ইতালি এখন ভুতুরে শহরের দেশ
jugantor
ইতালি এখন ভুতুরে শহরের দেশ

  জমির হোসেন, ইতালি থেকে  

১২ মার্চ ২০২০, ১৯:৩৫:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

ইতালিতে করোনাভাইরাসের কড়াল গ্রাস থেকে নিস্তার পেতে ইতালি সরকার একের পর এক পদক্ষেপ অব্যাহত রেখেছে। ইতালির উত্তরাঞ্চল করোনা মহামারী আকার ধারণ করে।

এরপর লম্বারদিয়া অঞ্চলসহ ১৪ প্রদেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়। অবস্থা যখন উন্নতির দিকে যাচ্ছিলনা, ঠিক এক সপ্তাহের মধ্যে গোটা ইতালিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কোন্তি।

ইতালিতে আকষ্মিকভাবে একদিনে ১৯৬ জনের প্রাণহানি হয়। রোগীর সংখ্যা আশংকাজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী কোন্তি ১১ মার্চ জাতির উদ্দেশ্য ভাষণ দেন।

তিনি করোনা পরিস্থিতি তুলে ধরে করোনা মোকাবিলা ঠেকাতে সমগ্র ইতালি ২৫ মার্চ দুই সপ্তাহের জন্য অফিস, আদালত সবধরণের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার ঘোষণা দেন।

বিশেষ ব্যবস্থায় খোলা থাকবে সবধরনের সুপারমার্কেট, ফার্মেসী, ব্যাংক, পোষ্ট অফিস,সংবাদপত্র বিক্রয়,পেট্রোল পাম্প, কম্পিউটার শপ, ষ্টেশনারী দোকান, হোম ডেলিভারী খাবার ইত্যাদি।

এর আগের ঘোষণায় বার,রেস্টুরেন্ট সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলার নিয়ম থাকলে আজ বৃহস্পতিবার থেকে সব বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন সরকার।

কেউ এই নির্দেশ অমান্য করলে ২৬০ ইউরো জরিমানা ও তিন মাসের জেল দেয়ার বিধান রাখা হয়।

করোনা ঠেকাতে সরকারের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। করোনাভাইরাসের কারণে গোটা ইতালি এখন কোলাহল মুক্ত, জনশুন্য দেশে পরিণত হয়েছে। ইতালির পুরো রাস্তা এখন ফাঁকা ফলে ইতালি প্রতিটি শহর ভুতুড়ে পরিবেশে পরিণত হয়েছে। যা ইতালির জনগনের জন্য একটি রেকর্ড।

শহরের রাস্তায় রাস্তায় থাকছে প্রশাসনের কড়া নিরাপত্তা। পাশাপাশি মাইকিং করে ঘর থেকে বাইরে যেতে জনগণকে নিষেধ করা হচ্ছে।

ইতালি এখন ভুতুরে শহরের দেশ

 জমির হোসেন, ইতালি থেকে 
১২ মার্চ ২০২০, ০৭:৩৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইতালিতে করোনাভাইরাসের কড়াল গ্রাস থেকে নিস্তার পেতে ইতালি সরকার একের পর এক পদক্ষেপ অব্যাহত রেখেছে। ইতালির উত্তরাঞ্চল করোনা মহামারী আকার ধারণ করে।

এরপর লম্বারদিয়া অঞ্চলসহ ১৪ প্রদেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়। অবস্থা যখন উন্নতির দিকে যাচ্ছিলনা, ঠিক এক সপ্তাহের মধ্যে গোটা ইতালিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কোন্তি।

ইতালিতে আকষ্মিকভাবে একদিনে ১৯৬ জনের প্রাণহানি হয়। রোগীর সংখ্যা আশংকাজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী কোন্তি ১১ মার্চ জাতির উদ্দেশ্য ভাষণ দেন।

তিনি করোনা পরিস্থিতি তুলে ধরে করোনা মোকাবিলা ঠেকাতে সমগ্র ইতালি ২৫ মার্চ দুই সপ্তাহের জন্য অফিস, আদালত সবধরণের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার ঘোষণা দেন।

বিশেষ ব্যবস্থায় খোলা থাকবে সবধরনের সুপারমার্কেট, ফার্মেসী, ব্যাংক, পোষ্ট অফিস,সংবাদপত্র বিক্রয়,পেট্রোল পাম্প, কম্পিউটার শপ, ষ্টেশনারী দোকান, হোম ডেলিভারী খাবার ইত্যাদি।

এর আগের ঘোষণায় বার,রেস্টুরেন্ট সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলার নিয়ম থাকলে আজ বৃহস্পতিবার থেকে সব বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন সরকার।

কেউ এই নির্দেশ অমান্য করলে ২৬০ ইউরো জরিমানা ও তিন মাসের জেল দেয়ার বিধান রাখা হয়।

করোনা ঠেকাতে সরকারের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। করোনাভাইরাসের কারণে গোটা ইতালি এখন কোলাহল মুক্ত, জনশুন্য দেশে পরিণত হয়েছে। ইতালির পুরো রাস্তা এখন ফাঁকা ফলে ইতালি প্রতিটি শহর ভুতুড়ে পরিবেশে পরিণত হয়েছে। যা ইতালির জনগনের জন্য একটি রেকর্ড।

শহরের রাস্তায় রাস্তায় থাকছে প্রশাসনের কড়া নিরাপত্তা। পাশাপাশি মাইকিং করে ঘর থেকে বাইরে যেতে জনগণকে নিষেধ করা হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন