দক্ষিণ আফ্রিকায় লকডাউন শিথিলের ঘোষণা
jugantor
দক্ষিণ আফ্রিকায় লকডাউন শিথিলের ঘোষণা

  শওকত বিন আশরাফ, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে  

১৯ মে ২০২০, ২১:৫৩:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ

দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ার পরও সরকার লকডাউন শিথিল করার ঘোষণা দিয়েছে। গত দুই মাস ধরে দেশটিতে লকডাউনের ৫ম ও ৪র্থ স্তর চলে আসলেও চলতি সপ্তাহে লকডাউন ৩য় স্তরে নামিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছে সরকারের করোনা কমান্ড কাউন্সিল। এতে করে সংক্রমণের ঝুঁকি আরও বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা করেছেন দেশটির বিশেষজ্ঞরা।

অর্থনীতির চাকা গতিশীল রাখতে লকডাউন শিথিল করলে দেশটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ভয়াবহ আকার ধারণ করবে এমন মন্তব্য করেছেন কেপটাউন ইউনিভার্সিটির মেডিসিন ডিপার্টমেন্টের ভাইরোলজিষ্ট গবেষক প্রফেসর ডা. কুইন্টিন এডহাসন।

তিনি লকডাউন আইন শিথিল না করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করতে সরকারের নিকট আহ্বান জানিয়ে বলেন, এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসের একমাত্র চিকিৎসা হচ্ছে সম্পূর্ণ লকডাউনে থাকা এবং ঘরে অবস্থান করা।

দক্ষিণ আফ্রিকায় বর্তমানে সবচেয়ে বেশি করোনা সংক্রমিত হচ্ছে ওয়েস্টার্ন কেপ (কেপটাউন) প্রদেশ। যেখানে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯২৯৪ জন। যা শতকরা হিসাবে গোটা দেশের ৫৯.৯শতাংশ। আর মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪৯ জনে।

উল্লেখ্য, কেপটাউনে দুজন বাংলাদেশি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন যার মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে এবং অন্যজন চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

দক্ষিণ আফ্রিকায় লকডাউন শিথিলের ঘোষণা

 শওকত বিন আশরাফ, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে 
১৯ মে ২০২০, ০৯:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ার পরও সরকার লকডাউন শিথিল করার ঘোষণা দিয়েছে। গত দুই মাস ধরে দেশটিতে লকডাউনের ৫ম ও ৪র্থ স্তর চলে আসলেও চলতি সপ্তাহে লকডাউন ৩য় স্তরে নামিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছে সরকারের করোনা কমান্ড কাউন্সিল। এতে করে সংক্রমণের ঝুঁকি আরও বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা করেছেন দেশটির বিশেষজ্ঞরা।

অর্থনীতির চাকা গতিশীল রাখতে লকডাউন শিথিল করলে দেশটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ভয়াবহ আকার ধারণ করবে এমন মন্তব্য করেছেন কেপটাউন ইউনিভার্সিটির মেডিসিন ডিপার্টমেন্টের ভাইরোলজিষ্ট গবেষক প্রফেসর ডা. কুইন্টিন এডহাসন।

তিনি লকডাউন আইন শিথিল না করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করতে সরকারের নিকট আহ্বান জানিয়ে বলেন, এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসের একমাত্র চিকিৎসা হচ্ছে সম্পূর্ণ লকডাউনে থাকা এবং ঘরে অবস্থান করা।

দক্ষিণ আফ্রিকায় বর্তমানে সবচেয়ে বেশি করোনা সংক্রমিত হচ্ছে ওয়েস্টার্ন কেপ (কেপটাউন) প্রদেশ। যেখানে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯২৯৪ জন। যা শতকরা হিসাবে গোটা দেশের ৫৯.৯শতাংশ। আর মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪৯ জনে।

উল্লেখ্য, কেপটাউনে দুজন বাংলাদেশি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন যার মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে এবং অন্যজন চিকিৎসাধীন রয়েছেন।