যুক্তরাষ্ট্রে ১৫ বিদেশি শিক্ষার্থী গ্রেফতার
jugantor
যুক্তরাষ্ট্রে ১৫ বিদেশি শিক্ষার্থী গ্রেফতার

  ছাবেদ সাথী, নিউইয়র্ক থেকে   

২৩ অক্টোবর ২০২০, ২২:০১:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

শিক্ষার্থী ভিসার শর্ত ভেঙে অন্যত্র কর্মরত থাকায় এক বাংলাদেশিসহ মোট ১৫ বিদেশি শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট (আইস)।

অপারেশন অপটিক্যাল ইল্যুশনের আওতায় তাদের গ্রেফতার করা হয়। স্টুডেন্ট ওয়ার্ক ভিসা দিয়ে ‘প্রতারণা’ করে যুক্তরাষ্ট্রের বসবাসের অভিযোগে বুধবার তাদের গ্রেফতার করা হয়।

নিয়ম ‘মানছেন না’ এমন আরও ১ হাজার ১০০ বিদেশি শিক্ষার্থীকে শনাক্ত করেছে বলে জানিয়েছে আইস।

মার্কিন গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, অভিযুক্ত শিক্ষার্থীরা যেসব কোম্পানির হয়ে কর্মরত থাকার দাবি করেছিলেন তারা বর্তমানে সেসব কোম্পানিতে আর বহাল নেই।

আইস ডিরেক্টর টনি ফ্যাম এ ব্যাপারে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, অনাভিবাসী যেকোনো শিক্ষার্থী যদি শর্ত না মানে বা নিয়ম লঙ্ঘন করে তাদের গ্রেফতার করা হবে। এমনকি যুক্তরাষ্ট্র থেকে বহিষ্কার করা হবে।

আইস ডিরেক্টর টনি ফ্যাম আরও বলেছেন, নিয়ম না মানা অভিবাসীদের সন্ধানে জানুয়ারি থেকে তদন্ত শুরু হয়, যার নাম দেয়া হয়েছে অপারেশন অপটিক্যাল ইল্যুশন। এটি সবে শুরু হল। আমরা আরও কঠিন সিদ্ধান্তে যাব। বুধবার গ্রেফতার হওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে ১১ জন ভারতীয়, দুজন লিবিয়ান। বাকি দুজনের বাড়ি সেনেগাল এবং বাংলাদেশে।

এর আগে মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক শহরকে অবৈধ অভিবাসীদের অভয়ারণ্য হিসেবে চিহ্নিত করেছেন মার্কিন ইমিগ্রেশন এবং শুল্ক প্রয়োগকারী (আইসিই) কর্মকর্তারা।

যে কারণে শহরটিতে ঝটিকা অভিযান চালানো হয়। সেখান থেকে মঙ্গলবার ৫৪ অবৈধ অভিবাসীকে গ্রেফতার করা হয়। যাদের বিরুদ্ধে শিশু নির্যাতন-ধর্ষণ, মাদক ব্যবসার মতো বড় কিছু অভিযোগ রয়েছে।
গ্রেফতার হওয়া অভিবাসীরা- চীন, ডোমিনিকান রিপাবলিক, ইকুয়েডর, এল সালভাডর, গুয়াতেমালা, গ্রেনাডা, গায়ানা, হন্ডুরাস, আয়ারল্যান্ড, জামাইকা, মেক্সিকো, মোল্দোভা, মোজাম্বিক, পাকিস্তান, পানামা, পেরু এবং সেন্ট লুসিয়ার নাগরিক। তাদের বিরুদ্ধে হামলা, শিশুর যৌন নির্যাতন, ধর্ষণ, ভারি আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার, চুরি, সম্পত্তি দখল, মাদক ব্যবসা, মাদক সেবনের পর গাড়ি চালানো, ডাকাতি এবং গ্র্যান্ড লারসিনির মতো অভিযোগ রয়েছে।

নিউইয়র্ক সিটির বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এ ছাড়া নাসাও, সাফলক, ডাচেস, আলস্টার এবং ওয়েস্টচেস্টারের প্রতিবেশী কাউন্টিগুলোতে গ্রেফতার অভিযান চলে।

