মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে আবারও ভেনিজুয়েলায় ইরানি ট্যাংকার
jugantor
মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে আবারও ভেনিজুয়েলায় ইরানি ট্যাংকার

  অনলাইন ডেস্ক  

২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৩৭:৩৯  |  অনলাইন সংস্করণ

মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে জ্বালানি সংকটে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ভেনিজুয়েলার জন্য আবারও তিনটি ট্যাংকারে করে তেল পাঠিয়েছে ইরান।

তেহরান ও কারাকাসের জ্বালানি খাতের ওপর আমেরিকার আরোপিত নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে এসব তেল ট্যাংকার পাঠিয়েছে ইরান। খবর ব্লুমবাগের।

সমুদ্রে জাহাজ চলাচল পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা ‘রেফিনিটিভ এইকন’ বলেছে, ইরানি পতাকাবাহী জাহাজ ‘ফরেস্ট’ মধ্যপ্রাচ্য থেকে তেল নিয়ে কোনো ধরনের বাধা ছাড়াই সোমবার স্থানীয় সময় সকাল ৮টায় ভেনিজুয়েলার বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে প্রবেশ করেছে।

জাহাজটিতে দুই লাখ ৭০ হাজার ব্যারেল তেল আছে বলে ইরানি সূত্রগুলো জানিয়েছে। ইরানের অপর দুটি তেল ট্যাংকার ‘ফ্যাক্সন’ ও ‘ফরচুন’ একই রুট ধরে বর্তমানে আটলান্টিক পাড়ি দিচ্ছে।

অক্টোবরের শেষের দিকে ওই দুটি ট্যাংকারও ভেনিজুয়েলার পানিসীমায় পৌঁছাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

ইরানের এই তিন জাহাজ ভেনিজুয়েলার জন্য মোট আট লাখ ২০ হাজার ব্যারেল তেল ও তেলজাত পণ্য বহন করছে।

এর আগে গত এপ্রিল ও মে মাসে ইরানের পাঁচটি তেল ট্যাংকার ভেনিজুয়েলায় গিয়েছিল।

আমেরিকা ওই ট্যাংকারগুলোকে মাঝপথে আটকে দেয়ার ঘোষণা দিলেও পরে ইরানের হুমকির মুখে নিজের ঘোষণা থেকে সরে যায় ওয়াশিংটন।

মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে আবারও ভেনিজুয়েলায় ইরানি ট্যাংকার

 অনলাইন ডেস্ক 
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৩৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে জ্বালানি সংকটে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ভেনিজুয়েলার জন্য আবারও তিনটি ট্যাংকারে করে তেল পাঠিয়েছে ইরান।

তেহরান ও কারাকাসের জ্বালানি খাতের ওপর আমেরিকার আরোপিত নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে এসব তেল ট্যাংকার পাঠিয়েছে ইরান। খবর ব্লুমবাগের।

সমুদ্রে জাহাজ চলাচল পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা ‘রেফিনিটিভ এইকন’ বলেছে, ইরানি পতাকাবাহী জাহাজ ‘ফরেস্ট’ মধ্যপ্রাচ্য থেকে তেল নিয়ে কোনো ধরনের বাধা ছাড়াই সোমবার স্থানীয় সময় সকাল ৮টায় ভেনিজুয়েলার বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে প্রবেশ করেছে।

জাহাজটিতে দুই লাখ ৭০ হাজার ব্যারেল তেল আছে বলে ইরানি সূত্রগুলো জানিয়েছে। ইরানের অপর দুটি তেল ট্যাংকার ‘ফ্যাক্সন’ ও ‘ফরচুন’ একই রুট ধরে বর্তমানে আটলান্টিক পাড়ি দিচ্ছে।

অক্টোবরের শেষের দিকে ওই দুটি ট্যাংকারও ভেনিজুয়েলার পানিসীমায় পৌঁছাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

ইরানের এই তিন জাহাজ ভেনিজুয়েলার জন্য মোট আট লাখ ২০ হাজার ব্যারেল তেল ও তেলজাত পণ্য বহন করছে।

এর আগে গত এপ্রিল ও মে মাসে ইরানের পাঁচটি তেল ট্যাংকার ভেনিজুয়েলায় গিয়েছিল।

আমেরিকা ওই ট্যাংকারগুলোকে মাঝপথে আটকে দেয়ার ঘোষণা দিলেও পরে ইরানের হুমকির মুখে নিজের ঘোষণা থেকে সরে যায় ওয়াশিংটন।