বাবরি মসজিদ রায়ে আদালতের কাছে কৃতজ্ঞ নির্মোহী আখড়া
jugantor
বাবরি মসজিদ রায়ে আদালতের কাছে কৃতজ্ঞ নির্মোহী আখড়া

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৯ নভেম্বর ২০১৯, ১২:৪১:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

বাবরি মসজিদ রায়ে আদালতের কাছে কৃতজ্ঞ নির্মোহী আখড়া

ভারতের বাবরি মসজিদ রায়ে সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছে নির্মোহী আখরা। তারা বলছে, মন্দির নির্মাণ করে তার ব্যবস্থাপনায় আমাদের যথেষ্ট প্রতিনিধিত্ব ও লড়াইয়ে স্বীকৃতি দেয়ায় আদালতের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।

অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের জায়গায় মন্দির নির্মাণে নির্মোহী আখরা গঠন করা হয়েছিল। মামলায় তারাও অন্যতম পক্ষ বলে খবরে বলা হয়েছে।

সংবাদসংস্থা এএনআইয়ের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

সংস্থাটির মুখপাত্র কার্তিক চোপরা বলেন, গত দেড়শ বছর ধরে আমাদের লড়াইকে স্বীকৃতি দেয়ায় আদালতের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।

হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে অযোধ্যাকে। বছরজুড়ে সেখানে তর্থযাত্রীরা ভ্রমণে যান।

১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর বাবরি মসজিদ গুঁড়িয়ে দেয়ার পর সেখানে তৈরি অস্থায়ী মন্দিরে ভগবান শিশু রামচন্দ্রের (রাম লালা) মূর্তির পূজা হয়ে আসছে।

বাবরি মসজিদ রায়ে আদালতের কাছে কৃতজ্ঞ নির্মোহী আখড়া

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৯ নভেম্বর ২০১৯, ১২:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বাবরি মসজিদ রায়ে আদালতের কাছে কৃতজ্ঞ নির্মোহী আখড়া
ছবি: সংগৃহীত

ভারতের বাবরি মসজিদ রায়ে সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছে নির্মোহী আখরা। তারা বলছে, মন্দির নির্মাণ করে তার ব্যবস্থাপনায় আমাদের যথেষ্ট প্রতিনিধিত্ব ও লড়াইয়ে স্বীকৃতি দেয়ায় আদালতের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।

অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের জায়গায় মন্দির নির্মাণে নির্মোহী আখরা গঠন করা হয়েছিল। মামলায় তারাও অন্যতম পক্ষ বলে খবরে বলা হয়েছে।

সংবাদসংস্থা এএনআইয়ের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

সংস্থাটির মুখপাত্র কার্তিক চোপরা বলেন, গত দেড়শ বছর ধরে আমাদের লড়াইকে স্বীকৃতি দেয়ায় আদালতের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।

হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে অযোধ্যাকে। বছরজুড়ে সেখানে তর্থযাত্রীরা ভ্রমণে যান।

১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর বাবরি মসজিদ গুঁড়িয়ে দেয়ার পর সেখানে তৈরি অস্থায়ী মন্দিরে ভগবান শিশু রামচন্দ্রের (রাম লালা) মূর্তির পূজা হয়ে আসছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : বাবরি মসজিদ মামলার রায়