চীন-বাংলাদেশসহ প্রতিবেশীদের জন্য হুমকি ভারত: ইমরান খান
jugantor
চীন-বাংলাদেশসহ প্রতিবেশীদের জন্য হুমকি ভারত: ইমরান খান

  অনলাইন ডেস্ক  

৩১ অক্টোবর ২০২০, ২২:৩৮:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

চীন-বাংলাদেশসহ প্রতিবেশীদের জন্য হুমকি ভারত: ইমরান খান

চীন, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানের জন্য প্রতিবেশী ভারতকে হুমকি হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। চিরবৈরী দেশটিকে একটি ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্র হিসেবে মন্তব্য করেছেন তিনি।

জার্মানির সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন ‘ডের স্পিগেল’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ইমরান খান বলেন, ভারতে এখন উপমহাদেশের সবচেয়ে চরমপন্থী ও বর্ণবাদী সরকার রয়েছে।

১৯২০ ও ১৯৩০–এর দশকে নাৎসি বাহিনীর মূলমন্ত্রে অনুপ্রাণিত তারা। ভারত সব প্রতিবেশী দেশের জন্যই হুমকি।

পাকিস্তানের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যম ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়, কাশ্মীরসহ ভারতের সঙ্গে অমিমাংসীত বিভিন্ন ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হস্তক্ষেপ কামনা করেন ইমরান খান।

এ অঞ্চলকে হটস্পট উল্লেখ করে যেকোনো সময় সেখানে বিশৃঙ্খলা হতে পারে বলে সতর্ক করেন তিনি।

ইমরান বলেন, আমরা আশা করছি বিশ্বের ক্ষমতাধর রাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্র এ বিষয়ে নিরপেক্ষ হবে। নতুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট যে-ই হোন না কেন, এটাই প্রত্যাশা।

চীন-বাংলাদেশসহ প্রতিবেশীদের জন্য হুমকি ভারত: ইমরান খান

 অনলাইন ডেস্ক 
৩১ অক্টোবর ২০২০, ১০:৩৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
চীন-বাংলাদেশসহ প্রতিবেশীদের জন্য হুমকি ভারত: ইমরান খান
ছবি: ডন

চীন, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানের জন্য প্রতিবেশী ভারতকে হুমকি হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। চিরবৈরী দেশটিকে একটি ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্র হিসেবে মন্তব্য করেছেন তিনি।  

জার্মানির সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন ‘ডের স্পিগেল’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ইমরান খান বলেন, ভারতে এখন উপমহাদেশের সবচেয়ে চরমপন্থী ও বর্ণবাদী সরকার রয়েছে। 

১৯২০ ও ১৯৩০–এর দশকে নাৎসি বাহিনীর মূলমন্ত্রে অনুপ্রাণিত তারা। ভারত সব প্রতিবেশী দেশের জন্যই হুমকি।

পাকিস্তানের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যম ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়, কাশ্মীরসহ ভারতের সঙ্গে অমিমাংসীত বিভিন্ন ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হস্তক্ষেপ কামনা করেন ইমরান খান। 

এ অঞ্চলকে হটস্পট উল্লেখ করে যেকোনো সময় সেখানে বিশৃঙ্খলা হতে পারে বলে সতর্ক করেন তিনি।

ইমরান বলেন, আমরা আশা করছি বিশ্বের ক্ষমতাধর রাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্র এ বিষয়ে নিরপেক্ষ হবে। নতুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট যে-ই হোন না কেন, এটাই প্রত্যাশা।