মুরগির নামে চলছিল কাকের মাংস বিক্রি!
jugantor
মুরগির নামে চলছিল কাকের মাংস বিক্রি!

  যুগান্তর ডেস্ক  

০১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০:১৪:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

কাকের মাংসকে মুরগির মাংসের সঙ্গে মিশিয়ে বিক্রি করার অভিযোগে দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বিষয়টি জানাজানির পর ওই স্থানীয়রা ক্রেতারা বিস্মিত হয়ে তাদের বিচার চাইছেন।

কাক মেরে চিকেন বলে চালিয়ে দেয়ার এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের তামিলনাড়ুর রামেশ্বরম নামক এলাকায়।

গত বৃহস্পতিবার অভিযুক্ত দুই ব্যক্তির কাছ থেকে ১৫০টি মৃত কাক দ্ধার হয়েছে বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন স্থানীয় বনবিভাগের কর্মকর্তারা।

ভারতের সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, কাকের অভাব নেই রামেশ্বরমে। সম্প্রতি স্থানীয়রা লক্ষ্য করেন, দুই ব্যক্তি কাকদের উদ্দেশ্যে ভাত ছিটিয়ে দিচ্ছেন।  এতে অনেক অনেক কাক এসে তা খাওয়া শুরু করে। এতো কাককে কেন খাওয়াচ্ছেন জিজ্ঞেস করলে ওই দুই ব্যক্তি জানায়, তাদের প্রয়াত স্বজনদের স্মরণে এ কাজটি করছেন তারা।  কিন্তু পরে দেখা যায় বেশ কিছু কাক মরে গেছে।  তখনই স্থানীয়রা বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানায়।

কাক মরে যাওয়ার পেছনে ওই দুই ব্যক্তির হাত রয়েছে বলে অভিযোগ করেন তারা।  অফিসাররা তদন্ত করে দেখেন ভাতের সঙ্গে মেশানো বিষেই কাকগুলোর মৃত্যু হয়েছে।  এরপর ওই দুই ব্যক্তির ঘরে গিয়ে তল্লাশি করে ১৫০ মৃত কাক উদ্ধার করেন তারা।

পুলিশি জেরায় তারা স্বীকার করেন, মরে যাওয়া কাকগুলোর মাংস মুরগির মাংসের সঙ্গে মিশিয়ে বিক্রি করছিলেন তারা। রাস্তার কাছে থাকা খাবারের দোকানে ওই মাংস বিক্রি করে যাচ্ছিলেন তারা।

সূত্র: মিড ডে ডট কম, বিহার টাইমস

মুরগির নামে চলছিল কাকের মাংস বিক্রি!

 যুগান্তর ডেস্ক 
০১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০:১৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কাকের মাংসকে মুরগির মাংসের সঙ্গে মিশিয়ে বিক্রি করার অভিযোগে দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বিষয়টি জানাজানির পর ওই স্থানীয়রা ক্রেতারা বিস্মিত হয়ে তাদের বিচার চাইছেন।

কাক মেরে চিকেন বলে চালিয়ে দেয়ার এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের তামিলনাড়ুর রামেশ্বরম নামক এলাকায়।

গত বৃহস্পতিবার অভিযুক্ত দুই ব্যক্তির কাছ থেকে ১৫০টি মৃত কাক দ্ধার হয়েছে বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন স্থানীয় বনবিভাগের কর্মকর্তারা।

ভারতের সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, কাকের অভাব নেই রামেশ্বরমে। সম্প্রতি স্থানীয়রা লক্ষ্য করেন, দুই ব্যক্তি কাকদের উদ্দেশ্যে ভাত ছিটিয়ে দিচ্ছেন। এতে অনেক অনেক কাক এসে তা খাওয়া শুরু করে। এতো কাককে কেন খাওয়াচ্ছেন জিজ্ঞেস করলে ওই দুই ব্যক্তি জানায়, তাদের প্রয়াত স্বজনদের স্মরণে এ কাজটি করছেন তারা। কিন্তু পরে দেখা যায় বেশ কিছু কাক মরে গেছে। তখনই স্থানীয়রা বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানায়।

কাক মরে যাওয়ার পেছনে ওই দুই ব্যক্তির হাত রয়েছে বলে অভিযোগ করেন তারা। অফিসাররা তদন্ত করে দেখেন ভাতের সঙ্গে মেশানো বিষেই কাকগুলোর মৃত্যু হয়েছে। এরপর ওই দুই ব্যক্তির ঘরে গিয়ে তল্লাশি করে ১৫০ মৃত কাক উদ্ধার করেন তারা।

পুলিশি জেরায় তারা স্বীকার করেন, মরে যাওয়া কাকগুলোর মাংস মুরগির মাংসের সঙ্গে মিশিয়ে বিক্রি করছিলেন তারা। রাস্তার কাছে থাকা খাবারের দোকানে ওই মাংস বিক্রি করে যাচ্ছিলেন তারা।

সূত্র: মিড ডে ডট কম, বিহার টাইমস