বিশাল ইরানি অস্ত্রভাণ্ডার জব্দ করল যুক্তরাষ্ট্র
jugantor
বিশাল ইরানি অস্ত্রভাণ্ডার জব্দ করল যুক্তরাষ্ট্র

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১:৩১:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশাল ইরানি অস্ত্রভাণ্ডার জব্দ করলে যুক্তরাষ্ট্র

দেড়শ ট্যাংকবিধ্বংসী গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র ও তিনটি স্থল থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রসহ ইরানের উৎপাদিত অস্ত্র জব্দ করার কথা জানিয়েছে মার্কিন নৌবাহিনী।

বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র জানায়, রোববার আরব সাগরে একটি ঐতিহ্যবাহী নৌযান ডোয়ায় করে গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র ক্রুজার নোরম্যান্ডি নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।-খবর রয়টার্সের

এতে আরও জানানো হয়, জব্দ করার অস্ত্রের মধ্যে দেড়শটি ট্যাংকবিধ্বংসী গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র (এটিজিএম) দেহলাভিয়াহও জব্দ করা হয়েছে। রুশ করনেট এটিজিএমের অনুকরণে এসব অস্ত্র নির্মিত হয়েছে।

এছাড়াও যেসব অস্ত্র জব্দ করা হয়েছে, তা ইরানি পরিকল্পনায় নির্মাণ করা হয়েছে। যার মধ্যে তিনটি ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রও রয়েছে।

এর আগে গত নভেম্বরেও এমন অস্ত্র ভাণ্ডার জব্দ করা হয়েছিল বলে জানায় মার্কিন সেনাবাহিনী। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের জন্য সরবরাহ করা ইরানি অস্ত্র জব্দ করছে যুক্তরাষ্ট্র।

জাতিসংঘের প্রস্তাব অনুসারে, দেশের বাইরে অস্ত্র সরবরাহ, বিক্রি ও হস্তান্তর করতে পারবে না ইরান। তবে নিরাপত্তা পরিষদের অনুমতি থাকলে সেটা ভিন্ন কথা। এছাড়া ইয়েমেনকে কেন্দ্র করে আরেকটি প্রস্তাবনায় হুতি নেতাদের অস্ত্র সরবরাহেও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

বিদেশি বিশেষজ্ঞ ও ইরান থেকে পাচার করা যন্ত্রাংশ দিয়ে বিশাল অস্ত্রভাণ্ডার গড়ে তুলেছে হুতি বিদ্রোহীরা। আর ইয়েমেনের যুদ্ধকে আঞ্চলিক বৈরী সৌদি আরব ও ইরানের ছায়াযুদ্ধ হিসেবেই দেখা হচ্ছে।

বিশাল ইরানি অস্ত্রভাণ্ডার জব্দ করল যুক্তরাষ্ট্র

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১:৩১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বিশাল ইরানি অস্ত্রভাণ্ডার জব্দ করলে যুক্তরাষ্ট্র
ছবি: মিডল ইস্ট আই

দেড়শ ট্যাংকবিধ্বংসী গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র ও তিনটি স্থল থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রসহ ইরানের উৎপাদিত অস্ত্র জব্দ করার কথা জানিয়েছে মার্কিন নৌবাহিনী। 

বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র জানায়, রোববার আরব সাগরে একটি ঐতিহ্যবাহী নৌযান ডোয়ায় করে গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র ক্রুজার নোরম্যান্ডি নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।-খবর রয়টার্সের

এতে আরও জানানো হয়, জব্দ করার অস্ত্রের মধ্যে দেড়শটি ট্যাংকবিধ্বংসী গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র (এটিজিএম) দেহলাভিয়াহও জব্দ করা হয়েছে। রুশ করনেট এটিজিএমের অনুকরণে এসব অস্ত্র নির্মিত হয়েছে।

এছাড়াও যেসব অস্ত্র জব্দ করা হয়েছে, তা ইরানি পরিকল্পনায় নির্মাণ করা হয়েছে। যার মধ্যে তিনটি ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রও রয়েছে।

এর আগে গত নভেম্বরেও এমন অস্ত্র ভাণ্ডার জব্দ করা হয়েছিল বলে জানায় মার্কিন সেনাবাহিনী। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের জন্য সরবরাহ করা ইরানি অস্ত্র জব্দ করছে যুক্তরাষ্ট্র।

জাতিসংঘের প্রস্তাব অনুসারে, দেশের বাইরে অস্ত্র সরবরাহ, বিক্রি ও হস্তান্তর করতে পারবে না ইরান। তবে নিরাপত্তা পরিষদের অনুমতি থাকলে সেটা ভিন্ন কথা। এছাড়া ইয়েমেনকে কেন্দ্র করে আরেকটি প্রস্তাবনায় হুতি নেতাদের অস্ত্র সরবরাহেও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

বিদেশি বিশেষজ্ঞ ও ইরান থেকে পাচার করা যন্ত্রাংশ দিয়ে বিশাল অস্ত্রভাণ্ডার গড়ে তুলেছে হুতি বিদ্রোহীরা। আর ইয়েমেনের যুদ্ধকে আঞ্চলিক বৈরী সৌদি আরব ও ইরানের ছায়াযুদ্ধ হিসেবেই দেখা হচ্ছে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ইরাকে মার্কিন-ইরান ছায়াযুদ্ধ

আরও খবর