ইতালিতে ঈদুল আজহা উদযাপন
jugantor
ইতালিতে ঈদুল আজহা উদযাপন

  জমির হোসেন, ইতালি থেকে  

০২ আগস্ট ২০২০, ১৯:২৭:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

ইতালিতে ধর্মীয় ভাবগার্ম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে করোনা পরিস্থিতিতে শুক্রবার ৩১ জুলাই পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন করা হয়েছে।

ইতালি ছাড়াও শুক্রবার ইউরোপের অন্য দেশগুলোতে প্রবাসী বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের মুসলমানরা ঈদ উদযাপন করেন।

করোনা পরিস্থিতির কারণে এ বছর ভিন্ন আবহে মুসলমানদের বড় এ ধর্মীয় উৎসব পালন করা হয়।

রোমের ব্যস্ততম এলাকা লারগো প্রেনেসতে দুটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাড়ে সাতটায়।

এরপর দ্বিতীয় জামাত শুরু হয় সকাল সাড়ে আটটায়।মহামারী করোনাভাইরাসের মধ্যেও এ দিন বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

এছাড়া বাংলাদেশি ব্যবসায়ীঅধ্যুষীত এলাকা পিয়াচ্ছা ভিত্তোরিও ও কাঁচা বাজারসহ রোমের ১৬ স্থানে ঈদুল আজহা উদযাপন করা হয়।

তবে এ বছর কোভিড-১৯ এর কারণে প্রবাসীদের মনে আগের মতো উচ্ছ্বাস দেখা যায়নি।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ পড়ে কেউ কোলাকুলি ও মুসাফা করেননি।সবাই ইতালি সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনে এক মিটার দূরত্ব বজায় রেখে নামাজ আদায় করেন। জামাতে ছিল প্রশাসনের কড়া নিরপত্তা, ফলে সবাইকে একটু বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়।

লারগো প্রেনেসতে খোলা মাঠে জামাতের প্রশাসনিক ব্যবস্থায় সহযোগিতা করেন সামাজিক সংগঠন ইল ধূমকেতুর কর্ণধার নুরে আলম সিদ্দিকী বাচ্চু এবং সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেন বৃহত্তর ঢাকা সমিতি ও বাংলাদেশ সমিতি।

খোলা মাঠে নামাজ পড়তে আসা প্রবাসী বাংলাদেশিরা বলেন, সত্যিকার অর্থে এ বছর ব্যতিক্রম একটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

করোনার ফলে আনন্দ অনেকাংশেই ভাটা পড়েছে।এরপরেও জামাতে নামাজ আদায় করতে পেরে আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করছি।
করোনায় বিপর্যস্ত দেশ ইতালি জামাতে নামাজ পড়তে পেরে অনেক ভাল লেগেছে।

ইতালিতে ঈদুল আজহা উদযাপন

 জমির হোসেন, ইতালি থেকে 
০২ আগস্ট ২০২০, ০৭:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইতালিতে ধর্মীয় ভাবগার্ম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে করোনা পরিস্থিতিতে শুক্রবার ৩১ জুলাই পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন করা হয়েছে।

ইতালি ছাড়াও শুক্রবার ইউরোপের অন্য দেশগুলোতে প্রবাসী বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের মুসলমানরা ঈদ উদযাপন করেন।

করোনা পরিস্থিতির কারণে এ বছর ভিন্ন আবহে মুসলমানদের বড় এ ধর্মীয় উৎসব পালন করা হয়।

রোমের ব্যস্ততম এলাকা লারগো প্রেনেসতে দুটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাড়ে সাতটায়।

এরপর দ্বিতীয় জামাত শুরু হয় সকাল সাড়ে আটটায়।মহামারী করোনাভাইরাসের মধ্যেও এ দিন বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

এছাড়া বাংলাদেশি ব্যবসায়ীঅধ্যুষীত এলাকা পিয়াচ্ছা ভিত্তোরিও ও কাঁচা বাজারসহ রোমের ১৬ স্থানে ঈদুল আজহা উদযাপন করা হয়।

তবে এ বছর কোভিড-১৯ এর কারণে প্রবাসীদের মনে আগের মতো উচ্ছ্বাস দেখা যায়নি।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ পড়ে কেউ কোলাকুলি ও মুসাফা করেননি।সবাই ইতালি সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনে এক মিটার দূরত্ব বজায় রেখে নামাজ আদায় করেন। জামাতে ছিল প্রশাসনের কড়া নিরপত্তা, ফলে সবাইকে একটু বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়।

লারগো প্রেনেসতে খোলা মাঠে জামাতের প্রশাসনিক ব্যবস্থায় সহযোগিতা করেন সামাজিক সংগঠন ইল ধূমকেতুর কর্ণধার নুরে আলম সিদ্দিকী বাচ্চু এবং সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেন বৃহত্তর ঢাকা সমিতি ও বাংলাদেশ সমিতি।

খোলা মাঠে নামাজ পড়তে আসা প্রবাসী বাংলাদেশিরা বলেন, সত্যিকার অর্থে এ বছর ব্যতিক্রম একটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

করোনার ফলে আনন্দ অনেকাংশেই ভাটা পড়েছে।এরপরেও জামাতে নামাজ আদায় করতে পেরে আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করছি।
করোনায় বিপর্যস্ত দেশ ইতালি জামাতে নামাজ পড়তে পেরে অনেক ভাল লেগেছে।