রোহিঙ্গাদের জন্য আরও ২০০ মিলিয়ন ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র
jugantor
রোহিঙ্গাদের জন্য আরও ২০০ মিলিয়ন ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র

  ছাবেদ সাথী, নিউইয়র্ক থেকে  

২৩ অক্টোবর ২০২০, ২২:১৯:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

রোহিঙ্গাদের জন্য আরও ২০০ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। রোহিঙ্গা শরণার্থী দাতা সম্মেলনে বাংলাদেশে ও এ অঞ্চলে বসবাসরত রোহিঙ্গা শরণার্থী ও স্থানীয় জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি মিয়ানমার অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা এবং সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্ত মিয়ানমারের অন্যান্য সম্প্রদায়ের জন্য মানবিক সহায়তা হিসেবে অতিরিক্ত ২০০ মিলিয়ন ইউএস ডলার দেয়ার ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র।

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সহায়তা করার জন্য আয়োজিত দাতাদের ভার্চুয়াল সম্মেলন ‘সাসটেইনিং সাপোর্ট ফর দ্য রোহিঙ্গা রিফিউজি রেসপন্স’ অনুষ্ঠানে এ ঘোষণা দেয়া হয় দেশটির পক্ষ থেকে।

বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত সম্মেলনটি যৌথভাবে আয়োজন করে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর।

এ তহবিল বাংলাদেশে অবস্থিত রোহিঙ্গা শরণার্থী, স্থানীয় জনগোষ্ঠী এবং মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে ২০১৭ সালের আগস্টে পরিচালিত জাতিগত নির্মূল অভিযান থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের জীবন রক্ষামূলক সহায়তার কাজে ব্যবহার করা হবে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।

রোহিঙ্গাদের জন্য আরও ২০০ মিলিয়ন ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র

 ছাবেদ সাথী, নিউইয়র্ক থেকে 
২৩ অক্টোবর ২০২০, ১০:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রোহিঙ্গাদের জন্য আরও ২০০ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। রোহিঙ্গা শরণার্থী দাতা সম্মেলনে বাংলাদেশে ও এ অঞ্চলে বসবাসরত রোহিঙ্গা শরণার্থী ও স্থানীয় জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি মিয়ানমার অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা এবং সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্ত মিয়ানমারের অন্যান্য সম্প্রদায়ের জন্য মানবিক সহায়তা হিসেবে অতিরিক্ত ২০০ মিলিয়ন ইউএস ডলার দেয়ার ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। 

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সহায়তা করার জন্য আয়োজিত দাতাদের ভার্চুয়াল সম্মেলন ‘সাসটেইনিং সাপোর্ট ফর দ্য রোহিঙ্গা রিফিউজি রেসপন্স’ অনুষ্ঠানে এ ঘোষণা দেয়া হয় দেশটির পক্ষ থেকে।

বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত সম্মেলনটি যৌথভাবে আয়োজন করে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর। 

এ তহবিল বাংলাদেশে অবস্থিত রোহিঙ্গা শরণার্থী, স্থানীয় জনগোষ্ঠী এবং মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে ২০১৭ সালের আগস্টে পরিচালিত জাতিগত নির্মূল অভিযান থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের জীবন রক্ষামূলক সহায়তার কাজে ব্যবহার করা হবে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।