রাজনীতিতে আসছেন? যা জানালেন মুফতিকন্যা

  যুগান্তর ডেস্ক ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২:৪৩:১৮ | অনলাইন সংস্করণ

ছবি: এনডিটিভি

কাশ্মীরিদের কাছে তিনি সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির তরুণ বংশধর হিসেবেই পরিচিত। এতদিন রাজনীতিতেও খুব একটা সরব ছিলেন না। কিন্তু উপত্যকাটির স্বায়ত্তশাসন বাতিলের পর সেখানে নেতৃত্ব সংকট দেখা দিয়েছে, সেই অবস্থার মধ্যে মুফতিকন্যা ইলতিজাকে বেশ সক্রিয়ই দেখা যাচ্ছে।

তবে এখনই রাজনৈতিক মাঠে ঝাঁপ দিতে প্রস্তুত নন বলে অকপটে জানিয়েছেন তিনি। ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

ভারতীয় নারী সাংবাদিক কোর্পসে আলাপকালে তিনি বলেন, আমি একজন ভালো রাজনীতিবিদ হতে পারব, এমনটি কখনই মনে করি না। মা আমাকে বলেছেন– কথাবার্তা যা-ই বলি না কেন, তা যেন বুঝেশুনে বলি। কাজেই আমি এখনও প্রস্তুত না বলেই মনে হচ্ছে।

‘সাক্ষাৎকার দিয়ে আমি একজন রাজনীতিবিদ হতে পারব বলে কখনই মনে করি না,’ জানালেন ইলতিজা।

তিনি জানান, কাশ্মীরিদের ওপর যা হয়েছে, তা বৈধ-অবৈধ নিয়ে কথা বলার সময় এখন নয়। আমরা নিপীড়িত। উপত্যকাটির সর্বত্র ভারতীয় সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। তারা কাশ্মীরিদের নিপীড়ন করছে।

অধিকৃত কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির মেয়ে ইলতিজা বলেছেন, স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা বাতিলের পরেই ভূখণ্ডটিতে অর্থনৈতিক, মানসিক ও আবেগের সংকট তৈরি হয়ে গেছে।

দিল্লিতে মঙ্গলবার তিনি আরও বলেন, অনুচ্ছেদ ৩৭০ ছিল ভারতের সঙ্গে কাশ্মীরিদের একটি আবেগী সংযোগ। কাজেই সেটি বাতিল করার বিশাল খেসারত দিতে হবে। ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

তিনি বলেন, আমি মেহবুবা মুফতির মেয়ে হিসেবেই বলছি না– আমিও একজন যন্ত্রণাক্লিষ্ট কাশ্মীরি। কাজেই উপত্যকাটির স্বায়ত্তশাসন বাতিলের পর সেখানে কী ঘটছে, তা সবই আমরা জানছি।

ইলতিজা বলেন, এই ধরপাকড়ে কাশ্মীরিদের ব্যাপক খেসারত দিতে হয়েছে। সেখানে অর্থনৈতিক, মানসিক ও আবেগের সংকট দেখা দিয়েছে। এই অবস্থার ভেতরেও কাশ্মীরিদের বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য ছড়ানোর অভিযোগ করছে ভারতীয় পুলিশ।

ঘটনাপ্রবাহ : কাশ্মীর সংকট

আরও
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত