স্বপ্নের বাড়ি কিনুন মাত্র ৮০ টাকায়!
jugantor
স্বপ্নের বাড়ি কিনুন মাত্র ৮০ টাকায়!

  অনলাইন ডেস্ক  

২৩ জানুয়ারি ২০২০, ১২:০৫:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

ইতালির নেপলস শহর থেকে মাত্র দুই ঘণ্টার দূরত্বে অবস্থিত বিসাকিয়াতে মাত্র ৮০ টাকায় বাড়ি বিক্রি হচ্ছে!

জনসংখ্যা বাড়ানোর উদ্দেশে এমন  উদ্যোগ হাতে নিয়েছে দেশটির একটি সংস্থা।

ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিসাকিয়া গ্রামটিতে জনসংখ্যার হার খুবই কম। আর সেই কারণেই তারা এক ইউরোতে অর্থাৎ 

৮০ টাকায় বাড়ি বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

নীল, গোলাপি, সবুজ আর হলুদ রঙের বাড়িগুলোর মালিক সিএনএন-ট্রাভেল অনুসারে উন্নত ভবিষ্যতের জন্য অন্যত্র চলে গেছেন। আর সেই কারণেই এখানকার সব ঘরবাড়ির স্থানীয় লোকজনের কাছে রয়েছে। 

খবরে বলা হয়, এসব কেনার জন্য খুব একটা দৌড়োদৌড়ি করতে হবে না। কারণ বাড়িগুলো ওখানকার স্থানীয় মানুষই বিক্রি করছেন। এই বাড়ির পুরনো মালিকের সঙ্গেও দেখা করার কোনো দরকার নেই।

শহরের ডেপুটি মেয়র ফ্রানসেস্কো টোর্টাগ্লিয়া জানিয়েছেন, ‘আমাদের এখানে জনসংখ্যা কমে যাচ্ছে। এখানে যে বাড়িগুলো লোকজন ছেড়ে দিয়ে চলে গেছেন, সেগুলো সবই গ্রামের পুরনো অংশে অবস্থিত।’

‘আর এ কারণেই আমরা এখানে পরিবার, বন্ধু বান্ধবের গোষ্ঠী, আত্মীয়-স্বজন, এমন মানুষ যারা একে অপরকে জানেন তাদেরকেই স্বাগত 

জানাচ্ছি। যাতে এই ঘরগুলো বিক্রি হয় বা তারা ঘরগুলো কেনেন।’

স্বপ্নের বাড়ি কিনুন মাত্র ৮০ টাকায়!

 অনলাইন ডেস্ক 
২৩ জানুয়ারি ২০২০, ১২:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইতালির নেপলস শহর থেকে মাত্র দুই ঘণ্টার দূরত্বে অবস্থিত বিসাকিয়াতে মাত্র ৮০ টাকায় বাড়ি বিক্রি হচ্ছে!

জনসংখ্যা বাড়ানোর উদ্দেশে এমন উদ্যোগ হাতে নিয়েছে দেশটির একটি সংস্থা।

ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিসাকিয়া গ্রামটিতে জনসংখ্যার হার খুবই কম। আর সেই কারণেই তারা এক ইউরোতে অর্থাৎ

৮০ টাকায় বাড়ি বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

নীল, গোলাপি, সবুজ আর হলুদ রঙের বাড়িগুলোর মালিক সিএনএন-ট্রাভেল অনুসারে উন্নত ভবিষ্যতের জন্য অন্যত্র চলে গেছেন। আর সেই কারণেই এখানকার সব ঘরবাড়ির স্থানীয় লোকজনের কাছে রয়েছে।

খবরে বলা হয়, এসব কেনার জন্য খুব একটা দৌড়োদৌড়ি করতে হবে না। কারণ বাড়িগুলো ওখানকার স্থানীয় মানুষই বিক্রি করছেন। এই বাড়ির পুরনো মালিকের সঙ্গেও দেখা করার কোনো দরকার নেই।

শহরের ডেপুটি মেয়র ফ্রানসেস্কো টোর্টাগ্লিয়া জানিয়েছেন, ‘আমাদের এখানে জনসংখ্যা কমে যাচ্ছে। এখানে যে বাড়িগুলো লোকজন ছেড়ে দিয়ে চলে গেছেন, সেগুলো সবই গ্রামের পুরনো অংশে অবস্থিত।’

‘আর এ কারণেই আমরা এখানে পরিবার, বন্ধু বান্ধবের গোষ্ঠী, আত্মীয়-স্বজন, এমন মানুষ যারা একে অপরকে জানেন তাদেরকেই স্বাগত

জানাচ্ছি। যাতে এই ঘরগুলো বিক্রি হয় বা তারা ঘরগুলো কেনেন।’

 
আরও খবর