ইরানকে সর্বোচ্চ চাপে রাখার মার্কিন নীতি মানবে না জার্মানি
jugantor
ইরানকে সর্বোচ্চ চাপে রাখার মার্কিন নীতি মানবে না জার্মানি

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৯ জানুয়ারি ২০২০, ২২:৪৪:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস। ছবি: সংগৃহীত

ইরানকে সর্বোচ্চ চাপে রাখার মার্কিন নীতির নিন্দা জানিয়েছে জার্মানি। যুক্তরাষ্ট্রের এমন নীতি অতীতে খারাপ ফলাফল নিয়ে এসেছে বলেও মনে করে দেশটি।

রোববার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনা করে জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস বলেন, বাইরে থেকে চাপ দিয়ে ইরানের সরকার পরিবর্তন করলে পরিস্থিতির উন্নতি ঘটবে বলে মনে করার কিছু নেই। অতীতে যেমন ইরাকে তার ফলাফল খারাপ হয়েছে।

জার্মান পত্রিকা বিল্ডকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ সমালোচনা করেছেন বলে ডয়চে ভেলে জানিয়েছে।

২০১৮ সালের মে মাসে যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু চুক্তি থেকে নিজেদের সরিয়ে নেবার পর থেকে ওয়াশিংটন-তেহরান সম্পর্কে ব্যাপক টানাপড়েন তৈরি হয়।

যুক্তরাষ্ট্র ইরানের একজন শীর্ষ জেনারেলকে হত্যার পর যুদ্ধ পরিস্থিতি তৈরি হয়। জবাবে ইরাকে মার্কিন সেনাঘাঁটিতে হামলা চালায় ইরান। এরপর থেকে পুরো মধ্যপ্রাচ্যে ছায়াযুদ্ধ বেড়ে যাওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

ইরান ইস্যুতে ওয়াশিংটনকে ইউরোপের নীতি অনুসরণ করার আহ্বানো জানিয়েছেন মাস।

এদিকে চীনের নেতৃত্বাধীন অর্থনৈতিক ও নিরাপত্তা জোট সাংহাই সহযোগিতা পরিষদে ইরানের স্থায়ী সদস্য পদের প্রতি পূর্ণ সমর্থন দেবে রাশিয়া।

ভারত সফররত রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ শনিবার নয়াদিল্লিতে এক সংবাদ সম্মেলনে তার দেশের এ অবস্থানের কথা ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, এই সংস্থায় ইরান স্থায়ী সদস্যপদ লাভের যেন আবেদন জানিয়েছে তার প্রতি রাশিয়াসহ বেশিরভাগ সদস্যদেশের সমর্থন রয়েছে।

ইরান বর্তমানে সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার পর্যবেক্ষক সদস্য বলেও উল্লেখ করেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

ইরানকে সর্বোচ্চ চাপে রাখার মার্কিন নীতি মানবে না জার্মানি

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৯ জানুয়ারি ২০২০, ১০:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস। ছবি: সংগৃহীত
জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস। ছবি: সংগৃহীত

ইরানকে সর্বোচ্চ চাপে রাখার মার্কিন নীতির নিন্দা জানিয়েছে জার্মানি। যুক্তরাষ্ট্রের এমন নীতি অতীতে খারাপ ফলাফল নিয়ে এসেছে বলেও মনে করে দেশটি। 

রোববার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনা করে জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস বলেন, বাইরে থেকে চাপ দিয়ে ইরানের সরকার পরিবর্তন করলে পরিস্থিতির উন্নতি ঘটবে বলে মনে করার কিছু নেই। অতীতে যেমন ইরাকে তার ফলাফল খারাপ হয়েছে।

জার্মান পত্রিকা বিল্ডকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ সমালোচনা করেছেন বলে ডয়চে ভেলে জানিয়েছে।  

২০১৮ সালের মে মাসে যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু চুক্তি থেকে নিজেদের সরিয়ে নেবার পর থেকে ওয়াশিংটন-তেহরান সম্পর্কে ব্যাপক টানাপড়েন তৈরি হয়। 

যুক্তরাষ্ট্র ইরানের একজন শীর্ষ জেনারেলকে হত্যার পর যুদ্ধ পরিস্থিতি তৈরি হয়। জবাবে ইরাকে মার্কিন সেনাঘাঁটিতে হামলা চালায় ইরান। এরপর থেকে পুরো মধ্যপ্রাচ্যে ছায়াযুদ্ধ বেড়ে যাওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। 

ইরান ইস্যুতে ওয়াশিংটনকে ইউরোপের নীতি অনুসরণ করার আহ্বানো জানিয়েছেন মাস। 

এদিকে চীনের নেতৃত্বাধীন অর্থনৈতিক ও নিরাপত্তা জোট সাংহাই সহযোগিতা পরিষদে ইরানের স্থায়ী সদস্য পদের প্রতি পূর্ণ সমর্থন দেবে রাশিয়া।

ভারত সফররত রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ শনিবার নয়াদিল্লিতে এক সংবাদ সম্মেলনে তার দেশের এ অবস্থানের কথা ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, এই সংস্থায় ইরান স্থায়ী সদস্যপদ লাভের যেন আবেদন জানিয়েছে তার প্রতি রাশিয়াসহ বেশিরভাগ সদস্যদেশের সমর্থন রয়েছে।

ইরান বর্তমানে সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার পর্যবেক্ষক সদস্য বলেও উল্লেখ করেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ইরানি শীর্ষ জেনারেল কাসেম সোলাইমানি নিহত

আরও খবর