এ বছর মার্কিন নির্বাচনে খরচ কত? টাকা কারা দিচ্ছেন?
jugantor
এ বছর মার্কিন নির্বাচনে খরচ কত? টাকা কারা দিচ্ছেন?

  তোফাজ্জল লিটন, নিউইয়র্ক থেকে  

৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৬:১৫:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

হাতে গুনে আর কয়েকদিন পরেই মার্কিন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু এ বছর নির্বাচনে কেমন ব্যয় হতে পারে? ২০১৬ সালের নির্বাচনের তুলনায় এ বছর কতটা খরচ বাড়ছে? রাজনীতিতে অর্থ ব্যয়ের সন্ধান করে নিরপেক্ষ সংগঠন সেন্টার ফর রিসপন্টিক পলিটিক্স (সিআরপি)। প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের এবারের নির্বাচনের ব্যয় সর্বকালের রেকর্ড ছড়িয়ে ১৪ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছাবে।

দুই প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেন এবং ডোনাল্ড ট্রাম্প ব্যয় করবেন ৬.৬ বিলিয়ন ডলার। অবশিষ্ট ৭ বিলিয়ন ডলার খরচ করবে ডেমোক্রেট এবং রিপাবলিকান দুই দলের কংগ্রেস নির্বাচনের সকল প্রার্থী মিলে।

নির্বাচনের আগের দিন পর্যন্ত ডেমোক্রেট পার্টি নির্বাচনে ব্যয় করছে ৬. ৬ বিলিয়ন এবং রিপাবলিকরা ৩.৮ বিলিয়ন ডলার। বাকি ৩ মিলিয়নের বেশি ডলার ব্যয় হবে নির্বাচনের দিন। ২০১৬ সালের নির্বাচনে খরচের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ।

গণমাধ্যম সিএসবিসি এবং সিএনএস জানিয়েছে, অনুমান করা হয়েছিল এবারের ফেডারেল নির্বাচনের ব্যয় প্রায় ১১ বিলিয়ন ডলারে শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু শেষ মুহূর্তে সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি অ্যামি কনি ব্যারেটের মনোনয়নের লড়াইয়, প্রেসিডেন্টে নির্বাচনের নানা জরিপ, সিনেট ও হাউজ নির্বাচনের উত্তাপে এই ব্যাপকমাত্রায় ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। রাজনীতিতে অর্থ ব্যয়ের সন্ধান করে নিরপেক্ষ সংগঠন সেন্টার ফর রিসপন্টিক পলিটিক্স (সিআরপি) এই তথ্য দিয়েছে বুধবার।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিআরপি জানিয়েছে, ডেমোক্রেট মনোনীত প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন আমেরিকার ইতিহাসে প্রথম ব্যক্তি যিনি এক বিলিয়ন ডলার অনুদান সংগ্রহ করেছেন। ডোনাল্ড ট্রাম্পের ২০২০ সালের নির্বাচনের সময় ৯৫০ মিলিয়ন ডলার পেয়েছেন তার সর্মথকগোষ্ঠী থেকে। এই অনুদান বাইডেন এবং ট্রাম্পের ব্যক্তিগত। দলের হিসেবে আলাদা।

বাইডেনের জন্য দশজন দাতাই শুধু দিয়েছেন ৬৫০ মিলিয়ন ডলার। দাতাদের মধ্যে সুপার পিএসিএস গ্রুপ অন্যতম। ব্যক্তিগত শীর্ষ দাতাদের মধ্যে আছেন ক্যাসিনো ম্যাগনেট শেল্ডন অ্যাডেলসন এবং তার স্ত্রী মরিয়ম। কোটিপতি ব্যবসায়ী মাইক ব্লুমবার্গ এবং টম স্টিয়ার এবং প্যান এম সিস্টেমসের চেয়ারম্যান টিম মেলন।

নিউইয়র্ক স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. রহমান শফকি বলেন, ট্রাম্প নিজের ট্যাক্স ফাইল করেছেন মাত্র ৭৫০ ডলার। সেই ব্যক্তি নির্বাচনরে সঠিক ব্যয় দেখাবেন এমনটি বিশ্বাসযোগ্য নয়। এই ব্যয় গণতন্ত্রের জন্য মঙ্গলজনক নয়। তবে যাই হোক এবারের নির্বাচনে জয়-পরাজয় আগাম বলা বড় কঠিন হবে।

এ বছর মার্কিন নির্বাচনে খরচ কত? টাকা কারা দিচ্ছেন?

