ক্রাইস্টচার্চের সেই মসজিদে ফের হামলার হুমকি
jugantor
ক্রাইস্টচার্চের সেই মসজিদে ফের হামলার হুমকি

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৫ মার্চ ২০২০, ১৪:৪২:০৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ক্রাইস্টচার্চের সেই মসজিদে ফের হামলার হুমকি
ছবি: গার্ডিয়ান

ক্রাইস্টচার্চ হত্যাযজ্ঞের বছর পার হওয়ার আগেই আল-নূর মসজিদে নতুন করে হামলার হুমকি দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় তদন্তে নেমেছে নিউজিল্যান্ডের পুলিশ।

তারা জানায়, সোমবার সকালে নাগরিকদের কাছ থেকে তারা এ সংক্রান্ত রিপোর্ট পেয়েছেন। গোপন বার্তা আদানপ্রদানের অ্যাপ টেলিগ্রামে এই মসজিদটিতে নতুন করে হামলার হুমকি দেয়া হয়েছে।

মূলত উগ্র ডানপন্থীরা এই অ্যাপটিকে তাদের খবরাখবর প্রচারের প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করে আসছে। পুলিশ জানিয়েছে, এক তরুণ মুখমণ্ডল ও মাথা একটি কালো টুপিতে ঢেকে আল-নুর সমজিদের সামনে একটি গাড়িতে বসে হুমকিসংবলিত একটি ছবি মুঠোফোনের বার্তা আদান-প্রদানের অ্যাপ ছড়িয়েছিলেন। 

গত বছরের ১৫ মার্চের ওই হামলার পর থেকে শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠবাদীরা আরও সাহসী হয়ে উঠেছেন বলে অভিযোগ করেন মুসল্লিরা। আল-নুর ও লিনউড মসজিদে অস্ট্রেলিয়ার এক যুবকের হামলায় ৫১ মুসল্লি নিহত হন।

আধুনিক ইতিহাসে এটাই দেশটিতে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী হামলা।

ক্যান্টবুরি জেলা কমান্ডার সুপারইনটেন্ডেন্ট জন প্রাইস বলেন, হুমকিদাতাকে খুঁজে বের করার ক্ষেত্রে পুলিশ আত্মবিশ্বাসী। টেলিগ্রাম থেকে ওই হুমকি গোপন করে ফেলা হয়েছে। হত্যাযজ্ঞের বছরপূর্তি সামনে রেখে হুমকি ও এমন তৎপরতা বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। কে এই হুমকিদাতা, তা বের করে আনার ক্ষেত্রে আমরা আত্মবিশ্বাসী। কোনো ব্যক্তি কিংবা গোষ্ঠীকে ক্ষতি কিংবা হুমকি দেয়ার অধিকার কারো নেই। আমাদের নিউজিল্যান্ডের সংস্কৃতির সঙ্গে তা যায় না। এখানে চিত্রসংবলিত হুমকির কোনো জায়গা নেই।

ক্রাইস্টচার্চের সেই মসজিদে ফের হামলার হুমকি

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৫ মার্চ ২০২০, ০২:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ক্রাইস্টচার্চের সেই মসজিদে ফের হামলার হুমকি
ছবি: গার্ডিয়ান

ক্রাইস্টচার্চ হত্যাযজ্ঞের বছর পার হওয়ার আগেই আল-নূর মসজিদে নতুন করে হামলার হুমকি দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় তদন্তে নেমেছে নিউজিল্যান্ডের পুলিশ।

তারা জানায়, সোমবার সকালে নাগরিকদের কাছ থেকে তারা এ সংক্রান্ত রিপোর্ট পেয়েছেন। গোপন বার্তা আদানপ্রদানের অ্যাপ টেলিগ্রামে এই মসজিদটিতে নতুন করে হামলার হুমকি দেয়া হয়েছে।

মূলত উগ্র ডানপন্থীরা এই অ্যাপটিকে তাদের খবরাখবর প্রচারের প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করে আসছে। পুলিশ জানিয়েছে, এক তরুণ মুখমণ্ডল ও মাথা একটি কালো টুপিতে ঢেকে আল-নুর সমজিদের সামনে একটি গাড়িতে বসে হুমকিসংবলিত একটি ছবি মুঠোফোনের বার্তা আদান-প্রদানের অ্যাপ ছড়িয়েছিলেন।

গত বছরের ১৫ মার্চের ওই হামলার পর থেকে শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠবাদীরা আরও সাহসী হয়ে উঠেছেন বলে অভিযোগ করেন মুসল্লিরা। আল-নুর ও লিনউড মসজিদে অস্ট্রেলিয়ার এক যুবকের হামলায় ৫১ মুসল্লি নিহত হন।

আধুনিক ইতিহাসে এটাই দেশটিতে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী হামলা।

ক্যান্টবুরি জেলা কমান্ডার সুপারইনটেন্ডেন্ট জন প্রাইস বলেন, হুমকিদাতাকে খুঁজে বের করার ক্ষেত্রে পুলিশ আত্মবিশ্বাসী। টেলিগ্রাম থেকে ওই হুমকি গোপন করে ফেলা হয়েছে। হত্যাযজ্ঞের বছরপূর্তি সামনে রেখে হুমকি ও এমন তৎপরতা বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। কে এই হুমকিদাতা, তা বের করে আনার ক্ষেত্রে আমরা আত্মবিশ্বাসী। কোনো ব্যক্তি কিংবা গোষ্ঠীকে ক্ষতি কিংবা হুমকি দেয়ার অধিকার কারো নেই। আমাদের নিউজিল্যান্ডের সংস্কৃতির সঙ্গে তা যায় না। এখানে চিত্রসংবলিত হুমকির কোনো জায়গা নেই।

 

ঘটনাপ্রবাহ : নিউজিল্যান্ডে মসজিদে এলোপাতাড়ি গুলি