জাপানে নবদম্পতি পাবে ৬ লাখ ইয়েন
jugantor
জাপানে নবদম্পতি পাবে ৬ লাখ ইয়েন

  অনলাইন ডেস্ক  

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪:১৬:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

জাপানে নবদম্পতি পাবে ৬ লাখ ইয়েন

জাপানে নবদম্পতিদের নতুন সংসার শুরুর সময় বাসাভাড়া ও বিভিন্ন খরচ মেটাতে সর্বোচ্চ ছয় লাখ ইয়েন দেয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

তবে সবাই যে এ উপহার পাবেন, তা কিন্তু না। যেসব পৌরসভা দেশটির নিউলিওয়েড সাপোর্ট প্রোগ্রাম হাতে নিয়েছে, কেবল সেসব পৌরসভার বাসিন্দারাই এ অর্থ পাবেন।

রোববার জাপান সরকারের বেশ কয়েকটি সূত্রের বরাতে কিয়োডো নিউজ এমন তথ্য জানিয়েছে।

এক্ষেত্রে নতুন বিয়ে করা স্বামী ও স্ত্রী উভয়ের বয়সই ৪০ এর নিচে থাকতে হবে। দুজনের সম্মিলিত আয়ও কোনোভাবেই ৫৪ লাখ ইয়েনের বেশি হতে পারবে না।

সব ঠিক থাকলে আগামী বছরের এপ্রিল থেকে বিয়েতে আর্থিক প্রণোদনা দেয়ার নতুন এ নিয়ম চালুর চিন্তাভাবনা চলছে।

খবরে বলা হয়েছে, অবিবাহিত থাকতে চাওয়া ও দেরিতে বিয়ে করার প্রবণতার কারণে জাপানে এমনিতেই শিশু জন্মহার অত্যন্ত কম।

জন্মহার বাড়াতেই দেশটির সরকার এখন বিয়েতে প্রণোদনা প্রকল্পের আওতা বাড়িয়ে নবদম্পতিদের বেশি অর্থ এবং বয়সের সীমা খানিকটা বাড়িয়ে দেয়ার কথা ভাবছে।

নিউলিওয়েড সাপোর্ট প্রোগ্রামে এখন স্বামী-স্ত্রী উভয়ের বয়স ৩৫ এর কম এবং সম্মিলিত আয় ৪৮ লাখ ডলারের নিচে হলে সর্বোচ্চ ৩ লাখ ইয়েন পর্যন্ত সহযোগিতা মেলে।

চলতি বছরের জুলাই পর্যন্ত জাপানের মাত্র ২৮১টি পৌরসভা এ প্রকল্পে যুক্ত হয়েছে, যা দেশটির ছোটবড় শহর ও গ্রাম মিলিয়ে থাকা পৌরসভার মাত্র ১৫ শতাংশ।

বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী, নবদম্পতিদের সহযোগিতার অর্ধেক অর্থ বহন করে পৌরসভা; বাকিটা দেয় কেন্দ্রীয় সরকার।

জাপানে নবদম্পতি পাবে ৬ লাখ ইয়েন

 অনলাইন ডেস্ক 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:১৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
জাপানে নবদম্পতি পাবে ৬ লাখ ইয়েন
ছবি: সংগৃহীত

জাপানে নবদম্পতিদের নতুন সংসার শুরুর সময় বাসাভাড়া ও বিভিন্ন খরচ মেটাতে সর্বোচ্চ ছয় লাখ ইয়েন দেয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

তবে সবাই যে এ উপহার পাবেন, তা কিন্তু না। যেসব পৌরসভা দেশটির নিউলিওয়েড সাপোর্ট প্রোগ্রাম হাতে নিয়েছে, কেবল সেসব পৌরসভার বাসিন্দারাই এ অর্থ পাবেন।

রোববার জাপান সরকারের বেশ কয়েকটি সূত্রের বরাতে কিয়োডো নিউজ এমন তথ্য জানিয়েছে।

এক্ষেত্রে নতুন বিয়ে করা স্বামী ও স্ত্রী উভয়ের বয়সই ৪০ এর নিচে থাকতে হবে। দুজনের সম্মিলিত আয়ও কোনোভাবেই ৫৪ লাখ ইয়েনের বেশি হতে পারবে না।

সব ঠিক থাকলে আগামী বছরের এপ্রিল থেকে বিয়েতে আর্থিক প্রণোদনা দেয়ার নতুন এ নিয়ম চালুর চিন্তাভাবনা চলছে।

খবরে বলা হয়েছে, অবিবাহিত থাকতে চাওয়া ও দেরিতে বিয়ে করার প্রবণতার কারণে জাপানে এমনিতেই শিশু জন্মহার অত্যন্ত কম।

জন্মহার বাড়াতেই দেশটির সরকার এখন বিয়েতে প্রণোদনা প্রকল্পের আওতা বাড়িয়ে নবদম্পতিদের বেশি অর্থ এবং বয়সের সীমা খানিকটা বাড়িয়ে দেয়ার কথা ভাবছে।

নিউলিওয়েড সাপোর্ট প্রোগ্রামে এখন স্বামী-স্ত্রী উভয়ের বয়স ৩৫ এর কম এবং সম্মিলিত আয় ৪৮ লাখ ডলারের নিচে হলে সর্বোচ্চ ৩ লাখ ইয়েন পর্যন্ত সহযোগিতা মেলে।

চলতি বছরের জুলাই পর্যন্ত জাপানের মাত্র ২৮১টি পৌরসভা এ প্রকল্পে যুক্ত হয়েছে, যা দেশটির ছোটবড় শহর ও গ্রাম মিলিয়ে থাকা পৌরসভার মাত্র ১৫ শতাংশ। 

বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী, নবদম্পতিদের সহযোগিতার অর্ধেক অর্থ বহন করে পৌরসভা; বাকিটা দেয় কেন্দ্রীয় সরকার।