কৃষিপণ্য রফতানির পথ বন্ধ করে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে ইসরাইলের বাণিজ্য যুদ্ধ
jugantor
কৃষিপণ্য রফতানির পথ বন্ধ করে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে ইসরাইলের বাণিজ্য যুদ্ধ

  যুগান্তর ডেস্ক  

১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:৫৩:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

কৃষিপণ্য রফতানির পথ বন্ধ করে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে ইসরাইলের বাণিজ্য যুদ্ধ
ছবি: সংগৃহীত

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ ঘোষণার কয়েকদিন পরই বহির্বিশ্বে ফিলিস্তিনের কৃষিপণ্য রফতানির পথ বন্ধ করে দিয়েছে ইসরাইল। 

জর্ডানের মধ্য দিয়ে ফিলিস্তিনের কৃষিপণ্য আর রফতানি করতে দেয়া হবে না বলে অবৈধ ইহুদি রাষ্ট্রটির সেনাবাহিনী ঘোষণা দিয়েছে। ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে বাণিজ্য যুদ্ধ শক্তিশালী করার অংশ হিসেবে এ পদক্ষেপ নিয়েছে তারা। 

ফিলিস্তিনের কৃষিমন্ত্রী রিয়াল আল-আত্তারি বলেছেন, এতদিন ফিলিস্তিনিরা জর্ডানের মাধ্যমে তাদের কৃষিপণ্য রফতানি করলেও ইসরাইল এখন তা বন্ধ করে দিয়েছে।

ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ইসরাইলি বাহিনী বিভিন্ন চেকপয়েন্টে বিদেশে রফতানির জন্য যাচ্ছিল এমন জাহাজবোঝাই শাক-সবজি আটকে দিয়েছে। 

ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষের অর্থমন্ত্রী এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে ফিলিস্তিনি কৃষিপণ্যবাহী কয়েকটি ট্রাক জর্ডানে প্রবেশের ক্রসিং থেকে ফিরিয়ে দিয়েছে ইহুদিবাদী সেনারা।  জর্ডানের সঙ্গে পশ্চিম তীরের একটিমাত্র ক্রসিং রয়েছে এবং সেখান থেকে মানুষ ও পণ্য যাতায়াত নিয়ন্ত্রণ করার জন্য ইসরাইলি সেনা মোতায়েন রয়েছে। 

ফিলিস্তিনি যেসব কৃষিপণ্যের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে সেসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে জয়তুনের তেল, খুরমা-খেজুর এবং ওষুধের কাঁচামাল।

এদিকে ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে একতরফাভাবে নিজেদের সার্বভৌমত্ব ঘোষণা নিয়ে ইসরাইলকে সতর্ক করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

ওয়াশিংটনের অনুমতি ব্যতীত পশ্চিম তীরে ইসরাইলের সার্বভৌমত্ব ঘোষণা উচিত হবে না বলে জানিয়েছেন জেরুজালেমে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ডেভিড ফ্রিডম্যান।

রোববার ট্রাম্পের ‘ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি’ প্রসঙ্গ এনে ইসরাইলকে এ সতর্কবার্তা দেন ফ্রিডম্যান।

প্রসঙ্গত, ঐতিহাসিকভাবেই মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি প্রশ্নে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ইসরাইলঘেঁষা। বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার এক বছরের মধ্যে ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বরে জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী স্বীকৃতির ঘোষণা দেন।

এর পর ইসরাইলের সঙ্গে আর কোনো শান্তি আলোচনায় মার্কিন মধ্যস্থতা মানবে না বলে ঘোষণা দেন ফিলিস্তিনিরা।

পরে গত মাসের ২৮ তারিখে হোয়াইট হাউসে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে নিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি পরিকল্পনা প্রকাশ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী, জেরুজালেম হবে ইসরাযইলের অবিচ্ছেদ্য রাজধানী। এছাড়া পশ্চিম তীরের ইহুদি বসতির ওপর ইসরাইলের সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দেয়ার অঙ্গীকার করা হয়।

