কারফিউ শিথিলের পর কাশ্মীরে ব্যাপক বিক্ষোভ, ফের কড়াকড়ি

  যুগান্তর ডেস্ক ১৮ আগস্ট ২০১৯, ২০:২৩ | অনলাইন সংস্করণ

কাশ্মীরে বিক্ষোভ
ছবি: এএফপি

জম্মু-কাশ্মীরের অচলাবস্থা নিরসনে বেশকিছু জায়গায় টেলিফোন ও ইন্টারনেট পরিসেবা চালু করার পর ২৪ ঘণ্টা না পেরোতেই আবার তা বন্ধ করে দিয়েছে ভারত সরকার।

শনিবার রাতে বিক্ষিপ্ত কয়েকটি সংঘর্ষের জেরে উপত্যকাজুড়ে ফের কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, শনিবার থেকে জম্মুর কয়েকটি এলাকায় কারফিউ শিথিল এবং ইন্টারনেট ও টেলিফোন পরিসেবা আংশিকভাবে চালু করা হয়েছিল। কিন্তু কারফিউ শিথিলের পর শনিবার রাতে স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে ভারতীয় বাহিনীর বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষিপ্তভাবে সংঘর্ষ হয়েছে।

এরপর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ফের নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হয়। রাজধানী শ্রীনগরের বিভিন্ন রাস্তায় ব্যারিকেড বসায় ভারত সরকার। বন্ধ করে দেয়া হয় ইন্টারনেট ও টেলিফোন পরিসেবা। জম্মু, সাম্বা, কাঠুয়া, উধমপুর, ও রিয়াসি- এই পাঁচটি জেলায় টুজি ইন্টারনেট এবং টেলিফোন পরিসেবা পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

ভারতীয় প্রশাসনের দাবি, ভুয়া খবর ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা এবং বিক্ষোভ দমাতেই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

ভারতীয় বাহিনীর গুলিতে আহত কাশ্মীরি তরুণ। ছবি: এপি

গত ৫ আগস্ট ৩৭০ ধারা বাতিলের পর বিগত ১৪ দিন ধরে জম্মু-কাশ্মীরে‌‌ কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জারি রয়েছে। আগে থেকে মোতায়েন ৫ লাখ সেনাবাহিনীর সঙ্গে যোগ করা আরও প্রায় ৩৫ হাজার সেনা-পুলিশ। ইন্টারনেট এবং ফোন পরিসেবা বন্ধ করে দেয়া হয়। কাঁটাতার আর ব্যারিকেড ফেলে বন্ধ করা হয় সব রাস্তাঘাট।

নিষিদ্ধ করা হয় বিক্ষোভ-সমাবেশ। গত বুধবার জম্মুতে কারফিউ ও কড়াকড়ি সম্পূর্ণ তুলে নেয়া হয়। শনিবার থেকে ওই পাঁচটি জেলায় টুজি ইন্টারনেট সেবাও চালু হয়। কিন্তু সন্ধ্যা থেকেই বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ শুরু হয়।

জম্মুতে নিযুক্ত সরকারি মুখপাত্র রোহিত কানসাল জানান, কারফিউ শিথিলের পর শুধু শনিবারেই ৬ জায়গায় বিক্ষোভ হয়েছে। এ ছাড়া পুলিশ ও বিক্ষুব্ধ জনতার সংঘর্ষে আহতও হয়েছে বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারী। আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

৫ আগস্ট ৩৭০ ধারা বিলোপের মাধ্যমে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা ও স্বায়ত্তশাসন বাতিল করা হয়। মূলত বিক্ষোভ-প্রতিবাদ ও অস্থিতিশীলতার আশঙ্কা থেকে কাশ্মীরকে ‘খাঁচাবন্দি’ করে রাখা হয়েছে।

ঘটনাপ্রবাহ : কাশ্মীর সংকট

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×