ভারতের ২০ লাখ মানুষ রাষ্ট্রহীন হওয়ার ঝুঁকিতে: জাতিসংঘ মহাসচিব
jugantor
ভারতের ২০ লাখ মানুষ রাষ্ট্রহীন হওয়ার ঝুঁকিতে: জাতিসংঘ মহাসচিব

  অনলাইন ডেস্ক  

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২২:১২:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তেনিও গুতেরেস
জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তেনিও গুতেরেস। ছবি: ডন নিউজ।

ভারতের ২০ লাখ মানুষ রাষ্ট্রহীন হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তেনিও গুতেরেস। তিনি দেশটিতে মুসলিমদের বিরুদ্ধে বৈষম্যে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, ভারতীয় পার্লামেন্টে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পাসের মাধ্যমে ২০ লাখ লোকের রাষ্ট্রহীনতা ঝুঁকিতে রয়েছে যাদের মধ্যে অধিকাংশই মুসলিম।    

পাকিস্তানের প্রভাবশালী গণমাধ্যম ডন নিউজকে দেয়া একান্ত বিশেষ সাক্ষাৎকারে তিনি এ সব উদ্বেগ প্রকাশ করেন। 

ভারতে সংখ্যালঘুদের প্রতি ক্রমবর্ধমান বৈষম্য সম্পর্কে ব্যক্তিগতভাবে উদ্বিগ্ন ছিলেন কি-না জানতে চাইলে তিনি অবাক হয়ে বলেন, অবশ্যই! এটি প্রাসঙ্গিক যে, যখনই জাতীয়তার আইন পরিবর্তন করা হয়, রাষ্ট্রহীনতা এ ড়াতে এবং বিশ্বের প্রতিটি নাগরিক যে কোনো একটি দেশের নাগরিক হয় তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করা হয়।

ডন নিউজকে একান্ত সাক্ষাৎকারে জাতিসংঘের প্রধানকে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, হিউম্যান রাইটস ওয়াচসহ গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন এবং নয়াদিল্লিতে প্রকাশিত কাশ্মীর নিয়ে সাম্প্রতিক ঘটনা-সংক্রান্ত প্রতিবেদনগুলো সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, যেমন ভারতীয় সেনাবাহিনী দ্বারা নির্যাতন, যৌন নির্যাতন ও সাত বছরের কম বয়সী শিশুদের কারাবন্দি করে রাখা। 

তিনি বলেন, জাতিসংঘের হাইকমিশনারের দুটিসহ এ সব প্রতিবেদনে কাশ্মীরে ‘ঠিক কী ঘটছে’ তা পরিষ্কার করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে এবং ‘এ প্রতিবেদনগুলো গুরুত্ব সহকারে নেয়া উচিত’।

ভারতের ২০ লাখ মানুষ রাষ্ট্রহীন হওয়ার ঝুঁকিতে: জাতিসংঘ মহাসচিব

 অনলাইন ডেস্ক 
১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তেনিও গুতেরেস
জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তেনিও গুতেরেস। ছবি: ডন নিউজ।

ভারতের ২০ লাখ মানুষ রাষ্ট্রহীন হওয়ার ঝুঁকিতেরয়েছে বলেমন্তব্য করেছেনজাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তেনিও গুতেরেস। তিনি দেশটিতে মুসলিমদের বিরুদ্ধে বৈষম্যে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, ভারতীয় পার্লামেন্টে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পাসের মাধ্যমে ২০ লাখ লোকের রাষ্ট্রহীনতা ঝুঁকিতে রয়েছে যাদের মধ্যে অধিকাংশই মুসলিম।

পাকিস্তানের প্রভাবশালী গণমাধ্যম ডন নিউজকে দেয়া একান্ত বিশেষ সাক্ষাৎকারে তিনি এ সব উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

ভারতে সংখ্যালঘুদের প্রতি ক্রমবর্ধমান বৈষম্য সম্পর্কে ব্যক্তিগতভাবে উদ্বিগ্ন ছিলেন কি-না জানতে চাইলে তিনি অবাক হয়ে বলেন, অবশ্যই! এটি প্রাসঙ্গিক যে, যখনই জাতীয়তার আইন পরিবর্তন করা হয়, রাষ্ট্রহীনতা এ ড়াতে এবং বিশ্বের প্রতিটি নাগরিক যে কোনো একটি দেশের নাগরিক হয় তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করা হয়।

ডন নিউজকে একান্ত সাক্ষাৎকারে জাতিসংঘের প্রধানকে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, হিউম্যান রাইটস ওয়াচসহ গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন এবং নয়াদিল্লিতে প্রকাশিত কাশ্মীর নিয়ে সাম্প্রতিক ঘটনা-সংক্রান্ত প্রতিবেদনগুলো সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, যেমন ভারতীয় সেনাবাহিনী দ্বারা নির্যাতন, যৌন নির্যাতন ও সাত বছরের কম বয়সী শিশুদের কারাবন্দি করে রাখা।

তিনি বলেন, জাতিসংঘের হাইকমিশনারের দুটিসহ এ সব প্রতিবেদনে কাশ্মীরে ‘ঠিক কী ঘটছে’ তা পরিষ্কার করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে এবং ‘এ প্রতিবেদনগুলো গুরুত্ব সহকারে নেয়া উচিত’।

 

ঘটনাপ্রবাহ : কাশ্মীর সংকট

আরও খবর