তৃতীয় প্রজন্মের নৌ ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের ভিডিও প্রকাশ ইরানের
jugantor
তৃতীয় প্রজন্মের নৌ ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের ভিডিও প্রকাশ ইরানের

  অনলাইন ডেস্ক  

২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:৪৬:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

জলফাঘর-ই বসির

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তীব্র উত্তেজনার মধ্যে তৃতীয় প্রজন্মের ভয়ংকর নৌব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের ভিডিও প্রকাশ করেছে ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডস। দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ মাধ্যম দাবি করছে, এটি আগের নৌ ক্ষেপণাস্ত্রের তুলনায় এর পরিসীমা দ্বিগুণ করা হয়েছে।

নিউজ উইকের সংবাদে বলা হয়ছে, রোববার আইআরজিসি কমান্ডার মেজর জেনারেল হোসেইন সালামির এ ক্ষেপণাস্ত্রের কথা ঘোষণার পর সোমবার তৃতীয় প্রজন্মের জলফাঘর-ই বসির ক্ষেপণাস্ত্রের একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে রাষ্ট্রীয় প্রেস টিভি চ্যানেল।

প্রেস টিভিতে বলা হয়েছে, ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরিসীমা প্রায় ৪৩৪ মাইল- যা ইরানের আগের প্রজন্মের খালিজ-ই ফার্স এবং হরমুজ নেভালি ব্যালিস্টিক মিসাইলের দ্বিগুণেরও বেশি।

খবরে বলা হয়েছে, কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ পারস্য উপসাগর ২১০ মাইল প্রশস্ত; যার অর্থ জলফাঘর-ই বাসির তাত্ত্বিকভাবে সমুদ্রের যে কোনো জায়গায় শত্রুদের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম হবে।

তেহরানের জাতীয় মহাকাশ পার্কে ট্রাকে রাখা ‘জলফাঘর-ই বসির’ ক্ষেপণাস্ত্রের ছবি প্রকাশ করেছে তাসনিম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রেভল্যুশনারি গার্ডসের কমান্ডার মেজর জেনারেল হোসেইন সালামি বলেছেন, ইরানের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার বিশদ পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই এই প্রদর্শনী।

ইরানের সঙ্গে করা পরমাণু চুক্তি থেকে ২০১৮ সালে বেরিয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র। এরপর থেকে ইরানের বিরুদ্ধে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে চলেছে দেশটি।

গত জানুয়ারিতে ইরাকের বাগদাদে যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় নিহত হন ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডসের মেজর জেনারেল কাশেম সোলাইমানি। এর জবাবে ইরাকে মার্কিন ঘাঁটি লক্ষ্য করে বেশ কিছু ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। সেই থেকে দেশ দুটির মধ্যে উত্তেজনার পারদ বেড়েই চলেছে।

তৃতীয় প্রজন্মের নৌ ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের ভিডিও প্রকাশ ইরানের

 অনলাইন ডেস্ক 
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
জলফাঘর-ই বসির
জলফাঘর-ই বসির। ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তীব্র উত্তেজনার মধ্যে তৃতীয় প্রজন্মের ভয়ংকর নৌব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের ভিডিও প্রকাশ করেছে ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডস। দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ মাধ্যম দাবি করছে, এটি আগের নৌ ক্ষেপণাস্ত্রের তুলনায় এর পরিসীমা দ্বিগুণ করা হয়েছে। 

নিউজ উইকের সংবাদে বলা হয়ছে, রোববার আইআরজিসি কমান্ডার মেজর জেনারেল হোসেইন সালামির এ ক্ষেপণাস্ত্রের কথা ঘোষণার পর সোমবার তৃতীয় প্রজন্মের জলফাঘর-ই বসির ক্ষেপণাস্ত্রের একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে রাষ্ট্রীয় প্রেস টিভি চ্যানেল।

প্রেস টিভিতে বলা হয়েছে, ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরিসীমা প্রায় ৪৩৪ মাইল- যা ইরানের আগের প্রজন্মের খালিজ-ই ফার্স এবং হরমুজ নেভালি ব্যালিস্টিক মিসাইলের দ্বিগুণেরও বেশি। 

খবরে বলা হয়েছে, কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ পারস্য উপসাগর ২১০ মাইল প্রশস্ত; যার অর্থ জলফাঘর-ই বাসির তাত্ত্বিকভাবে সমুদ্রের যে কোনো জায়গায় শত্রুদের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম হবে।

তেহরানের জাতীয় মহাকাশ পার্কে ট্রাকে রাখা ‘জলফাঘর-ই বসির’ ক্ষেপণাস্ত্রের ছবি প্রকাশ করেছে তাসনিম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রেভল্যুশনারি গার্ডসের কমান্ডার মেজর জেনারেল হোসেইন সালামি বলেছেন, ইরানের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার বিশদ পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই এই প্রদর্শনী।

ইরানের সঙ্গে করা পরমাণু চুক্তি থেকে ২০১৮ সালে বেরিয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র। এরপর থেকে ইরানের বিরুদ্ধে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে চলেছে দেশটি। 

গত জানুয়ারিতে ইরাকের বাগদাদে যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় নিহত হন ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডসের মেজর জেনারেল কাশেম সোলাইমানি। এর জবাবে ইরাকে মার্কিন ঘাঁটি লক্ষ্য করে বেশ কিছু ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। সেই থেকে দেশ দুটির মধ্যে উত্তেজনার পারদ বেড়েই চলেছে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন-ইরান সংকট