কারাগার থেকে সন্তানকে মুক্ত করতে ৩৫ ফুট টানেল খুঁড়লেন মা
jugantor
কারাগার থেকে সন্তানকে মুক্ত করতে ৩৫ ফুট টানেল খুঁড়লেন মা

  অনলাইন ডেস্ক  

০৪ আগস্ট ২০২০, ১৭:৩৪:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

ইউক্রেনের একটি কারাগারে খুনের দায়ে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত সন্তানকে মুক্ত করতে ৩৫ ফুট গভীর টানেল খনন করেছেন এক মা। সন্তানকে বাঁচাতে ৫১ বছর বয়সী মা একাই এমন বড় টানেলটি তৈরি করে সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। যদিও কাজটি করে তিনি সফল হতে পারেননি। পুলিশের হাতে ধরা খেয়ে তিনি নিজেও কারাবন্দি রয়েছেন। 

মেইল অনলাইন জানায়, ছেলেকে মুক্ত করতে ওই মা প্রথমে কারাগারের কাছে জাপোরিজিয়া অঞ্চলে একটি বাড়ি ভাড়া নেন। এরপর তিনি টানেল খনন করতে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম সংগ্রহ করেন। 

মানুষের মনোযোগ এড়াতে তিনি রাতের আঁধারে খনন কাজ করতেন। অল্প সময়ে তিনি ১০ ফুট টানেল খনন করতে সক্ষম হন। যার মাধ্যমে তিনি ছেলের কারাগারে প্রবেশের পথ সূচণা করেন। পরবর্তীতে তিনি কারাগারের দেয়ালের নিচ দিয়ে ৩৫ ফুট দীর্ঘ টানেল তৈরি করেন। 

কেউ যেন তাকে চিনতে না পারে বা সবার থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখতে দিনের বেলা তিনি ঘরেই থাকতেন। মূলত সূর্যাস্তের পর তিনি ঘর থেকে বের হতেন। নিজের স্কুটারে চেপে তিনি ঘটনাস্থলে পৌঁছাতেন এবং মাটি সরিয়ে নিতে একটি ছোট আকারের ইলেকট্রিক ট্রলি ব্যবহার করতেন। ধরা পড়ার আগে মাত্র তিন সপ্তাহে তিনি ৩ টন মাটি খনন করতে সক্ষম হন।

তবে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত সন্তানের বিস্তারিত জানানো হয়নি। পুলিশ টানেল খননকারী মাকে গ্রেফতারের পর তার ভাড়া বাসায় তল্লাশি চালায়। এ সময় খনন কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, তিন মিটার গভীরতা পর্যন্ত খনন করতে তিনি কোনো ভেকু বা অন্য কিছু ব্যবহার করেননি। 

এদিকে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়রা মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখালেও অনেকে সন্তানের প্রতি তার ত্যাগ ও কঠোর পরিশ্রমের প্রংশসা করেছেন।

কারাগার থেকে সন্তানকে মুক্ত করতে ৩৫ ফুট টানেল খুঁড়লেন মা

 অনলাইন ডেস্ক 
০৪ আগস্ট ২০২০, ০৫:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইউক্রেনের একটি কারাগারে খুনের দায়ে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত সন্তানকে মুক্ত করতে ৩৫ ফুট গভীর টানেল খনন করেছেন এক মা। সন্তানকে বাঁচাতে ৫১ বছর বয়সী মা একাই এমন বড় টানেলটি তৈরি করে সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। যদিও কাজটি করে তিনি সফল হতে পারেননি। পুলিশের হাতে ধরা খেয়ে তিনি নিজেও কারাবন্দি রয়েছেন।

মেইল অনলাইনজানায়, ছেলেকে মুক্ত করতে ওই মা প্রথমে কারাগারের কাছে জাপোরিজিয়া অঞ্চলে একটি বাড়ি ভাড়া নেন। এরপর তিনি টানেল খনন করতে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম সংগ্রহ করেন।

মানুষের মনোযোগ এড়াতে তিনি রাতের আঁধারে খনন কাজ করতেন। অল্প সময়ে তিনি ১০ ফুট টানেল খনন করতে সক্ষম হন। যার মাধ্যমে তিনি ছেলের কারাগারে প্রবেশের পথ সূচণা করেন। পরবর্তীতে তিনি কারাগারের দেয়ালের নিচ দিয়ে ৩৫ ফুট দীর্ঘ টানেল তৈরি করেন।

কেউ যেন তাকে চিনতে না পারে বা সবার থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখতে দিনের বেলা তিনি ঘরেই থাকতেন। মূলত সূর্যাস্তের পর তিনি ঘর থেকে বের হতেন। নিজের স্কুটারে চেপে তিনি ঘটনাস্থলে পৌঁছাতেন এবং মাটি সরিয়ে নিতে একটি ছোট আকারের ইলেকট্রিক ট্রলি ব্যবহার করতেন। ধরা পড়ার আগে মাত্র তিন সপ্তাহে তিনি ৩ টন মাটি খনন করতে সক্ষম হন।

তবে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত সন্তানের বিস্তারিত জানানো হয়নি। পুলিশ টানেল খননকারী মাকে গ্রেফতারের পর তার ভাড়া বাসায় তল্লাশি চালায়। এ সময় খনন কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, তিন মিটার গভীরতা পর্যন্ত খনন করতে তিনি কোনো ভেকু বা অন্য কিছু ব্যবহার করেননি।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়রা মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখালেও অনেকে সন্তানের প্রতি তার ত্যাগ ও কঠোর পরিশ্রমের প্রংশসা করেছেন।