কানাডায় ৬৯ মিলিয়ন বছরের পুরনো ডাইনোসরের জীবাশ্মের সন্ধান
jugantor
কানাডায় ৬৯ মিলিয়ন বছরের পুরনো ডাইনোসরের জীবাশ্মের সন্ধান

  অনলাইন ডেস্ক  

১৮ অক্টোবর ২০২০, ১৩:৩০:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

কানাডায় ৬৯ মিলিয়ন বছরের পুরনো ডাইনোসরের জীবাশ্মের সন্ধান মিলেছে।

নাথন হ্রাশকিন নামে ১২ বছর বয়সী এক কিশোর তার বাবার সঙ্গে কানাডার আলবার্টায় ব্যাডলান্ড্যাসের হর্সশো ক্যানিয়ায় ভ্রমণ করার সময় জীবাশ্মগুলো দেখতে পায়। খবর বিবিসি ও সিএনএনের।

কিশোর নাথন বলেন, দুপুরের খাবারের পর পাহাড়ে ওঠার সময় প্রাণীর কিছু হাড়ের অংশ দেখতে পাই।

নাথনের বাবা ডিওন বলেন, জীবাশ্মগুলো খুব স্পষ্ট ছিল। যেন কার্টুনের দৃশ্যের মতো। পরে হাড়ের ছবি প্যালিনটোলজি মিউজিয়ামে পাঠানো হয়।

এগুলো জীবাশ্ম হিসেবে চিহ্নিত করার পর প্রত্নতত্ত্ববিদদের একটি দলকে সেই পাহাড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়।

কিশোর জানায়, জীবাশ্মটি পাওয়া আমার কাছে রীতিমতো সত্যিকারের ডাইনোসরকে আবিষ্কার করার মতো অনুভূতি হচ্ছে। যদিও এটি আমার কাছে স্বপ্নের মতো।

৬৯ বছর আগে হাঁস-বিল্ড নামে এক ধরনের ডাইনোসর ছিল। জীবাশ্মটি ছিল মূলত এ ধরনের ডাইনোসরের বাহু থেকে হিউমারাস হাড়ের অংশ।

এদিকে এ ঘটনার পর বিমানবাহিনী প্রায় দুই মাস সন্ধান চালিয়ে আরও ৩০ থেকে ৫০টি হাড়ের খোঁজ পায়।

এক বিবৃতিতে বলা হয়, আলবার্টার ব্যাডলান্ড্যাসে কয়েক ধরনের জীবাম্ম পাওয়া গেছে।

কিশোর নাথন ও তার বাবার আবিষ্কারের পর বেশ কয়েকবার সেই স্থানগুলোতে খোঁজ নেয় বিশেষজ্ঞ দল। গত বৃহস্পতিবার শেষ সন্ধান চালান তারা।

নাথন বলেন, আমাদের আবিষ্কার করা জায়গাটিতে বিশেষজ্ঞদের উপস্থিতি বেশ ভালো লাগছে।

কানাডায় ৬৯ মিলিয়ন বছরের পুরনো ডাইনোসরের জীবাশ্মের সন্ধান

 অনলাইন ডেস্ক 
১৮ অক্টোবর ২০২০, ০১:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কানাডায় ৬৯ মিলিয়ন বছরের পুরনো ডাইনোসরের জীবাশ্মের সন্ধান মিলেছে।

নাথন হ্রাশকিন নামে ১২ বছর বয়সী এক কিশোর তার বাবার সঙ্গে কানাডার আলবার্টায় ব্যাডলান্ড্যাসের হর্সশো ক্যানিয়ায় ভ্রমণ করার সময় জীবাশ্মগুলো দেখতে পায়। খবর বিবিসি ও সিএনএনের।

কিশোর নাথন বলেন, দুপুরের খাবারের পর পাহাড়ে ওঠার সময় প্রাণীর কিছু হাড়ের অংশ দেখতে পাই।

নাথনের বাবা ডিওন বলেন, জীবাশ্মগুলো খুব স্পষ্ট ছিল। যেন কার্টুনের দৃশ্যের মতো। পরে হাড়ের ছবি প্যালিনটোলজি মিউজিয়ামে পাঠানো হয়।

এগুলো জীবাশ্ম হিসেবে চিহ্নিত করার পর প্রত্নতত্ত্ববিদদের একটি দলকে সেই পাহাড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়।

কিশোর জানায়, জীবাশ্মটি পাওয়া আমার কাছে রীতিমতো সত্যিকারের ডাইনোসরকে আবিষ্কার করার মতো অনুভূতি হচ্ছে। যদিও এটি আমার কাছে স্বপ্নের মতো।

৬৯ বছর আগে হাঁস-বিল্ড নামে এক ধরনের ডাইনোসর ছিল। জীবাশ্মটি ছিল মূলত এ ধরনের ডাইনোসরের বাহু থেকে হিউমারাস হাড়ের অংশ।

এদিকে এ ঘটনার পর বিমানবাহিনী প্রায় দুই মাস সন্ধান চালিয়ে আরও ৩০ থেকে ৫০টি হাড়ের খোঁজ পায়।

এক বিবৃতিতে বলা হয়, আলবার্টার ব্যাডলান্ড্যাসে কয়েক ধরনের জীবাম্ম  পাওয়া গেছে।

কিশোর নাথন ও তার বাবার আবিষ্কারের পর বেশ কয়েকবার সেই স্থানগুলোতে খোঁজ নেয় বিশেষজ্ঞ দল। গত বৃহস্পতিবার শেষ সন্ধান চালান তারা।

নাথন বলেন, আমাদের আবিষ্কার করা জায়গাটিতে বিশেষজ্ঞদের উপস্থিতি বেশ ভালো লাগছে।