 তোফাজ্জল লিটন, নিউইয়র্ক থেকে 
৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৪:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হাতে গুনে আর কয়েকদিন পরেই মার্কিন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু এ বছর নির্বাচনে কেমন ব্যয় হতে পারে? ২০১৬ সালের নির্বাচনের তুলনায় এ বছর কতটা খরচ বাড়ছে? রাজনীতিতে অর্থ ব্যয়ের সন্ধান করে নিরপেক্ষ সংগঠন সেন্টার ফর রিসপন্টিক পলিটিক্স (সিআরপি)। প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের এবারের নির্বাচনের ব্যয় সর্বকালের রেকর্ড ছড়িয়ে ১৪ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছাবে। 

দুই প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেন এবং ডোনাল্ড ট্রাম্প ব্যয় করবেন ৬.৬ বিলিয়ন ডলার। অবশিষ্ট ৭ বিলিয়ন ডলার খরচ করবে ডেমোক্রেট এবং রিপাবলিকান দুই দলের কংগ্রেস নির্বাচনের সকল প্রার্থী মিলে।  

নির্বাচনের আগের দিন পর্যন্ত ডেমোক্রেট পার্টি নির্বাচনে ব্যয় করছে ৬. ৬ বিলিয়ন এবং রিপাবলিকরা ৩.৮ বিলিয়ন ডলার। বাকি ৩ মিলিয়নের বেশি ডলার ব্যয় হবে নির্বাচনের দিন। ২০১৬ সালের নির্বাচনে খরচের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ।  

গণমাধ্যম সিএসবিসি এবং সিএনএস জানিয়েছে, অনুমান করা হয়েছিল এবারের ফেডারেল নির্বাচনের ব্যয় প্রায় ১১ বিলিয়ন ডলারে শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু শেষ মুহূর্তে সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি অ্যামি কনি ব্যারেটের মনোনয়নের লড়াইয়, প্রেসিডেন্টে নির্বাচনের নানা জরিপ, সিনেট ও হাউজ নির্বাচনের উত্তাপে এই ব্যাপকমাত্রায় ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। রাজনীতিতে অর্থ ব্যয়ের সন্ধান করে নিরপেক্ষ সংগঠন সেন্টার ফর রিসপন্টিক পলিটিক্স (সিআরপি) এই তথ্য দিয়েছে বুধবার।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিআরপি জানিয়েছে, ডেমোক্রেট মনোনীত প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন আমেরিকার ইতিহাসে প্রথম ব্যক্তি যিনি এক বিলিয়ন ডলার অনুদান সংগ্রহ করেছেন। ডোনাল্ড ট্রাম্পের ২০২০ সালের নির্বাচনের সময় ৯৫০ মিলিয়ন ডলার পেয়েছেন তার সর্মথকগোষ্ঠী থেকে। এই অনুদান বাইডেন এবং ট্রাম্পের ব্যক্তিগত। দলের হিসেবে আলাদা।

বাইডেনের জন্য দশজন দাতাই শুধু দিয়েছেন ৬৫০ মিলিয়ন ডলার। দাতাদের মধ্যে সুপার পিএসিএস গ্রুপ অন্যতম। ব্যক্তিগত শীর্ষ দাতাদের মধ্যে আছেন ক্যাসিনো ম্যাগনেট শেল্ডন অ্যাডেলসন এবং তার স্ত্রী মরিয়ম। কোটিপতি ব্যবসায়ী মাইক ব্লুমবার্গ এবং টম স্টিয়ার এবং প্যান এম সিস্টেমসের চেয়ারম্যান টিম মেলন।

নিউইয়র্ক স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. রহমান শফকি বলেন,  ট্রাম্প নিজের ট্যাক্স ফাইল করেছেন মাত্র ৭৫০ ডলার। সেই ব্যক্তি নির্বাচনরে সঠিক ব্যয় দেখাবেন এমনটি বিশ্বাসযোগ্য নয়। এই ব্যয় গণতন্ত্রের জন্য মঙ্গলজনক নয়। তবে যাই হোক এবারের নির্বাচনে জয়-পরাজয় আগাম বলা বড় কঠিন হবে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন-২০২০

আরও খবর