ব্রিটিশ তেল ট্যাংকারকে ধাওয়া করে জব্দের চেষ্টা চালায়। কিন্তু ব্রিটিশ রয়েল নেভির যুদ্ধজাহাজ তাদের তাড়িয়ে দেয়।

এতে উপসাগরীয় তেল ক্ষেত্রগুলো থেকে হাইড্রোকার্বন বোঝাই করে নিয়ে যাওয়া নৌযানগুলোর নিরাপত্তা দিতে হরমুজ প্রণালীতে আন্তর্জাতিক নৌবহরগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

বৃহস্পতিবার উপসাগরীয় নৌপথে জাহাজ চলাচলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অংশীদার দেশগুলোকে সঙ্গে নিয়ে আগ্রাসী পদক্ষেপ নেয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ডের প্রধান কেনেথ ম্যাককেনজি।

এসব ঘটনাপ্রবাহ ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদেশগুলোর আঞ্চলিক সংঘাতেরই আভাস দিচ্ছে। কারণ এই হজমুজ প্রণালী দিয়ে পৃথিবীর এক তৃতীয়াংশ তেল পরিবহন করা হয়।

ছয় বিশ্বশক্তির সঙ্গে ২০১৫ সালে ইরানের পরমাণু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র সরে যাওয়ার পর এসব ঘটনা ঘটছে।

একতরফাভাবে ওই চুক্তি থেকে সরে আসার বছরখানেক পর তেহরানের অর্থনীতিকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দিতে ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

চলতি মাসের শুরুতে উদ্দেম্যমূলকভাবেই ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ বাড়িয়ে দিয়েছে তেহরান। মূলত চুক্তির অন্য অংশীদারতে চাপে রাখতেই এমন উদ্যোগ নিয়েছে শিয়া সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটি।

বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ বলেন, ওয়াশিংটন অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদে জড়িয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, এই অবৈধ ও কর্তৃত্বের বাইরে গিয়ে আরোপ করা নিষেধাজ্ঞায় ইরান ও প্রতিবেশী দেশগুলোর টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রাকে হুমকিতে ফেলে দিয়েছে।

এসব সত্ত্বেও বৃহস্পতিবার তেহরানের ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কর্মসূচিতে গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ সরবরাহে ইরান, বেলজিয়াম ও চীনের বিভিন্ন কোম্পানির একটি নেটওয়ার্ককের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

এদিকে দুই পক্ষই আলোচনার সম্ভাব্য পথ খোলা রেখেছে বলে দাবি করা হচ্ছে। গার্ডিয়ানের এক খবর জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র যদি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করতে সম্মত হয়, তবে ইরানের পরমাণু কর্মসূচিতে পরিদর্শন বাড়াতে একটি নতুন চুক্তির প্রস্তাব দিয়েছেন জাভেদ জারিফ।

আলোচনায় ট্রাম্পকেও আগ্রহী হতে দেখা গেছে। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, চাপের কারণে আঞ্চলিক তৎপরতা উল্লেখযোগ্য কমাতে বাধ্য হয়েছে ইরান। যা একটি আলোচনার দিকেই এগোচ্ছে বলে ধারণা দিচ্ছে।

তিনি বলেন, আপনি তাদের সরে আসতে দেখেন। তারা পিছু হটছে, কারণ তাদের অর্থ নেই। আমরা একটি ন্যায্য চুক্তি করতে চাই। এর আগে যে চুক্তি হয়েছে, সেটা ছিল খারাপ। আমরা দ্রুতই কিছু করতে পারবো। আমরা সময় নিচ্ছি, তাড়াহুড়োর কিছু নেই।

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন-ইরান সংকট

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×