যুক্তরাষ্ট্রে ১৫ বিদেশি শিক্ষার্থী গ্রেফতার

 ছাবেদ সাথী, নিউইয়র্ক থেকে  
২৩ অক্টোবর ২০২০, ১০:০১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শিক্ষার্থী ভিসার শর্ত ভেঙে অন্যত্র কর্মরত থাকায় এক বাংলাদেশিসহ মোট ১৫ বিদেশি শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট (আইস)। 

অপারেশন অপটিক্যাল ইল্যুশনের আওতায় তাদের গ্রেফতার করা হয়। স্টুডেন্ট ওয়ার্ক ভিসা দিয়ে ‘প্রতারণা’ করে যুক্তরাষ্ট্রের বসবাসের অভিযোগে বুধবার তাদের গ্রেফতার করা হয়। 

নিয়ম ‘মানছেন না’ এমন আরও ১ হাজার ১০০ বিদেশি শিক্ষার্থীকে শনাক্ত করেছে বলে জানিয়েছে আইস।

মার্কিন গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, অভিযুক্ত শিক্ষার্থীরা যেসব কোম্পানির হয়ে কর্মরত থাকার দাবি করেছিলেন তারা বর্তমানে সেসব কোম্পানিতে আর বহাল নেই। 

আইস ডিরেক্টর টনি ফ্যাম এ ব্যাপারে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, অনাভিবাসী যেকোনো শিক্ষার্থী যদি শর্ত না মানে বা নিয়ম লঙ্ঘন করে তাদের গ্রেফতার করা হবে। এমনকি যুক্তরাষ্ট্র থেকে বহিষ্কার করা হবে।

আইস ডিরেক্টর টনি ফ্যাম আরও বলেছেন, নিয়ম না মানা অভিবাসীদের সন্ধানে জানুয়ারি থেকে তদন্ত শুরু হয়, যার নাম দেয়া হয়েছে অপারেশন অপটিক্যাল ইল্যুশন। এটি সবে শুরু হল। আমরা আরও কঠিন সিদ্ধান্তে যাব। বুধবার গ্রেফতার হওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে ১১ জন ভারতীয়, দুজন লিবিয়ান। বাকি দুজনের বাড়ি সেনেগাল এবং বাংলাদেশে।

এর আগে মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক শহরকে অবৈধ অভিবাসীদের অভয়ারণ্য হিসেবে চিহ্নিত করেছেন মার্কিন ইমিগ্রেশন এবং শুল্ক প্রয়োগকারী (আইসিই) কর্মকর্তারা। 

যে কারণে শহরটিতে ঝটিকা অভিযান চালানো হয়। সেখান থেকে মঙ্গলবার ৫৪ অবৈধ অভিবাসীকে গ্রেফতার করা হয়। যাদের বিরুদ্ধে শিশু নির্যাতন-ধর্ষণ, মাদক ব্যবসার মতো বড় কিছু অভিযোগ রয়েছে।
গ্রেফতার হওয়া অভিবাসীরা- চীন, ডোমিনিকান রিপাবলিক, ইকুয়েডর, এল সালভাডর, গুয়াতেমালা, গ্রেনাডা, গায়ানা, হন্ডুরাস, আয়ারল্যান্ড, জামাইকা, মেক্সিকো, মোল্দোভা, মোজাম্বিক, পাকিস্তান, পানামা, পেরু এবং সেন্ট লুসিয়ার নাগরিক। তাদের বিরুদ্ধে হামলা, শিশুর যৌন নির্যাতন, ধর্ষণ, ভারি আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার, চুরি, সম্পত্তি দখল, মাদক ব্যবসা, মাদক সেবনের পর গাড়ি চালানো, ডাকাতি এবং গ্র্যান্ড লারসিনির মতো অভিযোগ রয়েছে।

নিউইয়র্ক সিটির বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এ ছাড়া নাসাও, সাফলক, ডাচেস, আলস্টার এবং ওয়েস্টচেস্টারের প্রতিবেশী কাউন্টিগুলোতে গ্রেফতার অভিযান চলে।