সূত্র: আল জাজিরা, টাইমস অব ইসরাইল ও পার্স টুডে 

কৃষিপণ্য রফতানির পথ বন্ধ করে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে ইসরাইলের বাণিজ্য যুদ্ধ

 যুগান্তর ডেস্ক 
১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৮:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
কৃষিপণ্য রফতানির পথ বন্ধ করে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে ইসরাইলের বাণিজ্য যুদ্ধ
ছবি: সংগৃহীত

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ ঘোষণার কয়েকদিন পরই বহির্বিশ্বে ফিলিস্তিনের কৃষিপণ্য রফতানির পথ বন্ধ করে দিয়েছে ইসরাইল।

জর্ডানের মধ্য দিয়ে ফিলিস্তিনের কৃষিপণ্য আর রফতানি করতে দেয়া হবে না বলে অবৈধ ইহুদি রাষ্ট্রটির সেনাবাহিনী ঘোষণা দিয়েছে। ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে বাণিজ্য যুদ্ধ শক্তিশালী করার অংশ হিসেবে এ পদক্ষেপ নিয়েছে তারা।

ফিলিস্তিনের কৃষিমন্ত্রী রিয়াল আল-আত্তারি বলেছেন, এতদিন ফিলিস্তিনিরা জর্ডানের মাধ্যমে তাদের কৃষিপণ্য রফতানি করলেও ইসরাইল এখন তা বন্ধ করে দিয়েছে।

ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ইসরাইলি বাহিনী বিভিন্ন চেকপয়েন্টে বিদেশে রফতানির জন্য যাচ্ছিল এমন জাহাজবোঝাই শাক-সবজি আটকে দিয়েছে।

ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষের অর্থমন্ত্রী এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে ফিলিস্তিনি কৃষিপণ্যবাহী কয়েকটি ট্রাক জর্ডানে প্রবেশের ক্রসিং থেকে ফিরিয়ে দিয়েছে ইহুদিবাদী সেনারা। জর্ডানের সঙ্গে পশ্চিম তীরের একটিমাত্র ক্রসিং রয়েছে এবং সেখান থেকে মানুষ ও পণ্য যাতায়াত নিয়ন্ত্রণ করার জন্য ইসরাইলি সেনা মোতায়েন রয়েছে।

ফিলিস্তিনি যেসব কৃষিপণ্যের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে সেসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে জয়তুনের তেল, খুরমা-খেজুর এবং ওষুধের কাঁচামাল।

এদিকে ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে একতরফাভাবে নিজেদের সার্বভৌমত্ব ঘোষণা নিয়ে ইসরাইলকে সতর্ক করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

ওয়াশিংটনের অনুমতি ব্যতীত পশ্চিম তীরে ইসরাইলের সার্বভৌমত্ব ঘোষণা উচিত হবে না বলে জানিয়েছেন জেরুজালেমে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ডেভিড ফ্রিডম্যান।

রোববার ট্রাম্পের ‘ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি’ প্রসঙ্গ এনে ইসরাইলকে এ সতর্কবার্তা দেন ফ্রিডম্যান।

প্রসঙ্গত, ঐতিহাসিকভাবেই মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি প্রশ্নে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ইসরাইলঘেঁষা। বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার এক বছরের মধ্যে ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বরে জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী স্বীকৃতির ঘোষণা দেন।

এর পর ইসরাইলের সঙ্গে আর কোনো শান্তি আলোচনায় মার্কিন মধ্যস্থতা মানবে না বলে ঘোষণা দেন ফিলিস্তিনিরা।

পরে গত মাসের ২৮ তারিখে হোয়াইট হাউসে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে নিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি পরিকল্পনা প্রকাশ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী, জেরুজালেম হবে ইসরাযইলের অবিচ্ছেদ্য রাজধানী। এছাড়া পশ্চিম তীরের ইহুদি বসতির ওপর ইসরাইলের সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দেয়ার অঙ্গীকার করা হয়।

সূত্র: আল জাজিরা, টাইমস অব ইসরাইল ও পার্স টুডে

 

ঘটনাপ্রবাহ : শতাব্দীর সেরা সমঝোতা