সোশ্যাল আইসোলেশানে অভিবাসী, শরণার্থী ও স্থানীয়দের সংযুক্ত করেছে স্পিক

  মো. রাসেল আহম্মেদ, পর্তুগাল থেকে ০১ জুন ২০২০, ২২:৫১:২৫ | অনলাইন সংস্করণ

করোনাভাইরাস মহামারীতে সোশ্যাল আইসোলেশান বা সামজিক দূরত্ব বর্তমান সময়ের বড় একটি চ্যালেঞ্জ। বিশেষ করে বয়স্ক মানুষ, অভিবাসী ও শরণার্থীদের জন্য।

সামাজিক দূরত্বের এ বাঁধাকে অতিক্রম করতে সামাজিক উদ্যোগ ‘স্পিক’ তাদের সব কার্যক্রম দু’মাস আগে অনলাইনে রূপান্তর করে।
ভাষা এবং সাংস্কৃতিক আদান-প্রদানের এ উদ্যোগ সম্পূর্ণ বিনামূল্যে পাচ্ছে সমাজের সব স্তরের মানুষজন। দু’মাসে ‘স্পিক’র মাধ্যমে বিশ্বজুড়ে ৬ হাজার মানুষ ভাষা ও সাংস্কৃতিক আদান-প্রদান করেছে যা এ সময়ে সামজিক দূরত্বের বাঁধা দূরীকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।

এ সময় বিশ্বের ২৫টি ভাষা একে অপরের সঙ্গে আদান-প্রদান করা হয়েছে যার মধ্যে যেমন ছিল বহুল প্রচলিত ইংরেজি ও স্প্যানিশ ভাষা তেমনি তুলনামূলক কম প্রচলিত মারাঠি ভাষাও।
শুধুমাত্র ঢাকাতে ১০টির বেশি ভাষা শিক্ষা কোর্স অনলাইনে পরিচালিত হয়েছে যেখানে একশোর বেশি শিক্ষার্থী বিনা খরচে অংশগ্রহণ করেছে বিভিন্ন ভাষা শিখতে এবং অন্যের সঙ্গে নিজের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করতে।

স্পিকের এ পদ্ধতির একটি কার্যকরি দিক ছিল, বিগত কয়েক মাসে এই ধারনার মাধ্যমে গ্রিস, ইতালি, পর্তুগাল, স্পেন, সিরিয়া, এবং যুক্তরাজ্যের প্রায় তিনশ শরনার্থী এই কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে এবং বিভিন্ন ভাষা শিক্ষার সুযোগ পায়।
ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি ইউরোপ, আমেরিকা, ইংল্যান্ড এবং আফ্রিকার একটি দেশসহ বিশ্বব্যাপী ১১ টি দেশের ২৪ টি শহরে কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত