জাতীয় নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো লড়বেন সু চি
jugantor
জাতীয় নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো লড়বেন সু চি

  অনলাইন ডেস্ক  

০৪ আগস্ট ২০২০, ১৯:২৩:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

অং সান সু চি
অং সান সু চি। ফাইল ছবি

মিয়ানমারের জাতীয় নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো লড়বেন ৭৫ বছর বয়সী অং সান সু চি। আগামী নভেম্বরে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। গণতন্ত্র পুর্ণগঠনের জন্য তিনি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন বলে মঙ্গলবার জানিয়েছেন।

দ্য হিন্দু জানিয়েছে, কয়েকদশক সামরিক শাসনের পর ২০১৬ সালে জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেন সু চি। বিপুল ভোটে জয়ী হলেও দেশটির জেনারেলদের সঙ্গে ক্ষমতা ভাগাভাগি করে নিতে হয়েছে। 

মঙ্গলবার ৫০ জনের মতো সমর্থক নিয়ে সাবেক রাজধানী ইয়াঙ্গুনের নির্বাচন কমিশন অফিসে সু চি তার মনোনয়ন পত্র জমা দেন। 

তবে রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিকভাবে সমালোচিত হয়েছেন দেশটির স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি।

২০১৭ সালে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রাখাইনে রোহিঙ্গা নিধন অভিযানে নামে। প্রাণে বাঁচতে ওই সময় লাখ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। 

জাতিসংঘের তদন্ত দল তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, ‘গণহত্যার ইচ্ছা নিয়ে’ রাখাইনে সেনাবাহিনী অভিযান চালিয়েছিল। রোহিঙ্গাদের গণহত্যা ও মিয়ানমারের যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে গত বছর আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে মামলা দায়ের করে গাম্বিয়া। 

জানুয়ারিতে আদালতে শুনানিতে, সু চি স্বীকার করেন যুদ্ধাপরাধ ঘটলেও ঘটে থাকতে পারে। তবে গণহত্যা চালানো হয়নি বলে তিনি দাবি করেন।
 

জাতীয় নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো লড়বেন সু চি

 অনলাইন ডেস্ক 
০৪ আগস্ট ২০২০, ০৭:২৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
অং সান সু চি
অং সান সু চি। ফাইল ছবি

মিয়ানমারের জাতীয় নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো লড়বেন ৭৫ বছর বয়সী অং সান সু চি। আগামী নভেম্বরে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। গণতন্ত্র পুর্ণগঠনের জন্য তিনি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন বলে মঙ্গলবার জানিয়েছেন।

দ্য হিন্দু জানিয়েছে, কয়েকদশক সামরিক শাসনের পর ২০১৬ সালে জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেন সু চি। বিপুল ভোটে জয়ী হলেও দেশটির জেনারেলদের সঙ্গে ক্ষমতা ভাগাভাগি করে নিতে হয়েছে।

মঙ্গলবার ৫০ জনের মতো সমর্থক নিয়ে সাবেক রাজধানী ইয়াঙ্গুনের নির্বাচন কমিশন অফিসে সু চি তার মনোনয়ন পত্র জমা দেন।

তবে রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিকভাবে সমালোচিত হয়েছেন দেশটির স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি।

২০১৭ সালে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রাখাইনে রোহিঙ্গা নিধন অভিযানে নামে। প্রাণে বাঁচতে ওই সময় লাখ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে।

জাতিসংঘের তদন্ত দল তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, ‘গণহত্যার ইচ্ছা নিয়ে’ রাখাইনে সেনাবাহিনী অভিযান চালিয়েছিল। রোহিঙ্গাদের গণহত্যা ও মিয়ানমারের যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে গত বছর আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে মামলা দায়ের করে গাম্বিয়া।

জানুয়ারিতে আদালতে শুনানিতে, সু চি স্বীকার করেন যুদ্ধাপরাধ ঘটলেও ঘটে থাকতে পারে। তবে গণহত্যা চালানো হয়নি বলে তিনি দাবি করেন।

 

ঘটনাপ্রবাহ : রোহিঙ্গা বর্বরতা