নাইজেরিয়ায় বিক্ষোভে নিহত ৬৯
jugantor
নাইজেরিয়ায় বিক্ষোভে নিহত ৬৯

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৪ অক্টোবর ২০২০, ২২:৪২:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

নাইজেরিয়ায় বিক্ষোভে নিহত ৬৯

পুলিশের বিশেষ একটি বাহিনীর বর্বরতার বিরুদ্ধে নাইজেরিয়ায় সাম্প্রতিক বিক্ষোভে অন্তত ৬৯ জন প্রাণ হারিয়েছেন বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদ বুহারি।

নিহতদের বেশির ভাগই বেসামরিক নাগরিক। তবে নিহতদের মধ্যে কিছু পুলিশ এবং সেনাসদস্যও রয়েছেন। খবর এপির।

প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, চলমান অস্থিরতা কাটিয়ে ওঠার পথ খোঁজার জন্য সাবেক নেতাদের সঙ্গে একটি বৈঠক করা হয়েছে। বিক্ষোভ আহ্বানকারীদেরও একটি অংশ জনগণকে রাস্তায় বের না হয়ে বাড়িতে অবস্থান করার আহ্বান জানিয়েছে।

এছাড়া নারীবাদীরা মানুষকে কারফিউ মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন। বিক্ষোভের কেন্দ্রস্থ নাইজেরিয়ার লাগোস শহরে কারফিউ ঘোষণা করা হয়।

পুলিশের বিতর্কিত ইউনিট স্পেশাল অ্যান্ডি রোবারি স্কোয়াড বা সার্স ভেঙে দেওয়ার দাবিতে গত ৭ অক্টোবর থেকে নাইজেরিয়ায় বিক্ষোভ শুরু হয়।

তরুণদের শুরু করা এই আন্দোলন ব্যাপক আকার নিলে ১১ নিলে ওই ইউনিটটি ভেঙে দেন প্রেসিডেন্ট। তারপরও নিরাপত্তা বাহিনী ও দেশ পরিচালনা ব্যবস্থায় আরও সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে বিক্ষোভকারীরা।

নাইজেরিয়ায় বিক্ষোভে নিহত ৬৯

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৪ অক্টোবর ২০২০, ১০:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নাইজেরিয়ায় বিক্ষোভে নিহত ৬৯
ছবি: এপি

পুলিশের বিশেষ একটি বাহিনীর বর্বরতার বিরুদ্ধে নাইজেরিয়ায় সাম্প্রতিক বিক্ষোভে অন্তত ৬৯ জন প্রাণ হারিয়েছেন বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদ বুহারি। 

নিহতদের বেশির ভাগই বেসামরিক নাগরিক। তবে নিহতদের মধ্যে কিছু পুলিশ এবং সেনাসদস্যও রয়েছেন। খবর এপির। 
 
প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, চলমান অস্থিরতা কাটিয়ে ওঠার পথ খোঁজার জন্য সাবেক নেতাদের সঙ্গে একটি বৈঠক করা হয়েছে। বিক্ষোভ আহ্বানকারীদেরও একটি অংশ জনগণকে রাস্তায় বের না হয়ে বাড়িতে অবস্থান করার আহ্বান জানিয়েছে। 

এছাড়া নারীবাদীরা মানুষকে কারফিউ মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন। বিক্ষোভের কেন্দ্রস্থ নাইজেরিয়ার লাগোস শহরে কারফিউ ঘোষণা করা হয়।

পুলিশের বিতর্কিত ইউনিট  স্পেশাল অ্যান্ডি রোবারি স্কোয়াড বা সার্স ভেঙে দেওয়ার দাবিতে গত ৭ অক্টোবর থেকে নাইজেরিয়ায় বিক্ষোভ শুরু হয়। 

তরুণদের শুরু করা এই আন্দোলন ব্যাপক আকার নিলে ১১ নিলে ওই ইউনিটটি ভেঙে দেন প্রেসিডেন্ট। তারপরও নিরাপত্তা বাহিনী ও দেশ পরিচালনা ব্যবস্থায় আরও সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে বিক্ষোভকারীরা।