কাশ্মীরে ১০০ কোটি ডলারেরও বেশি ক্ষতি ব্যবসায়ীদের

  যুগান্তর ডেস্ক ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ২১:২০ | অনলাইন সংস্করণ

ছবি: সংগৃহীত
ছবি: সংগৃহীত

জম্মু-কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপের পর থেকে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের ১০০ কোটি ডলারের বেশি আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।

স্থানীয় ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন কাশ্মীর চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (কেসিসিআই) পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে বলে রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে। ব্যবসায়িক এ লোকসানের ক্ষতিপূরণের জন্য সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করারও পরিকল্পনা করছে সংগঠনটি।

জম্মু-কাশ্মীরের সাংবিধানিক মর্যাদা বিলুপ্ত করে এলাকাটিকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করার পদক্ষেপ কাশ্মীরের উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে বলে সে সময় নয়া দিল্লির তরফ থেকে দাবি করা হয়েছিল।

বিজেপি সরকারের সেই আশ্বাসকে ‘চাতুরি’ আখ্যা দিয়েছে কাশ্মীর চেম্বার অব কমার্স (কেসিসিআই)।

কাশ্মীর চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (কেসিসিআই) সভাপতি শেখ আশিক বলেন, ৫ আগস্টের পর থেকে এখন পর্যন্ত উপত্যকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক নয়। পাল্লা দিয়ে চলছে ক্ষতিও।’

তার কথায়, জম্মু ও কাশ্মীরের সব ব্যবসায়িক ক্ষেত্রেই এই প্রভাব পড়েছে। এখনও সবাই স্বাভাবিকভাবে ব্যবসার কাজ শুরু করতে পারেননি। আমরা প্রশাসনকে বলেছি, এই সময়ে অধিকাংশ ব্যবসাই ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়া সম্ভব নয়। আর সেটাই এখন কাশ্মীরে নেই।’

কেসিসিআই এর জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি নাসির খান জানিয়েছেন, টেলিযোগাযোগ বন্ধ করে রাখায় কেসিসিআই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকদের সঙ্গে কথা বলে ক্ষতির সঠিক পরিমাণ নির্ণয় করতে পারছে না।

তিনি বলেন, আমরা আদালতকে বাইরের কোনো সংস্থাকে নিয়োগ দিতে বলব, যারা ক্ষতি পর্যালোচনা করে দেখবে। কেননা, এটি আমাদের আয়ত্বের বাইরে।

আশিক বলেন, ‘ইন্টারনেট না থাকায় ইউরোপসহ পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তের সঙ্গে কাশ্মীরের যে ব্যবসায়িক সম্পর্ক, তা আপাতত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।’

কেসিসিআইয়ের এ দাবি প্রসঙ্গে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকার কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তারা সাড়া দেননি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

ঘটনাপ্রবাহ : কাশ্মীর সংকট

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×