সাদা পতাকা উড়িয়ে সীমান্তরেখা থেকে মরদেহ নিল পাকিস্তান (ভিডিও)

  যুগান্তর ডেস্ক ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৩:৩৭:৩৯ | অনলাইন সংস্করণ

ছবি: ইউটিউব

ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপের পর থেকে পাক-ভারত সম্পর্কে যে অবনতি ঘটেছে, তা ছোট ছোট যুদ্ধে রূপ নিয়েছে।

এরই মধ্যে সীমান্তে ভারত ও পাকিস্তানের সেনাদের মধ্যে বেশ কয়েকটি গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে।

ভারতের সংবাদ সংস্থা এএনআই জানায়, গত ১০ সেপ্টেম্বর নিয়ন্ত্রণরেখায় যুদ্ধবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে গুলি চালায় পাকিস্তান। প্রতিশোধ নিতে পাল্টা গুলি চালান ভারতীয় সেনারা। এতে ভারতীয় সেনার গুলিতে দুই পাক সেনা মারা যায়।

নিহত দুই পাক সেনার একজনের নাম গোলাম রাসুল বলে জানা যায়। তিনি পাকিস্তানের পাঞ্জাবের বাহওয়াল নগরের বাসিন্দা।

এদিকে সংঘর্ষে নিহত দুই সেনার মরদেহ ফিরিয়ে নিতে শুক্রবার নিয়ন্ত্রণরেখায় সাদা পতাকা উড়িয়েছেন পাকিস্তানি সেনারা। শুক্রবার নিহত সেনা কর্মকর্তাদের মরদেহ গ্রহণ করে পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষ।

পাক সেনাদের সাদা পতাকা উড়িয়ে মরদেহ নিয়ে যাওয়ার সেই দৃশ্যের একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে এএনআই।

ভিডিওতে দেখা গেছে, পাকিস্তানি সেনারা একটি পাহাড়ের পেছন থেকে বেরিয়ে এসে তাদের সহকর্মীদের লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যাচ্ছেন। এ সময় তারা সাদা পতাকা উড়াচ্ছিল, যেন ভারতীয় সেনারা গুলি না চালান।

এনডিটিভি জানায়, ভারতীয় সেনারা সেদিন গুলি চালানো থেকে বিরত থাকার ইঙ্গিত দিলে পাক সেনাদের ওই দল দুটি মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের হাজীপুর সেক্টরের একটি পাহাড়ের পাদদেশের ওপারে চলে যায়।


পাকিস্তান মরদেহগুলো নিতে এর আগে দুই দফা চেষ্টা করেছিল বলে এক প্রতিবেদনে লিখেছে এএনআই। তখন পাল্টা হামলা করেছিল ভারত। সে হামলায় আরও এক পাকিস্তানি সেনা নিহত হন বলে দাবি ভারতীয় সেনাদের। পরে শুক্রবার সাদা পতাকা উড়িয়ে সফল হন তারা।

নিয়ন্ত্রণরেখায় পাক সেনাদের সাদা পতাকা উড়িয়ে মৃতদেহগুলো তুলে নিয়ে যাওয়ার ভিডিও-

ঘটনাপ্রবাহ : কাশ্মীর সংকট

আরও

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত