নতুন অপারেশন নিয়ে তুরস্ক-আজারবাইজানের আলোচনা
jugantor
নতুন অপারেশন নিয়ে তুরস্ক-আজারবাইজানের আলোচনা

  অনলাইন ডেস্ক  

১৭ অক্টোবর ২০২০, ২০:২২:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ফাইল ছবি

আর্মেনিয়ার দখলে থাকা আজারবাইজান নাগোরনো-কারাবাখের নতুন অঞ্চল পুনরুদ্ধার নিয়ে নতুন অপারেশন নিয়ে আলোচনা করেছেন তুর্কি প্রতিরক্ষামন্ত্রী হুলুসি আকার ও আজারবাইজানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী কর্নেল জেনারেল (অব) জাকির হাসানুভ।

তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতির বরাত দিয়ে শনিবার এ তথ্য জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আনাদলু এজেন্সি।

আজারবাইজানের বেসামরিক বসতিতে আর্মেনিয়ার মিসাইল হামলার পর দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর ওই ফোনালাপ অনুষ্ঠিত হয়।

পরে এক বিবৃতিতে তুর্কি প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, আজারবাইজানের বেসামরিক লোকজনের ওপর আর্মেনিয়ার যুদ্ধাপরাধ ও জঘন্য গণহত্যার বিষয়ে যারা নিরবতা পালন করছে-ইতিহাস তাদের কাউকে ক্ষমা করবে না।

আজারবাইজানের পাশের থাকার কথা পুনর্ব্যক্ত করে তুরস্কের সাবেক এ সেনাপ্রধান বলেন, যারা যুদ্ধবিরতি ও আলোচনার আহ্বান জানাচ্ছেন তারাই এখন আর্মেনিয়া যুদ্ধাপরাধ দূর থেকে দেখছেন।

ন্যানজা শহরে বেসামরিক লোকদের ওপর হামলার ঘটনা নিয়ে বিশ্বনেতাদের উদ্দেশ তুর্কি প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, আর্মেনিয়া আবারও আমাদের আজারবাইজানের ভাইবোনদের ওপর গণহত্যা চালিয়েছে। তারা নারী, শিশু ও বৃদ্ধদেরকেও হত্যা করছে। যারা বেসামরিক লোকদের ওপর মিসাইল হামলা চালাচ্ছে তাদেরকে জবাবদিহি করতে হবে। জঘন্য এ কর্মকাণ্ডের পরও যারা নিরব রয়েছেন ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করবে না।

হুলুসি আকার আরও বলেন, আমরা আমাদের আজারবাইজানি তুর্কি ভাইবোনদের লড়াইয়ের পাশে আছি। তাদের আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও নিজের ভূমি উদ্ধারে আমাদের সমর্থন সবসময় আছে। আর্মেনিয়ার দুটো ফাইটার জেট ভূপাতিত করায় আজারবাইজানের সেনাদের অভিনন্দন জানান তুরস্কের সাবেক এ সেনাপ্রধান।

তুর্কি প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন,আজারবাইজানের বীরসেনাদের সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধ থেকে পালিয়ে গেছে আর্মেনিয়া। তারা এখন কাপুরুষচিতভাবে গ্যানজা শহরের বেসামরিক স্থাপনায় মিসাইল হামলা চালিয়েছে। আজারবাইজানের বীরসেনারা এর জবাব ফ্রন্টলাইনেই দেবে।

তুর্কি প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, আর্মেনিয়া সেনাবাহিনী ‘চরম হতাশায়’ মানবতার বিরুদ্ধে প্রতিদিন নতুন নতুন অপরাধ করছে।

প্রসঙ্গত,আর্মেনিয়ার ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে আজারবাইজানের গ্যাঞ্জা শহরে অন্তত ১৩ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। এ হামলায় আহত হয়েছেন আরও ৪০ জন।

আজারবাইজান জানিয়েছে, দেশটির দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর গ্যাঞ্জাতে আর্মেনিয়ার সেনাবাহিনীর ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র একটি অ্যাপার্টমেন্ট ভবনে আঘাত হেনেছে।

আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভের এক সহকারী হিকমত হাজিয়েভ টুইটারে জানিয়েছে, প্রাথমিক তথ্য অনুসারে ২০টির বেশ বাড়ি ধ্বংস হয়েছে।

আর্মেনিয়া এই খবর প্রত্যাখ্যান করে বলেছে, আজারবাইজান নাগোরনো-কারাবাখের স্টেপানাকার্টে গোলাবর্ষণ অব্যাহত রেখেছে।

নতুন অপারেশন নিয়ে তুরস্ক-আজারবাইজানের আলোচনা

 অনলাইন ডেস্ক 
১৭ অক্টোবর ২০২০, ০৮:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

আর্মেনিয়ার দখলে থাকা আজারবাইজান নাগোরনো-কারাবাখের নতুন অঞ্চল পুনরুদ্ধার নিয়ে নতুন অপারেশন নিয়ে আলোচনা করেছেন তুর্কি প্রতিরক্ষামন্ত্রী হুলুসি আকার ও আজারবাইজানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী কর্নেল জেনারেল (অব) জাকির হাসানুভ।  

তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতির বরাত দিয়ে শনিবার এ তথ্য জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আনাদলু এজেন্সি। 

আজারবাইজানের বেসামরিক বসতিতে আর্মেনিয়ার মিসাইল হামলার পর দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর ওই ফোনালাপ অনুষ্ঠিত হয়। 

পরে এক বিবৃতিতে তুর্কি প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, আজারবাইজানের বেসামরিক লোকজনের ওপর আর্মেনিয়ার যুদ্ধাপরাধ ও জঘন্য গণহত্যার বিষয়ে যারা নিরবতা পালন করছে-ইতিহাস তাদের কাউকে ক্ষমা করবে না। 

আজারবাইজানের পাশের থাকার কথা পুনর্ব্যক্ত করে তুরস্কের সাবেক এ সেনাপ্রধান বলেন, যারা যুদ্ধবিরতি ও আলোচনার আহ্বান জানাচ্ছেন তারাই এখন আর্মেনিয়া যুদ্ধাপরাধ দূর থেকে দেখছেন। 

ন্যানজা শহরে বেসামরিক লোকদের ওপর হামলার ঘটনা নিয়ে  বিশ্বনেতাদের উদ্দেশ তুর্কি প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন,  আর্মেনিয়া আবারও আমাদের আজারবাইজানের ভাইবোনদের ওপর গণহত্যা চালিয়েছে। তারা নারী, শিশু ও বৃদ্ধদেরকেও হত্যা করছে। যারা বেসামরিক লোকদের ওপর মিসাইল হামলা চালাচ্ছে তাদেরকে জবাবদিহি করতে হবে।  জঘন্য এ কর্মকাণ্ডের পরও যারা নিরব রয়েছেন ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করবে না। 

হুলুসি আকার আরও বলেন, আমরা আমাদের আজারবাইজানি তুর্কি ভাইবোনদের লড়াইয়ের পাশে আছি। তাদের আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও নিজের ভূমি উদ্ধারে আমাদের সমর্থন সবসময় আছে।  আর্মেনিয়ার দুটো ফাইটার জেট ভূপাতিত করায় আজারবাইজানের সেনাদের অভিনন্দন জানান তুরস্কের সাবেক এ সেনাপ্রধান। 

তুর্কি প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, আজারবাইজানের বীরসেনাদের সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধ থেকে পালিয়ে গেছে আর্মেনিয়া। তারা এখন কাপুরুষচিতভাবে গ্যানজা শহরের বেসামরিক স্থাপনায়  মিসাইল হামলা চালিয়েছে। আজারবাইজানের বীরসেনারা এর জবাব ফ্রন্টলাইনেই দেবে। 

তুর্কি প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, আর্মেনিয়া সেনাবাহিনী ‘চরম হতাশায়’ মানবতার বিরুদ্ধে প্রতিদিন নতুন নতুন অপরাধ করছে। 

প্রসঙ্গত, আর্মেনিয়ার ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে আজারবাইজানের গ্যাঞ্জা শহরে অন্তত ১৩ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। এ হামলায় আহত হয়েছেন আরও ৪০ জন।

আজারবাইজান জানিয়েছে, দেশটির দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর গ্যাঞ্জাতে আর্মেনিয়ার সেনাবাহিনীর ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র একটি অ্যাপার্টমেন্ট ভবনে আঘাত হেনেছে।

আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভের এক সহকারী হিকমত হাজিয়েভ টুইটারে জানিয়েছে, প্রাথমিক তথ্য অনুসারে ২০টির বেশ বাড়ি ধ্বংস হয়েছে।

আর্মেনিয়া এই খবর প্রত্যাখ্যান করে বলেছে, আজারবাইজান নাগোরনো-কারাবাখের স্টেপানাকার্টে গোলাবর্ষণ অব্যাহত রেখেছে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : আর্মেনিয়া-আজারবাইজান সংঘাত

আরও খবর