সিরিয়ায় তুর্কি সীমান্তের কাছে বোমা হামলায় নিহত ৮
jugantor
সিরিয়ায় তুর্কি সীমান্তের কাছে বোমা হামলায় নিহত ৮

  অনলাইন ডেস্ক  

২৭ জুলাই ২০২০, ১৪:৩৮:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় হাসাকা প্রদেশের কৌশলগত রাস আল আইন শহরে গাড়িবোমা হামলায় নারী ও শিশুসহ আটজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১৫ জন।

কুর্দি পিপলস প্রটেকশন ইউনিট বা ওয়াইপিজির বিরুদ্ধে গত বছরের অক্টোবরে সামরিক অভিযান চালানোর সময় তুর্কি বাহিনী ও তাদের সমর্থিত সিরীয় গেরিলারা শহরটি দখল করে নেন।

সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সানা জানিয়েছে, রোববার রাস আল আইন শহরের একটি বাজারের কাছে বোমা হামলাটি বিস্ফোরিত হয়। হামলায় আহতদের বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এর আগে গত ৫ জুন একই শহরের এ জায়গায় আরেকটি বোমা হামলা হয়েছিল, যাতে দুটি শিশু নিহত হয়।

তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় তাদের অফিসিয়াল টুইটার পেজে দেয়া এক পোস্টে হামলার জন্য ওয়াইপিজি গেরিলাদের দায়ী করেছে।

দীর্ঘদিন ধরে হুমকি দেয়ার পর গত বছরের ৯ অক্টোবর তুরস্কের সামরিক বাহিনী ও তুর্কি সমর্থিত গেরিলারা সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বিরাট এলাকাজুড়ে অভিযান শুরু করে।

ওয়াইপিজি গেরিলাদের সীমান্ত থেকে সিরিয়ার খেতরে পিছু হটানোর নামে এ অভিযান চালানো হয়। ওয়াইপিজি গেরিলাদের তুরস্ক শত্রু হিসেবে বিবেচনা করে।

সিরিয়ায় তুর্কি সীমান্তের কাছে বোমা হামলায় নিহত ৮

 অনলাইন ডেস্ক 
২৭ জুলাই ২০২০, ০২:৩৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় হাসাকা প্রদেশের কৌশলগত রাস আল আইন শহরে গাড়িবোমা হামলায় নারী ও শিশুসহ আটজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১৫ জন।

কুর্দি পিপলস প্রটেকশন ইউনিট বা ওয়াইপিজির বিরুদ্ধে গত বছরের অক্টোবরে সামরিক অভিযান চালানোর সময় তুর্কি বাহিনী ও তাদের সমর্থিত সিরীয় গেরিলারা শহরটি দখল করে নেন।  

সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সানা জানিয়েছে, রোববার রাস আল আইন শহরের একটি বাজারের কাছে বোমা হামলাটি বিস্ফোরিত হয়। হামলায় আহতদের বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এর আগে গত ৫ জুন একই শহরের এ জায়গায় আরেকটি বোমা হামলা হয়েছিল, যাতে দুটি শিশু নিহত হয়।

তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় তাদের অফিসিয়াল টুইটার পেজে দেয়া এক পোস্টে হামলার জন্য ওয়াইপিজি গেরিলাদের দায়ী করেছে।  

দীর্ঘদিন ধরে হুমকি দেয়ার পর গত বছরের ৯ অক্টোবর তুরস্কের সামরিক বাহিনী ও তুর্কি সমর্থিত গেরিলারা সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বিরাট এলাকাজুড়ে অভিযান শুরু করে।

ওয়াইপিজি গেরিলাদের সীমান্ত থেকে সিরিয়ার খেতরে পিছু হটানোর নামে এ অভিযান চালানো হয়। ওয়াইপিজি গেরিলাদের তুরস্ক শত্রু হিসেবে বিবেচনা করে।