আজ এক ঐতিহাসিক দিন: নেতানিয়াহুর উচ্ছ্বাস
jugantor
আজ এক ঐতিহাসিক দিন: নেতানিয়াহুর উচ্ছ্বাস

  অনলাইন ডেস্ক  

১৩ আগস্ট ২০২০, ২৩:৪৮:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

নেতানিয়াহুর উচ্ছাস
ছবি: বিবিসি

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যস্থতায় সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইসরাইলের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের বিষয়টিতে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন ইহুদিবাদী রাষ্ট্রটির প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। 

ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই ঘোষণার পর নেতানিয়াহু হিব্রু ভাষায় এক টুইটে আজকের দিনটিকে ‘এক ঐতিহাসিক দিন’ বলে আখ্যায়িত করেছেন।

তিনি বলেন, এই চুক্তি ইসরাইলকে একটি ঐতিহাসিক দিন উপহার দিয়েছে।  ইসরাইল রাষ্ট্রের জন্য ঐতিহাসিক এই দিনের বিষয়ে আমি স্থানীয় সময় রাত ৮টায় বিশেষ ঘোষণা দেব।

যুক্তরাষ্ট্রে সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত ইউসেফ আল ওতাইবা বলেছেন, ‘এটি ঐ অঞ্চলে কূটনীতির বিজয়।’

তিনি একে আরব-ইসরাইল সম্পর্কে এক গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি বলে বর্ণনা করে বলেন, এর ফলে উত্তেজনা কমবে এবং অনেক ইতিবাচক পরিবর্তন হবে।

বৃহস্পতিবার ট্রাম্প, ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদের মধ্যে টেলিফোন কলে একটি চুক্তিতে উপনীত হয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, এটি ইসরাইলের সঙ্গে তৃতীয় কোনো আরব রাষ্ট্রের শান্তি চুক্তি। এর আগে মিসর ১৯৭৯ সালে এবং জর্ডান ১৯৯৪ সালে ইসরাইলের সঙ্গে শান্তি চুক্তি করে।

সামনের দিনগুলোতে ইসরাইল এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতিনিধিরা বিনিয়োগ, পর্যটন, সরাসরি ফ্লাইট, নিরাপত্তা, টেলিযোগাযোগ, জ্বালানি, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি সহ নানা বিষয়ে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি করার জন্য বৈঠকে বসবেন।

আজ এক ঐতিহাসিক দিন: নেতানিয়াহুর উচ্ছ্বাস

 অনলাইন ডেস্ক 
১৩ আগস্ট ২০২০, ১১:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নেতানিয়াহুর উচ্ছাস
ছবি: বিবিসি

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যস্থতায় সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইসরাইলের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের বিষয়টিতে উচ্ছ্বাসপ্রকাশ করেছেন ইহুদিবাদী রাষ্ট্রটির প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই ঘোষণার পর নেতানিয়াহু হিব্রু ভাষায় এক টুইটে আজকের দিনটিকে ‘এক ঐতিহাসিক দিন’ বলে আখ্যায়িত করেছেন।

তিনি বলেন, এই চুক্তি ইসরাইলকে একটি ঐতিহাসিক দিন উপহার দিয়েছে। ইসরাইল রাষ্ট্রের জন্য ঐতিহাসিক এই দিনের বিষয়ে আমি স্থানীয় সময় রাত ৮টায় বিশেষ ঘোষণা দেব।

যুক্তরাষ্ট্রে সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত ইউসেফ আল ওতাইবা বলেছেন, ‘এটি ঐ অঞ্চলে কূটনীতির বিজয়।’

তিনি একে আরব-ইসরাইল সম্পর্কে এক গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি বলে বর্ণনা করে বলেন, এর ফলে উত্তেজনা কমবে এবং অনেক ইতিবাচক পরিবর্তন হবে।

বৃহস্পতিবার ট্রাম্প, ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদের মধ্যে টেলিফোন কলে একটি চুক্তিতে উপনীত হয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, এটি ইসরাইলের সঙ্গে তৃতীয় কোনো আরব রাষ্ট্রের শান্তি চুক্তি। এর আগে মিসর ১৯৭৯ সালে এবং জর্ডান ১৯৯৪ সালে ইসরাইলের সঙ্গে শান্তি চুক্তি করে।

সামনের দিনগুলোতে ইসরাইল এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতিনিধিরা বিনিয়োগ, পর্যটন, সরাসরি ফ্লাইট, নিরাপত্তা, টেলিযোগাযোগ, জ্বালানি, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি সহ নানা বিষয়ে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি করার জন্য বৈঠকে বসবেন।

 

ঘটনাপ্রবাহ : শতাব্দীর সেরা সমঝোতা