প্রবাসীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন কুয়েতের মানবাধিকারকর্মী উম্মে ইশা 
jugantor
প্রবাসীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন কুয়েতের মানবাধিকারকর্মী উম্মে ইশা 

  সাদেক রিপন, কুয়েত থেকে  

১২ জুলাই ২০২০, ১০:৩৭:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

মহামারী করোনার থাবায় অচল অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে গোটা বিশ্বেই। কাজ হারিয়ে অর্থকষ্ট ও খাদ্যসংকটে পড়েছেন প্রবাসীরা।


প্রবাসীদের এমন বিপদের সময়ে কুয়েতের বিভিন্ন দাতব্য সংস্থা ও রিলিফ ফান্ড থেকে সহযোগিতা করা হয়েছে।


কুয়েতের নারী মানবাধিকারকর্মী উম্মে ইশা মানবতার সেবা ও কল্যাণে ২০১৪ সালে প্রতিষ্ঠা করেন হিউম্যানিটারিয়ান রিলিফ সোসাইটি।


এ সংগঠনের স্লোগান হলো– উই অল লাভ ইউ (আমরা সবাই তোমায় ভালোবাসি)। সংগঠনটির কুয়েতে দুস্থ অসহায় মানুষের সহযোগিতা ও কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে।


দেশে যে কোনো আপৎকালীন সরকারের সঙ্গে কাজ করে থাকে সংগঠনটি। করেছে কুয়েতের বিভিন্ন অঞ্চলের প্রবাসীর মধ্যে করোনাকালীন ও রমজান মাসে প্রায় ১৫ হাজার প্রবাসীকে তৈরি করা খাবার বিতরণ করেছে এ সংগঠন।


এ ছাড়া এক হাজারেরও বেশি প্রবাসীকে ত্রাণ সহায়তা দেয়া হয়েছে। তৈরি করা খাবার ও ত্রাণ বিতরণের কাজের সার্বিক সহযোগিতায় কাজ করেছেন বাংলাদেশি কয়েকজন যুবক, তাদের মধ্যে একজন ইমরান খান।


তিনি বলেন, কুয়েতে মাহবুল্লাহ, জিলিব আল সুয়েখ, ফাহাহিল ও সোলবিয়াসহ বাংলাদেশি অধ্যুষিত এলাকার অসহায় দুস্থ প্রবাসীদের মধ্যে হিউম্যানিটারিয়ান রিলিফ সোসাইটির ত্রাণ বিতরণ করেছি।


মানবাধিকারকর্মী উম্মে ইশা বাংলাদেশিদের প্রতি যথেষ্ট আন্তরিক, আমরা তাকে বাংলাদেশিদের সমস্যার কথা জানালে উনি সাধ্যমতো সহযোগিতা করেন।


হিউম্যানিটারিয়ান রিলিফ সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা উম্মে ইশা বলেন, আমি যেটুকু সহযোগিতা করি, আমি মনে করি সেটি যথেষ্ঠ নয়। রিজিকের মালিক আল্লাহ, মহান আল্লাহ বলেছেন– তোমরা দুস্থ ও অসহায়দের দান করো, আমি তোমাদের সম্পদ আরও বাড়িয়ে দেব।

কুয়েতি, বাঙালি, হিন্দুস্তানি– সবাই সমান। সবাই একই মানুষ। সব মুসলমান একে অন্যের ভাই। এ কারণে একজনের বিপদে আরেকজনের পাশে দাঁড়াতে হয়।

প্রবাসীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন কুয়েতের মানবাধিকারকর্মী উম্মে ইশা 

 সাদেক রিপন, কুয়েত থেকে 
১২ জুলাই ২০২০, ১০:৩৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মহামারী করোনার থাবায় অচল অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে গোটা বিশ্বেই। কাজ হারিয়ে অর্থকষ্ট ও খাদ্যসংকটে পড়েছেন প্রবাসীরা। 


প্রবাসীদের এমন বিপদের সময়ে কুয়েতের বিভিন্ন দাতব্য সংস্থা ও রিলিফ ফান্ড থেকে সহযোগিতা করা হয়েছে। 


কুয়েতের নারী মানবাধিকারকর্মী উম্মে ইশা মানবতার সেবা ও কল্যাণে ২০১৪ সালে প্রতিষ্ঠা করেন হিউম্যানিটারিয়ান রিলিফ সোসাইটি। 


এ সংগঠনের স্লোগান হলো– উই অল লাভ ইউ (আমরা সবাই তোমায় ভালোবাসি)। সংগঠনটির কুয়েতে দুস্থ অসহায় মানুষের সহযোগিতা ও কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। 


দেশে যে কোনো আপৎকালীন সরকারের সঙ্গে কাজ করে থাকে সংগঠনটি। করেছে কুয়েতের বিভিন্ন অঞ্চলের প্রবাসীর মধ্যে করোনাকালীন ও রমজান মাসে প্রায় ১৫ হাজার প্রবাসীকে তৈরি করা খাবার বিতরণ করেছে এ সংগঠন।


এ ছাড়া এক হাজারেরও বেশি প্রবাসীকে ত্রাণ সহায়তা দেয়া হয়েছে। তৈরি করা খাবার ও ত্রাণ বিতরণের কাজের সার্বিক সহযোগিতায় কাজ করেছেন বাংলাদেশি কয়েকজন যুবক, তাদের মধ্যে একজন ইমরান খান।


তিনি বলেন, কুয়েতে মাহবুল্লাহ, জিলিব আল সুয়েখ, ফাহাহিল ও সোলবিয়াসহ বাংলাদেশি অধ্যুষিত এলাকার অসহায় দুস্থ প্রবাসীদের মধ্যে হিউম্যানিটারিয়ান রিলিফ সোসাইটির ত্রাণ বিতরণ করেছি। 


মানবাধিকারকর্মী উম্মে ইশা বাংলাদেশিদের প্রতি যথেষ্ট আন্তরিক, আমরা তাকে বাংলাদেশিদের সমস্যার কথা জানালে উনি সাধ্যমতো সহযোগিতা করেন। 


হিউম্যানিটারিয়ান রিলিফ সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা উম্মে ইশা বলেন, আমি যেটুকু সহযোগিতা করি, আমি মনে করি সেটি যথেষ্ঠ নয়। রিজিকের মালিক আল্লাহ, মহান আল্লাহ বলেছেন– তোমরা দুস্থ ও অসহায়দের দান করো, আমি তোমাদের সম্পদ আরও বাড়িয়ে দেব। 

কুয়েতি, বাঙালি, হিন্দুস্তানি– সবাই সমান। সবাই একই মানুষ। সব মুসলমান একে অন্যের ভাই। এ কারণে একজনের বিপদে আরেকজনের পাশে দাঁড়াতে হয়।