‘ট্রাম্পের ইমপিচমেন্টে সহযোগিতা করবে না হোয়াইট হাউস’
jugantor
‘ট্রাম্পের ইমপিচমেন্টে সহযোগিতা করবে না হোয়াইট হাউস’

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৯ অক্টোবর ২০১৯, ১৩:২৯:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাকে ইমপিচ করার প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করবেন না বলে হোয়াইট হাউসের প্রতিনিধি পরিষদকে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে দিয়েছেন।

হোয়াইট হাউস প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির কাছে পাঠানো এক চিঠিতে ট্রাম্প জানিয়েছেন, তার প্রশাসন ইমপিচ প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করবে না। খবর বিবিসির।

হোয়াইট হাউসের এ পদক্ষেপের ফলে মার্কিন প্রশাসনযন্ত্রের দুই প্রধান শাখার মধ্যে সাংবিধানিক ক্ষমতা নিয়ে দ্বন্দ্ব শুরু হলো।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের আবাসিক দফতরের চিঠিতে বলা হয়েছে, এই ইমপিচমেন্ট সংবিধানসম্মত নয় এবং ইমপিচমেন্টের যে তদন্ত শুরু হয়েছে তার কোনো আইনি ভিত্তি নেই।

হোয়াইট হাউসের এ সিদ্ধান্তের ফলে মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের যে তিনটি কমিটি ট্রাম্পকে ইমপিচ করার প্রয়োজনীয়তার ব্যাপারে তদন্ত শুরু করেছে, তারা এখন থেকে সরকারের পক্ষ থেকে আর কোনো তথ্য পাবেন না এবং সরকারি কোনো কর্মকর্তাও আর তাদের ডাকে সাড়া দেবেন না।

প্রতিনিধি পরিষদের ওই তিনটি কমিটিরই প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন ডেমোক্র্যাট দলের প্রতিনিধিরা।

ডেমোক্র্যাটদের অভিযোগ, ট্রাম্প তার রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের ছেলের বিরুদ্ধে তদন্ত করার জন্য ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কির ওপর চাপ প্রয়োগ করেছেন।

তিনি দেশটিকে মার্কিন সামারিক সহায়তা বন্ধ করে দেয়ারও হুমকি দেন বলে অভিযোগ উঠেছে। সিআইএর এক কর্মকর্তা এ তথ্য ফাঁস করে দেয়ার পর গত সপ্তাহে ট্রাম্পকে আনুষ্ঠানিকভাবে ইমপিচ করার উদ্যোগ নেন প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি।

‘ট্রাম্পের ইমপিচমেন্টে সহযোগিতা করবে না হোয়াইট হাউস’

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৯ অক্টোবর ২০১৯, ০১:২৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাকে ইমপিচ করার প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করবেন না বলে হোয়াইট হাউসের প্রতিনিধি পরিষদকে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে দিয়েছেন।

হোয়াইট হাউস প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির কাছে পাঠানো এক চিঠিতে ট্রাম্প জানিয়েছেন, তার প্রশাসন ইমপিচ প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করবে না। খবর বিবিসির।

হোয়াইট হাউসের এ পদক্ষেপের ফলে মার্কিন প্রশাসনযন্ত্রের দুই প্রধান শাখার মধ্যে সাংবিধানিক ক্ষমতা নিয়ে দ্বন্দ্ব শুরু হলো।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের আবাসিক দফতরের চিঠিতে বলা হয়েছে, এই ইমপিচমেন্ট সংবিধানসম্মত নয় এবং ইমপিচমেন্টের যে তদন্ত শুরু হয়েছে তার কোনো আইনি ভিত্তি নেই।

হোয়াইট হাউসের এ সিদ্ধান্তের ফলে মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের যে তিনটি কমিটি ট্রাম্পকে ইমপিচ করার প্রয়োজনীয়তার ব্যাপারে তদন্ত শুরু করেছে, তারা এখন থেকে সরকারের পক্ষ থেকে আর কোনো তথ্য পাবেন না এবং সরকারি কোনো কর্মকর্তাও আর তাদের ডাকে সাড়া দেবেন না।  

প্রতিনিধি পরিষদের ওই তিনটি কমিটিরই প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন ডেমোক্র্যাট দলের প্রতিনিধিরা।

ডেমোক্র্যাটদের অভিযোগ, ট্রাম্প তার রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের ছেলের বিরুদ্ধে তদন্ত করার জন্য ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কির ওপর চাপ প্রয়োগ করেছেন।

তিনি দেশটিকে মার্কিন সামারিক সহায়তা বন্ধ করে দেয়ারও হুমকি দেন বলে অভিযোগ উঠেছে। সিআইএর এক কর্মকর্তা এ তথ্য ফাঁস করে দেয়ার পর গত সপ্তাহে ট্রাম্পকে আনুষ্ঠানিকভাবে ইমপিচ করার উদ্যোগ নেন প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি।