সরকার পদত্যাগের পরও যে কারণে বিক্ষোভে উত্তাল বৈরুত 
jugantor
সরকার পদত্যাগের পরও যে কারণে বিক্ষোভে উত্তাল বৈরুত 

  অনলাইন ডেস্ক  

১১ আগস্ট ২০২০, ২১:৩০:৩৯  |  অনলাইন সংস্করণ

লেবাননে বিক্ষোভ
লেবাননে বিক্ষোভ। ফাইল ছবি

লেবাননের সরকার পদত্যাগ করলেও বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় লেবাননের গোটা মন্ত্রিসভা পদত্যাগ করার পরেও পর পর তৃতীয় রাত ক্ষুব্ধ বিক্ষোভকারীরা সংসদ ভবনের সামনে প্রতিবাদ জানায়।

বিক্ষোভকারীরা ইঁটপাটকেল ও আতশবাজি ছুঁড়লে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে। দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষও হয়।

এক সপ্তাহ আগে বৈরুত বন্দরের ভয়াবহ বিস্ফোরণে ২২০ জনের বেশি মানুষ মারা যাওয়ার পর গণআন্দোলন শুরু হয়।

বন্দরে ২ হাজার ৭৫০টন বিস্ফোরক অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট পর্যাপ্ত নিরাপদ ব্যবস্থা না নিয়ে ছয় বছর ধরে মজুত রাখতে দেয়ায় মানুষের ক্ষোভ চরমে পৌঁছেছে।

প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব নিজে এর দায়িত্ব গ্রহণ না করে বলেছেন, বহু বছর ধরে সব কিছুর রন্ধ্রে দুর্নীতি দানা বাঁধাই এর কারণ।

কাতার ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরার জানিয়েছে, লেবাননের আন্দোলনকারীরা নতুন নেতৃত্ব দেখতে চায়। 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিক্ষুদ্ধরা বলছেন, সরকার পদত্যাগের মধ্যেই এটি শেষ নয়। এখন পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট আওন ও সংসদের স্পিকার বেরি গোটা পদ্ধতির মধ্যে রয়েছেন। 

ওবাদা ওদে নামে একজন টুইটারে লেখেন, আমার মতে, আমি সত্যই মনে করি যে সরকারের পদত্যাগ লেবাননের জনগণের পক্ষে সমাধান করবে না বা এর চেয়ে ভালো কিছু করবে না, কারণ প্রকৃত দুর্নীতিবাজ অভিজাতরা এখনও তাদের জায়গা থেকে শাসন করছে।

সরকার পদত্যাগের পরও যে কারণে বিক্ষোভে উত্তাল বৈরুত 

 অনলাইন ডেস্ক 
১১ আগস্ট ২০২০, ০৯:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
লেবাননে বিক্ষোভ
লেবাননে বিক্ষোভ। ফাইল ছবি

লেবাননের সরকার পদত্যাগ করলেও বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় লেবাননের গোটা মন্ত্রিসভা পদত্যাগ করার পরেও পর পর তৃতীয় রাত ক্ষুব্ধ বিক্ষোভকারীরা সংসদ ভবনের সামনে প্রতিবাদ জানায়।

বিক্ষোভকারীরা ইঁটপাটকেল ও আতশবাজি ছুঁড়লে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে। দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষও হয়।

এক সপ্তাহ আগে বৈরুত বন্দরের ভয়াবহ বিস্ফোরণে ২২০ জনের বেশি মানুষ মারা যাওয়ার পর গণআন্দোলন শুরু হয়।

বন্দরে ২ হাজার ৭৫০টন বিস্ফোরক অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট পর্যাপ্ত নিরাপদ ব্যবস্থা না নিয়ে ছয় বছর ধরে মজুত রাখতে দেয়ায় মানুষের ক্ষোভ চরমে পৌঁছেছে।

প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব নিজে এর দায়িত্ব গ্রহণ না করে বলেছেন, বহু বছর ধরে সব কিছুর রন্ধ্রে দুর্নীতি দানা বাঁধাই এর কারণ।

কাতার ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরার জানিয়েছে, লেবাননের আন্দোলনকারীরা নতুন নেতৃত্ব দেখতে চায়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিক্ষুদ্ধরা বলছেন, সরকার পদত্যাগের মধ্যেই এটি শেষ নয়। এখন পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট আওন ও সংসদের স্পিকার বেরি গোটা পদ্ধতির মধ্যে রয়েছেন।

ওবাদা ওদে নামে একজন টুইটারে লেখেন, আমার মতে, আমি সত্যই মনে করি যে সরকারের পদত্যাগ লেবাননের জনগণের পক্ষে সমাধান করবে না বা এর চেয়ে ভালো কিছু করবে না, কারণ প্রকৃত দুর্নীতিবাজ অভিজাতরা এখনও তাদের জায়গা থেকে শাসন করছে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : লেবাননে বিস্ফোরণ