ইউরোপের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ জারিফের
jugantor
ইউরোপের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ জারিফের

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৮ জানুয়ারি ২০২০, ১০:৩৯:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ইউরোপের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ জারিফের

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ বলেছেন, বছর পাঁচেক আগে সই হওয়া পরমাণু চুক্তির একটি বিরোধ নিষ্পত্তির কর্মকৌশল সক্রিয় করে বর্ণবাদ প্রদর্শন করেছে ফ্রান্স ও জার্মানি।

সোমবার টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে এই বিভ্রান্তির নিন্দা জানিয়েছেন তিনি। জাভেদ জারিফ বলেন, আন্তর্জাতিক আইন থেকে কেবল নীল চোখের লোকজনই সুবিধা ভোগ করছে।-খবর এএফপির

‘যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বারবার আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘনের পরও অনুচ্ছেদ ৩৬ কাজে লাগানোর অধিকার নেই ইরানের। যদিও ইউরোপীয় কর্মকর্তাদের বেশ কয়েকবার লিখিতভাবে অবগত করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, আমরা এই বর্ণবাদ গ্রহণ করতে পারলাম না।

১৪ জানুয়ারি ব্রিটেন, ফ্রান্স ও জার্মানি বলেছে– চুক্তির বিরোধ নিষ্পত্তিকে তারা ৩৬ অনুচ্ছেদের অধীন ছেড়ে দিয়েছে। কিন্তু এই চুক্তির প্রতি নিজেদের অঙ্গীকার বহাল রাখার কথাও জানিয়েছেন তারা।

জয়েন্ট কমপ্রিহেনসিভ প্ল্যান অব অ্যাকশন নামে ওই চুক্তি অনুসারে পরমাণু কর্মসূচির লাগাম ধরার বিনিময়ে নিষেধাজ্ঞা থেকে রেহাই পাওয়ার কথা ছিল ইরানের। কিন্তু ২০১৮ সালে একতরফাভাবে চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

এর পর ইরানের ওপর একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইউরোপের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ জারিফের

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৮ জানুয়ারি ২০২০, ১০:৩৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ইউরোপের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ জারিফের
ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ। ছবি: সংগৃহীত

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ বলেছেন, বছর পাঁচেক আগে সই হওয়া পরমাণু চুক্তির একটি বিরোধ নিষ্পত্তির কর্মকৌশল সক্রিয় করে বর্ণবাদ প্রদর্শন করেছে ফ্রান্স ও জার্মানি।

সোমবার টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে এই বিভ্রান্তির নিন্দা জানিয়েছেন তিনি। জাভেদ জারিফ বলেন, আন্তর্জাতিক আইন থেকে কেবল নীল চোখের লোকজনই সুবিধা ভোগ করছে।-খবর এএফপির

‘যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বারবার আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘনের পরও অনুচ্ছেদ ৩৬ কাজে লাগানোর অধিকার নেই ইরানের। যদিও ইউরোপীয় কর্মকর্তাদের বেশ কয়েকবার লিখিতভাবে অবগত করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, আমরা এই বর্ণবাদ গ্রহণ করতে পারলাম না।

১৪ জানুয়ারি ব্রিটেন, ফ্রান্স ও জার্মানি বলেছে– চুক্তির বিরোধ নিষ্পত্তিকে তারা ৩৬ অনুচ্ছেদের অধীন ছেড়ে দিয়েছে। কিন্তু  এই চুক্তির প্রতি নিজেদের অঙ্গীকার বহাল রাখার কথাও জানিয়েছেন তারা।

জয়েন্ট কমপ্রিহেনসিভ প্ল্যান অব অ্যাকশন নামে ওই চুক্তি অনুসারে পরমাণু কর্মসূচির লাগাম ধরার বিনিময়ে নিষেধাজ্ঞা থেকে রেহাই পাওয়ার কথা ছিল ইরানের। কিন্তু ২০১৮ সালে একতরফাভাবে চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

এর পর ইরানের ওপর একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ইরানের পরমাণু সমঝোতা