‘বৈরুত বিস্ফোরণ হিজবুল্লাহর অস্ত্র ভাণ্ডার থেকে নয়’
jugantor
‘বৈরুত বিস্ফোরণ হিজবুল্লাহর অস্ত্র ভাণ্ডার থেকে নয়’

  অনলাইন ডেস্ক  

১৮ আগস্ট ২০২০, ১৪:০৮:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

বৈরুত বিস্ফোরণ হিজবুল্লাহর অস্ত্র ভাণ্ডার থেকে নয়: লেবানন প্রেসিডেন্ট

হিজবুল্লাহর অস্ত্র ভাণ্ডার থেকে বৈরুত বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটতে পারে বলে যে জল্পনা-কল্পনা করা হয়েছে, তা নাকচ করে দিয়েছেন লেবাননের প্রেসিডেন্ট মাইকেল আউন। তিনি বলেন, এটা অসম্ভব।

তবে সব ধরনের আশঙ্কা তদন্ত দেখা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

গত ৪ আগস্টের ওই বিস্ফোরণে ১৭৮ জন নিহত ও ছয় হাজারের বেশি মানুষ আহত হয়েছেন।

বৈরুত বন্দরে মজুদ করে রাখা অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট থেকে এই বিস্ফোরণ ঘটতে পারে বলে প্রাথমিক ধারণা করা হচ্ছে।

লেবাননে প্রভাবশালী হিজবুল্লাহ মিলিশিয়া গোষ্ঠীর মিত্র মাইকেল আউন। একটি ইতালীয় পত্রিকাকে সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, বন্দরে কোনো অস্ত্র মজুদ রাখেনি হিজবুল্লাহ।

এর আগে হিজবুল্লাহর তরফেও একই দাবি করা হয়েছে। আউন বলেন, এমন একটি বড় দুর্ঘটনা থেকে নানা জল্পনা-কল্পনার জন্ম হয়। এ বিষয়ে তদন্ত করে দেখা হবে।

বৈরুত বন্দরে ভারী অস্ত্র মজুদ রাখার কথা অস্বীকার করেন হিজবুল্লাহ প্রধান হাসান নাসরাল্লাহ।

তিনি বলেন, তদন্তের ফল আসা পর্যন্ত আমরা অপেক্ষা করছি। তবে এটা যদি ইসরাইলি কোনো নাশকতা হয়, তবে তাদের বড় খেসারত দিতে হবে।

‘বৈরুত বিস্ফোরণ হিজবুল্লাহর অস্ত্র ভাণ্ডার থেকে নয়’

 অনলাইন ডেস্ক 
১৮ আগস্ট ২০২০, ০২:০৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বৈরুত বিস্ফোরণ হিজবুল্লাহর অস্ত্র ভাণ্ডার থেকে নয়: লেবানন প্রেসিডেন্ট
ছবি: সংগৃহীত

হিজবুল্লাহর অস্ত্র ভাণ্ডার থেকে বৈরুত বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটতে পারে বলে যে জল্পনা-কল্পনা করা হয়েছে, তা নাকচ করে দিয়েছেন লেবাননের প্রেসিডেন্ট মাইকেল আউন। তিনি বলেন, এটা অসম্ভব।

তবে সব ধরনের আশঙ্কা তদন্ত দেখা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

গত ৪ আগস্টের ওই বিস্ফোরণে ১৭৮ জন নিহত ও ছয় হাজারের বেশি মানুষ আহত হয়েছেন। 

বৈরুত বন্দরে মজুদ করে রাখা অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট থেকে এই বিস্ফোরণ ঘটতে পারে বলে প্রাথমিক ধারণা করা হচ্ছে।

লেবাননে প্রভাবশালী হিজবুল্লাহ মিলিশিয়া গোষ্ঠীর মিত্র মাইকেল আউন। একটি ইতালীয় পত্রিকাকে সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, বন্দরে কোনো অস্ত্র মজুদ রাখেনি হিজবুল্লাহ।

এর আগে হিজবুল্লাহর তরফেও একই দাবি করা হয়েছে। আউন বলেন, এমন একটি বড় দুর্ঘটনা থেকে নানা জল্পনা-কল্পনার জন্ম হয়। এ বিষয়ে তদন্ত করে দেখা হবে।

বৈরুত বন্দরে ভারী অস্ত্র মজুদ রাখার কথা অস্বীকার করেন হিজবুল্লাহ প্রধান হাসান নাসরাল্লাহ।

তিনি বলেন, তদন্তের ফল আসা পর্যন্ত আমরা অপেক্ষা করছি। তবে এটা যদি ইসরাইলি কোনো নাশকতা হয়, তবে তাদের বড় খেসারত দিতে হবে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : লেবাননে বিস্ফোরণ