ফ্রান্সকে কঠোর হুশিয়ারি খামেনির
jugantor
ফ্রান্সকে কঠোর হুশিয়ারি খামেনির

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৩ নভেম্বর ২০২০, ২০:৫৮:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ফ্রান্সকে কঠোর হুশিয়ারি খামেনির

মহানবীকে (সা.) বিদ্রূপ করে কার্টুন প্রকাশে সমর্থন করায় ফ্রান্স সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি।

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে মঙ্গলবার ইরানি জনগণ ও মুসলিম উম্মাহর উদ্দেশে বিভিন্ন বিষয়ে দিকনির্দেশনা মূলক বক্তব্য দেন তিনি। খবর ইরনার।

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা বলেন, একজন কার্টুনিস্ট যখন এ ধরনের অবমাননাকর কাজ করে কিংবা একটি পত্রিকা যখন তা প্রকাশ করে তখন বিষয়টি একরকম থাকে আর যখন সেই দেশের সরকারের পক্ষ থেকে এই অপকর্মকে পৃষ্ঠপোষকতা দেয়া হয় তখন সেটি অনেক বেশি জঘন্য চরিত্র ধারণ করে।

খামেনি বলেন, আশার কথা মুসলিম বিশ্ব নীরব থাকেনি। প্রাচ্য থেকে পাশ্চাত্যের সর্বত্র মুসলমানরা তাদের ঈমানি শক্তির পরিচয় দিয়েছেন। তারা তাদের প্রাণপ্রিয় নবীর অবমাননার বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন।

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা বলেন, বিগত বছরগুলোতে আমেরিকা ও ইউরোপীয় দেশগুলোতে বারবার বিশ্বনবীর (সা.) অবমাননা করা হয়েছে। কিন্তু এসবের মাধ্যমে তারা মহানবীর মর্যাদার বিন্দুমাত্র ক্ষতি করতে পারেনি।

যেভাবে মক্কা ও তায়েফের কাফেররা একদিন তাদের অপতৎপরতার মাধ্যমে বিশ্বনবী কিংবা ইসলামের ক্ষতি করতে পারেনি বর্তমানেও পশ্চিমা বিশ্ব এই মহানবী (সা.) বা ইসলামের কোনো ক্ষতি করতে পারবে না।

ফ্রান্সকে কঠোর হুশিয়ারি খামেনির

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৩ নভেম্বর ২০২০, ০৮:৫৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ফ্রান্সকে কঠোর হুশিয়ারি খামেনির
ছবি: ইরনা

মহানবীকে (সা.) বিদ্রূপ করে কার্টুন প্রকাশে সমর্থন করায় ফ্রান্স সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি। 

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে মঙ্গলবার ইরানি জনগণ ও মুসলিম উম্মাহর উদ্দেশে বিভিন্ন বিষয়ে দিকনির্দেশনা মূলক বক্তব্য দেন তিনি। খবর ইরনার। 

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা বলেন, একজন কার্টুনিস্ট যখন এ ধরনের অবমাননাকর কাজ করে কিংবা একটি পত্রিকা যখন তা প্রকাশ করে তখন বিষয়টি একরকম থাকে আর যখন সেই দেশের সরকারের পক্ষ থেকে এই অপকর্মকে পৃষ্ঠপোষকতা দেয়া হয় তখন সেটি অনেক বেশি জঘন্য চরিত্র ধারণ করে। 

খামেনি বলেন, আশার কথা মুসলিম বিশ্ব নীরব থাকেনি। প্রাচ্য থেকে পাশ্চাত্যের সর্বত্র মুসলমানরা তাদের ঈমানি শক্তির পরিচয় দিয়েছেন। তারা তাদের প্রাণপ্রিয় নবীর অবমাননার বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন।

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা বলেন, বিগত বছরগুলোতে আমেরিকা ও ইউরোপীয় দেশগুলোতে বারবার বিশ্বনবীর (সা.) অবমাননা করা হয়েছে। কিন্তু এসবের মাধ্যমে তারা মহানবীর মর্যাদার বিন্দুমাত্র ক্ষতি করতে পারেনি। 

যেভাবে মক্কা ও তায়েফের কাফেররা একদিন তাদের অপতৎপরতার মাধ্যমে বিশ্বনবী কিংবা ইসলামের ক্ষতি করতে পারেনি বর্তমানেও পশ্চিমা বিশ্ব এই মহানবী (সা.) বা ইসলামের কোনো ক্ষতি করতে পারবে না।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ফ্রান্সে ইসলাম অবমাননা