পেছানো হল মধ্য এশিয়ার সবচেয়ে বড় মসজিদের উদ্বোধন
jugantor
পেছানো হল মধ্য এশিয়ার সবচেয়ে বড় মসজিদের উদ্বোধন

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৩ মার্চ ২০২০, ০১:১৯:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

উদ্বোধন

করোনাভাইরাস থেকে আত্মরক্ষার জন্য নেয়া পদক্ষেপের কারণে বিলম্বিত হচ্ছে মধ্য এশিয়ার সবচেয়ে বড় মসজিদটির উদ্বোধন।

বৃহস্পতিবার দক্ষিণ-পূর্ব মধ্য এশিয়ার দেশ তাজিকিস্তানের রাজধানী দুশানবের মসজিদটি দেশটির রাষ্ট্রপতি ইমাম আলী রহমানের অংশগ্রহণে উদ্বোধন করার কথা ছিল।

তাজিকিস্তানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কাবার এজেন্সি জানিয়েছে, করোনাভাইরাস থেকে আত্মরক্ষার জন্য দেশটির নেয়া পদক্ষেপের অংশ হিসেবে মসজিদটির উদ্বোধন পেছানো হয়েছে।

জানা যায়, মসজিদটির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা উপস্থিত থাকার কথা ছিল। তাজিকিস্তানের রাষ্ট্রপতি, ইমাম আলী রহমান ২০০৯ সালে মসজিদটির ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেছিলেন।

জানা যায়, হানাফি মাজহাবের ইমাম, ইমাম আবু হানিফার (রহ.) ১৩১০ তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষ্যে এই মসজিদটি নির্মাণ করা হয়। এর নাম রাখা হয় ‘খুড়োসন মসজিদ’।

২০১১ সালের অক্টোবরে মসজিদটির নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল এবং প্রায় ৯ বছর পর তা সম্পন্ন হয়। প্রকল্পটির ব্যয় প্রায় ১০০ মিলিয়ন ডলার। তাজিকিস্তান সরকার ৩০ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ দিয়েছে এবং বাকি অর্থ কাতার সরকার অর্থায়ন করে।

মসজিদটি ১২ হেক্টর জমির উপর অবস্থিত এবং এতে একটি গ্রন্থাগার, জাদুঘর, কনফারেন্স হল, প্রশাসনিক ভবন, ডাইনিং রুম, ৪ হাজার গাড়ি পার্কিংয়ের জায়গা, ৭৫ মিটার উচ্চতার চারটি মিনার, ৪৭ মিটার উচ্চু মূল গম্বুজসহ আরও ২০ টি বড় ও ছোট গম্বুজ রয়েছে।

দুশানবের মসজিদটি দেশের অন্যতম চিত্তাকর্ষক স্থাপত্য কাঠামো, পাশাপাশি স্বাধীনতার পর তাজিকিস্তানে নির্মিত বৃহত্তম ধর্মীয় স্থান।

কাবার এজেন্সি আরবি অবলম্বনে- মুহাম্মাদ শোয়াইব

পেছানো হল মধ্য এশিয়ার সবচেয়ে বড় মসজিদের উদ্বোধন

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৩ মার্চ ২০২০, ০১:১৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
উদ্বোধন
ছবি: কাবার এজেন্সি

করোনাভাইরাস থেকে আত্মরক্ষার জন্য নেয়া পদক্ষেপের কারণে বিলম্বিত হচ্ছে মধ্য এশিয়ার সবচেয়ে বড় মসজিদটির উদ্বোধন। 

বৃহস্পতিবার দক্ষিণ-পূর্ব মধ্য এশিয়ার দেশ তাজিকিস্তানের রাজধানী দুশানবের মসজিদটি দেশটির রাষ্ট্রপতি ইমাম আলী রহমানের অংশগ্রহণে উদ্বোধন করার কথা ছিল। 

তাজিকিস্তানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কাবার এজেন্সি জানিয়েছে, করোনাভাইরাস থেকে আত্মরক্ষার জন্য দেশটির নেয়া পদক্ষেপের অংশ হিসেবে মসজিদটির উদ্বোধন পেছানো হয়েছে। 

জানা যায়, মসজিদটির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা উপস্থিত থাকার কথা ছিল। তাজিকিস্তানের রাষ্ট্রপতি, ইমাম আলী রহমান ২০০৯ সালে মসজিদটির ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেছিলেন। 

জানা যায়, হানাফি মাজহাবের ইমাম, ইমাম আবু হানিফার (রহ.) ১৩১০ তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষ্যে এই মসজিদটি নির্মাণ করা হয়। এর নাম রাখা হয় ‘খুড়োসন মসজিদ’। 

২০১১ সালের অক্টোবরে মসজিদটির নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল এবং প্রায় ৯ বছর পর তা সম্পন্ন হয়। প্রকল্পটির ব্যয় প্রায় ১০০ মিলিয়ন ডলার। তাজিকিস্তান সরকার ৩০ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ দিয়েছে এবং বাকি অর্থ কাতার সরকার অর্থায়ন করে।

মসজিদটি ১২ হেক্টর জমির উপর অবস্থিত এবং এতে একটি গ্রন্থাগার, জাদুঘর, কনফারেন্স হল, প্রশাসনিক ভবন, ডাইনিং রুম, ৪ হাজার গাড়ি পার্কিংয়ের জায়গা, ৭৫ মিটার উচ্চতার চারটি মিনার, ৪৭ মিটার উচ্চু মূল গম্বুজসহ আরও ২০ টি বড় ও ছোট গম্বুজ রয়েছে।

দুশানবের মসজিদটি দেশের অন্যতম চিত্তাকর্ষক স্থাপত্য কাঠামো, পাশাপাশি স্বাধীনতার পর তাজিকিস্তানে নির্মিত বৃহত্তম ধর্মীয় স্থান।

কাবার এজেন্সি আরবি অবলম্বনে- মুহাম্মাদ শোয়াইব

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন