মিসরে সিসিবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশের গুলি
jugantor
মিসরে সিসিবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশের গুলি

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:৫০:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

মিসরে সিসিবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশের গুলি

মিসরের স্বৈরশাসক আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসির বিরুদ্ধে বিক্ষোভে গুলি চালিয়েছে পুলিশ। এতে ঘটনাস্থলেই একজনের প্রাণহানি হয়েছে। আহত হয়েছেন তিনজন।

সিসিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে গত কয়েকদিন ধরেই বিক্ষোভ চলছে দেশটিতে। শুক্রবার বিক্ষোভের ষষ্ঠ দিনে জুমার নামাজ শেষে রাজধানী কায়রোসহ দেশটির বিভিন্ন শহরে সিসিবিরোধী ব্যাপক বিক্ষোভ হয়।

আলজাজিরা জানিয়েছে, এই বিক্ষোভের নাম দেয়া হয়- ‘দ্রোহের শুক্রবার’। রাজধানী কায়রোর গিজা এলাকার রাস্তায় এ সময় আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে আন্দোলনকারীরা। হঠাৎ সেখানে গুলি চালায় পুলিশ।

এতে ঘটনস্থলে সামি ওয়াগদি বশির (২৫) নামে এক যুবক নিহত হন। আহত হন আরও তিনজন।

বৃহত্তর কায়রোর হেলওয়ানে অনুষ্ঠিত এক মিছিলের ভিডিও ফুটেজে বিক্ষোভকারীদের বলতে শোনা যাচ্ছে, ‘ভয় পাবেন না, জোরে বলুন- সিসিকে সরে যেতে হবে।’

দামিয়েত্তা শহরেও এসময় বিক্ষোভকারীদের লাঠিপেটা করে পুলিশ। বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে সেখানেও গুলি ছোড়ে পুলিশ। কিছু কিছু জায়গায় রাত পর্যন্ত বিক্ষোভ চলে।

গত সপ্তাহে কায়রোর তাহরির স্কয়ার, আলেকজান্দ্রিয়া ও সুয়েজে বহু পুলিশ ও সেনা মোতায়েন করা হয়। সারা দেশে বহু ক্রসিং এবং মহাসড়কগুলোতে সামরিক চেকপয়েন্টও বসানো হয়েছে।

কায়রোর কেন্দ্রস্থল ও এর আশপাশের ক্যাফেগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়। নিরাপত্তা বাহিনীর ব্যাপক উপস্থিতি উপেক্ষা করেই রাস্তায় নামে মানুষ।

বিক্ষোভ দমনে আগে থেকেই ধরপাকড় শুরু করে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনী।

মিসরে সিসিবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশের গুলি

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মিসরে সিসিবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশের গুলি
ছবি: আলজাজিরা

মিসরের স্বৈরশাসক আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসির বিরুদ্ধে বিক্ষোভে গুলি চালিয়েছে পুলিশ। এতে ঘটনাস্থলেই একজনের প্রাণহানি হয়েছে। আহত হয়েছেন তিনজন। 

সিসিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে গত কয়েকদিন ধরেই বিক্ষোভ চলছে দেশটিতে। শুক্রবার বিক্ষোভের ষষ্ঠ দিনে জুমার নামাজ শেষে রাজধানী কায়রোসহ দেশটির বিভিন্ন শহরে সিসিবিরোধী ব্যাপক বিক্ষোভ হয়। 

আলজাজিরা জানিয়েছে, এই বিক্ষোভের নাম দেয়া হয়- ‘দ্রোহের শুক্রবার’। রাজধানী কায়রোর গিজা এলাকার রাস্তায় এ সময় আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে আন্দোলনকারীরা। হঠাৎ সেখানে গুলি চালায় পুলিশ। 

এতে ঘটনস্থলে সামি ওয়াগদি বশির (২৫) নামে এক যুবক নিহত হন। আহত হন আরও তিনজন। 

বৃহত্তর কায়রোর হেলওয়ানে অনুষ্ঠিত এক মিছিলের ভিডিও ফুটেজে বিক্ষোভকারীদের বলতে শোনা যাচ্ছে, ‘ভয় পাবেন না, জোরে বলুন- সিসিকে সরে যেতে হবে।’

দামিয়েত্তা শহরেও এসময় বিক্ষোভকারীদের লাঠিপেটা করে পুলিশ। বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে সেখানেও গুলি ছোড়ে পুলিশ। কিছু কিছু জায়গায় রাত পর্যন্ত বিক্ষোভ চলে। 

গত সপ্তাহে কায়রোর তাহরির স্কয়ার, আলেকজান্দ্রিয়া ও সুয়েজে বহু পুলিশ ও সেনা মোতায়েন করা হয়। সারা দেশে বহু ক্রসিং এবং মহাসড়কগুলোতে সামরিক চেকপয়েন্টও বসানো হয়েছে।

কায়রোর কেন্দ্রস্থল ও এর আশপাশের ক্যাফেগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়। নিরাপত্তা বাহিনীর ব্যাপক উপস্থিতি উপেক্ষা করেই রাস্তায় নামে মানুষ।

বিক্ষোভ দমনে আগে থেকেই ধরপাকড় শুরু করে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনী।