৩৩ বছর ধরে দশম শ্রেণিতে ফেল করছিলেন, করোনায় হলো রক্ষা
jugantor
৩৩ বছর ধরে দশম শ্রেণিতে ফেল করছিলেন, করোনায় হলো রক্ষা

  অনলাইন ডেস্ক  

০১ আগস্ট ২০২০, ১৬:০৯:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

৩৩ বছর ধরে দশম শ্রেণিতে ফেল করছিলেন তিনি, করোনায় হলো রক্ষা (ভিডিও)

মহামারী করোনা সাপে বর হয়ে গেলে ৫১ বছর বয়সী এক ব্যক্তির। করোনার কারণে পরীক্ষা ছাড়াই পাস করে গেলেন তিনি।

১৯৮৭ সাল থেকে দশম শ্রেণিতে পরীক্ষা দিয়ে আসছিলেন তিনি। কিন্তু এই ৩৩ বছরেও পাসের মুখ দেখেননি তিনি।

ভারতের সংবাদসংস্থা এএনআইয়ের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম জি-নিউজ জানিয়েছে, ৩৩ বছর ধরে দশম শ্রেণিতে প্রতিবছরই পরীক্ষায় অংশ নিতেন মহম্মদ নুরুদ্দিন নামে হায়দাবাদের এক বাসিন্দা। কিন্তু কখনও ধৈর্য হারা হননি। অধ্যবসায় চালিয়েই গেছেন। অনেকেই তাকে বিকারগ্রস্থ বলেছে। নামের সঙ্গে আদু ভাই তকমা জুটেছে। তবুও পিছপা হননি। নিয়মিতই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে গেছেন। অবশেষে নিজে না পারলেও করোনার কারণে পাস করলেন তিনি।

নুরুদ্দিনের সাক্ষাৎকার নিয়েছে ভারতের সংবাদ সংস্থা এএনআই।

সাক্ষাৎকারকে নুরুদ্দিন বলেন, ১৯৮৭ সাল থেকে লাগাতার ক্লাস টেনের পরীক্ষা দিচ্ছি। আমি ইংরেজিতে খুব কাঁচা। তাই এতো বছর ধরেও পাস করতে পারছিলাম না। এবার করোনা বাঁচিয়ে দিল। আমি পাস করেছি।

তিনি আরও বলেন, আমাকে লোকেনানা বাজেকথা বলেছে। তবে আমি ঠিক করেছিলাম, পাস করেই ছাড়ব। না হলে লোকে আমাকে ক্লাস টেন ফেল বলত। এবার সেটা বলবে না। আমি এখন ম্যাট্রিক পাস। আমি অনেক খুশি।

প্রসঙ্গত, বৈশ্বিক মহামারী করোনায় বিস্ফোরণ ঘটেছে ভারতে। এমন পরিস্থিতিতে দেশটির বেশিরভাগ রাজ্যের শিক্ষাবোর্ড পরীক্ষা বাতিল করে এবার সব শিক্ষার্থীকে পাস করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এমন সিদ্ধান্তের কারণে অকৃতকার্য হওয়ার সম্ভাবনায় থাকা ভারতের শিক্ষার্থীরাও পাস করল। হায়দরাবাদের নুরুদ্দিন তাদের মধ্যে অন্যতম।

৩৩ বছর ধরে দশম শ্রেণিতে ফেল করছিলেন, করোনায় হলো রক্ষা

 অনলাইন ডেস্ক 
০১ আগস্ট ২০২০, ০৪:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
৩৩ বছর ধরে দশম শ্রেণিতে ফেল করছিলেন তিনি, করোনায় হলো রক্ষা (ভিডিও)
নুরুদ্দিন। ছবি: এএনআই

মহামারী করোনা সাপে বর হয়ে গেলে ৫১ বছর বয়সী এক ব্যক্তির। করোনার কারণে পরীক্ষা ছাড়াই পাস করে গেলেন তিনি।

১৯৮৭ সাল থেকে দশম শ্রেণিতে পরীক্ষা দিয়ে আসছিলেন তিনি। কিন্তু এই ৩৩ বছরেও পাসের মুখ দেখেননি তিনি। 

ভারতের সংবাদসংস্থা এএনআইয়ের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম জি-নিউজ জানিয়েছে, ৩৩ বছর ধরে দশম শ্রেণিতে প্রতিবছরই পরীক্ষায় অংশ নিতেন মহম্মদ নুরুদ্দিন নামে হায়দাবাদের এক বাসিন্দা। কিন্তু কখনও ধৈর্য হারা হননি। অধ্যবসায় চালিয়েই গেছেন। অনেকেই তাকে বিকারগ্রস্থ বলেছে। নামের সঙ্গে আদু ভাই তকমা জুটেছে। তবুও পিছপা হননি। নিয়মিতই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে গেছেন। অবশেষে নিজে না পারলেও করোনার কারণে পাস করলেন তিনি।

নুরুদ্দিনের সাক্ষাৎকার নিয়েছে ভারতের সংবাদ সংস্থা এএনআই। 

সাক্ষাৎকারকে নুরুদ্দিন বলেন, ১৯৮৭ সাল থেকে লাগাতার ক্লাস টেনের পরীক্ষা দিচ্ছি। আমি ইংরেজিতে খুব কাঁচা। তাই এতো বছর ধরেও পাস করতে পারছিলাম না। এবার করোনা বাঁচিয়ে দিল। আমি পাস করেছি। 

তিনি আরও বলেন, আমাকে লোকে নানা বাজে কথা বলেছে। তবে আমি ঠিক করেছিলাম, পাস করেই ছাড়ব। না হলে লোকে আমাকে ক্লাস টেন ফেল বলত। এবার সেটা বলবে না। আমি এখন ম্যাট্রিক পাস। আমি অনেক খুশি।

 

প্রসঙ্গত, বৈশ্বিক মহামারী করোনায় বিস্ফোরণ ঘটেছে ভারতে। এমন পরিস্থিতিতে দেশটির বেশিরভাগ রাজ্যের শিক্ষাবোর্ড পরীক্ষা বাতিল করে এবার সব শিক্ষার্থীকে পাস করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এমন সিদ্ধান্তের কারণে অকৃতকার্য হওয়ার সম্ভাবনায় থাকা ভারতের শিক্ষার্থীরাও পাস করল। হায়দরাবাদের নুরুদ্দিন তাদের মধ্যে অন্যতম।