দুই বছরে ৭৫০ ডলার আয়কর দিয়েছেন ট্রাম্প
jugantor
দুই বছরে ৭৫০ ডলার আয়কর দিয়েছেন ট্রাম্প
১০ বছর পুরো আয়কর ফাঁকি

  অনলাইন ডেস্ক  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:৪২:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দুই বছরের আয়কর হিসাবে মাত্র ৭৫০ ডলার দিয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে যে বছর প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছিলেন, সেই ২০১৬ সালে এবং প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর হোয়াইট হাউসের প্রথম বছর ২০১৭ সালে ট্রাম্প ওই আয়কর দিয়েছিলেন। খবর নিউইয়র্ক টাইমসের।

ট্রাম্প ও তার কোম্পানিগুলোর দুই দশকেরও বেশি সময়ের আয়করের রেকর্ড থেকে দেশটির গণমাধ্যম ওই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

শুধু তাই নয়, ট্রাম্প গত ১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছর একেবারেই কোনো আয়কর দেননি। নিজের কোম্পানিগুলোর ক্রমাগত লোকসান দেখিয়ে বছরের পর বছর আয়কর এড়িয়েছেন তিনি।

ট্রাম্প যথারীতি নিউইয়র্ক টাইমসের এ প্রতিবেদনকেও ‘ভুয়া খবর’ আখ্যায়িত করে প্রত্যাখ্যান করেছেন।

রোববার নিউইয়র্ক টাইমসের ওই প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার পর সাংবাদিকদের ট্রাম্প বলেন, আসলে আমি আয়কর দিই। আমার আয়কর রিটার্ন অডিট করা হচ্ছে, সেগুলো দীর্ঘ দিন ধরেই অডিটের আওতায় ছিল।

অর্থবিত্ত ও ব্যবসাসংক্রান্ত নথি দেখাতে অস্বীকার করায় ট্রাম্প আগেও আইনি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন। ১৯৭০-এর দশকের পর থেকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট, যিনি আয়কর রিটার্ন জনসম্মুখে প্রকাশ করেননি; তবে এ ক্ষেত্রে আইনি কোনো বাধ্যবাধকতাও নেই।

প্রতিবেদনে যেসব তথ্য এসেছে তা ‘ওইসব তথ্য দেখার বৈধ অনুমোদন আছে এমন সূত্রগুলো দিয়েছে’ বলে জানিয়েছে নিউইয়র্ক টাইমস।

ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের সঙ্গে ট্রাম্পের প্রথম প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্ক শুরু হওয়ার মাত্র কয়েক দিন আগে এ প্রতিবেদনটি প্রকাশ পেল।

দুই বছরে ৭৫০ ডলার আয়কর দিয়েছেন ট্রাম্প

১০ বছর পুরো আয়কর ফাঁকি
 অনলাইন ডেস্ক 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দুই বছরের আয়কর হিসাবে মাত্র ৭৫০ ডলার দিয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে যে বছর প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছিলেন, সেই ২০১৬ সালে এবং প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর হোয়াইট হাউসের প্রথম বছর ২০১৭ সালে ট্রাম্প ওই আয়কর দিয়েছিলেন। খবর নিউইয়র্ক টাইমসের।

ট্রাম্প ও তার কোম্পানিগুলোর দুই দশকেরও বেশি সময়ের আয়করের রেকর্ড থেকে দেশটির গণমাধ্যম ওই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

শুধু তাই নয়, ট্রাম্প গত ১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছর একেবারেই কোনো আয়কর দেননি। নিজের কোম্পানিগুলোর ক্রমাগত লোকসান দেখিয়ে বছরের পর বছর আয়কর এড়িয়েছেন তিনি।

ট্রাম্প যথারীতি নিউইয়র্ক টাইমসের এ প্রতিবেদনকেও ‘ভুয়া খবর’ আখ্যায়িত করে প্রত্যাখ্যান করেছেন।

রোববার নিউইয়র্ক টাইমসের ওই প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার পর সাংবাদিকদের ট্রাম্প বলেন, আসলে আমি আয়কর দিই। আমার আয়কর রিটার্ন অডিট করা হচ্ছে, সেগুলো দীর্ঘ দিন ধরেই অডিটের আওতায় ছিল।

অর্থবিত্ত ও ব্যবসাসংক্রান্ত নথি দেখাতে অস্বীকার করায় ট্রাম্প আগেও আইনি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন। ১৯৭০-এর দশকের পর থেকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট, যিনি আয়কর রিটার্ন জনসম্মুখে প্রকাশ করেননি; তবে এ ক্ষেত্রে আইনি কোনো বাধ্যবাধকতাও নেই।

প্রতিবেদনে যেসব তথ্য এসেছে তা ‘ওইসব তথ্য দেখার বৈধ অনুমোদন আছে এমন সূত্রগুলো দিয়েছে’ বলে জানিয়েছে নিউইয়র্ক টাইমস।

ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের সঙ্গে ট্রাম্পের প্রথম প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্ক শুরু হওয়ার মাত্র কয়েক দিন আগে এ প্রতিবেদনটি প্রকাশ পেল।