ইরানে আটকা পড়া ভারতীয়দের ক্ষোভ হতাশা

  যুগান্তর ডেস্ক ১৪ মার্চ ২০২০, ১২:২৭ | অনলাইন সংস্করণ

ইরানে আটকা পড়া ভারতীয়দের ক্ষোভ হতাশা
ছবি: সংগৃহীত

তেহরানে ভারতীয় দূতাবাসের বাইরে গত দুই সপ্তাহ ধরে তাবু গেড়ে অবস্থান করছেন কেইভান শাহ। অপেক্ষা করছেন, তিনিসহ আরও কয়েক হাজার ভারতীয়কে কবে তার সরকার দেশে নিয়ে যাবে।

চীনের মূল ভূখণ্ডের বাইরে প্রাণঘাতী কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যেই অন্যতম ইরান। ছয় হাজারের বেশি ভারতীয় বর্তমানে দেশটিতে আটকা আছেন।

কাজেই নিজ দেশে ফেরত নেয়ার দাবিতে কেইভান শাহের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন তাদের অনেকেই। করোনাভাইরাসে ইরানে পাঁচ শতাধিক লোকের মৃত্যু হয়েছে। যাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তাও রয়েছেন।- খবর আরব নিউজের

মুম্বাইয়ে শুকনা ফলের ব্যবসা করেন কেইভিন শাহ। তিনি বলেন, গত ২০ দিন ধরে আমি ইরানে আটকা রয়েছি। ২ মার্চ থেকে তেহরানে ভারতীয় দূতাবাসে যাতায়াত করছি। ভারতে যেতে তাদের কাছে সহায়তা চেয়েছি। কিন্তু এ যাবত কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

‘তারা আমাকে সবুর করতে বলেন। বললেন, ইমেইলের মাধ্যমে যোগাযোগ করা কঠিন হয়ে পড়েছে।’

একটি ব্যবসায়িক সফরে তিনি ইরানে যান। তখন ভারত সরকার ফ্লাইট বাতিল ও করোনাভাইরাস-আক্রান্ত দেশগুলো থেকে প্রবেশে কড়া বিধিনিষেধ আরোপ করে।

শাহ বলেন, আমার বাবা-মা একজন জ্যেষ্ঠ নাগরিক। তাদের করোনাভাইরাস আক্রান্ত দেশগুলোর বাইরে রাখা দরকার। কিন্তু ভারত সরকার আমাদের প্রতি কোনো খেয়াল রাখছে না।

দূতাবাসের সামনে প্রতিবাদ চালিয়ে যাচ্ছিলেন বিষ্ণু ও ধিরাজ। নয়াদিল্লির ধীরগতির পদক্ষেপে তারাও নাখোশ।

বিষ্ণু বলেন, সরকার আমাদের সঙ্গে যেভাবে ব্যবহার করছে, তাতে মনে হচ্ছে আমরা ভারতীয় কেউ না। ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী শুভ্রাহ্মণ্যম জয়শঙ্কর পার্লামেন্টে বলেন, ইরানে ভারতীয়দের নমুনা পরীক্ষা করছেন একদল স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। তাদের ফিরিয়ে আনতে সীমিত সংখ্যক বাণিজ্য ফ্লাইটের ব্যবস্থা করা হবে শিগগিরই।

তিনি বলেন, আগামী ৭ মার্চ ১০৮ জনের নমুনা গ্রহণ করা হবে। পরবর্তী সময়ে ৫৮ ভারতীয় তীর্থযাত্রী, যাদের কোভিড-১৯ ভাইরাস পজেটিভ হয়েছে, তাদের ফিরিয়ে আনা হবে।

কিন্তু প্রতিবাদকারীদের দাবি, এই নমুনা সংগ্রহের প্রক্রিয়া খুবই ধীর। এভাবে চললে তাদের দেশে নিয়ে যেতে অন্তত একমাস সময় লাগবে।

শাহ বলেন, আমরা খুবই হতাশ। কেন নয়াদিল্লি প্রথমেই আমাদের ফেরত নেয়নি? চীন থেকে নাগরিকদের ফেরত নিয়ে যেভাবে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে, আমাদের ক্ষেত্রেও সেটা করা হয়নি কেন?

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও

'কোভিড-১৯' সর্বশেষ আপডেট

# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ৪৮ ১৫
বিশ্ব ৬,৫০,৫৬৭১,৩৯,৫৫২৩০,২৯৯
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

 
×