সংবিধানে ৩৭০ ধারা পুনর্বহালের আগে মরতে চাই না: ফারুক আবদুল্লাহ
jugantor
সংবিধানে ৩৭০ ধারা পুনর্বহালের আগে মরতে চাই না: ফারুক আবদুল্লাহ

  অনলাইন ডেস্ক  

০৮ নভেম্বর ২০২০, ০৯:৫২:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও ন্যাশনাল কনফারেন্সের প্রধান ফারুক আবদুল্লাহ বলেছেন, ৩৭০ ও ৩৫-এ ধারা পুনর্বহাল না হওয়া পর্যন্ত মরতে চাই না।

জম্মুর শের-ই-কাশ্মীর ভবনে শুক্রবার দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখার সময় তিনি এ মন্তব্য করেন। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

ডা. ফারুক আবদুল্লাহ বলেন, ‘বিজেপি জম্মু-কাশ্মীরের জনগণের সঙ্গে জমি ও চাকরি সুরক্ষার মিথ্যা দাবি করেছে। বিজেপি ভোটের জন্য কাশ্মীরি পণ্ডিতদের ব্যবহার করেছে। ট্রাম্পের মতো বিজেপি সরকারও বিদায় নেবে।

তিনি বলেন, আমাদের লড়াই একটি আদর্শের বিরুদ্ধে। বিজেপি জনগণকে কেবল ভোটের জন্য ব্যবহার করেছে। ন্যাশনাল কনফারেন্স কখনও দেশবিরোধী হয়নি। বিজেপি বেঈমানদের কেনার কাজ করেছে।

ফারুক আবদুল্লাহ বলেন, আমাদের পাকিস্তানি বলা হচ্ছে– যদি আমরা চাইতাম তা হলে ১৯৪৭ সালেই পাকিস্তানের সঙ্গে যেতে পারতাম। আমরা নিজেদের বিজেপির ভারত নয়, মহাত্মা গান্ধীর ভারতের সঙ্গে যুক্ত করেছি।

তারা যদি আমাকে হত্যা করতে চায়, হত্যা করতে পারে। কিন্তু বাঁচা ও মরার বিষয়টি উপরওয়ালার হাতে আছে। যদিও আমার বয়স ৮০ বছরের বেশি, তবু আমি এখনও জওয়ান।

জম্মু-কাশ্মীরের জনগণকে তাদের অধিকার না দিয়ে আমি মরতে চাই না। আমি বিজেপিকে ভয় পাই না। বিজেপিকে যদি নিজের বাহাদুরি দেখাতে হয় তবে সীমান্তে গিয়ে দেখাক, এখানে নয়।

ওমর আবদুল্লাহ বলেন, সরকার গত এক বছরে কী করেছে? লেফটেন্যান্ট গভর্নরকে জিজ্ঞেস করতে চাই- রাজ্যে কয়টি কারখানা স্থাপন করা হয়েছে? ২০১৯ সালের ৫ আগস্ট ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার সংক্রান্ত গৃহীত সিদ্ধান্তটি ছিল সর্বকালের সবচেয়ে খারাপ সিদ্ধান্ত।

‘বিজেপির ভুল নীতির জন্য জম্মু-কাশ্মীরে সন্ত্রাসবাদ বৃদ্ধি পেয়েছে। ন্যাশনাল কনফারেন্সের আমলে ২০১১-১৪ পর্যন্ত কিছু যুবক বন্দুক তুলে নিয়েছিল, কিন্তু এখন কিশোররাও বন্দুক হাতে তুলে নিয়েছে এবং ক্রমশ তা দ্রুতগতিতে বাড়ছে বলেও ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লাহ মন্তব্য করেন।

সংবিধানে ৩৭০ ধারা পুনর্বহালের আগে মরতে চাই না: ফারুক আবদুল্লাহ

 অনলাইন ডেস্ক 
০৮ নভেম্বর ২০২০, ০৯:৫২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও ন্যাশনাল কনফারেন্সের প্রধান ফারুক আবদুল্লাহ বলেছেন, ৩৭০ ও ৩৫-এ ধারা পুনর্বহাল না হওয়া পর্যন্ত মরতে চাই না।

জম্মুর শের-ই-কাশ্মীর ভবনে শুক্রবার দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখার সময় তিনি এ মন্তব্য করেন। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

ডা. ফারুক আবদুল্লাহ বলেন, ‘বিজেপি জম্মু-কাশ্মীরের জনগণের সঙ্গে জমি ও চাকরি সুরক্ষার মিথ্যা দাবি করেছে। বিজেপি ভোটের জন্য কাশ্মীরি পণ্ডিতদের ব্যবহার করেছে। ট্রাম্পের মতো বিজেপি সরকারও বিদায় নেবে।  

তিনি বলেন, আমাদের লড়াই একটি আদর্শের বিরুদ্ধে। বিজেপি জনগণকে কেবল ভোটের জন্য ব্যবহার করেছে। ন্যাশনাল কনফারেন্স কখনও দেশবিরোধী হয়নি। বিজেপি বেঈমানদের কেনার কাজ করেছে।

ফারুক আবদুল্লাহ বলেন, আমাদের পাকিস্তানি বলা হচ্ছে– যদি আমরা চাইতাম তা হলে ১৯৪৭ সালেই পাকিস্তানের সঙ্গে যেতে পারতাম। আমরা নিজেদের বিজেপির ভারত নয়, মহাত্মা গান্ধীর ভারতের সঙ্গে যুক্ত করেছি।

তারা যদি আমাকে হত্যা করতে চায়, হত্যা করতে পারে। কিন্তু বাঁচা ও মরার বিষয়টি উপরওয়ালার হাতে আছে। যদিও আমার বয়স ৮০ বছরের বেশি, তবু আমি এখনও জওয়ান।

জম্মু-কাশ্মীরের জনগণকে তাদের অধিকার না দিয়ে আমি মরতে চাই না। আমি বিজেপিকে ভয় পাই না। বিজেপিকে যদি নিজের বাহাদুরি দেখাতে হয় তবে সীমান্তে গিয়ে দেখাক, এখানে নয়।

ওমর আবদুল্লাহ বলেন, সরকার গত এক বছরে কী করেছে? লেফটেন্যান্ট গভর্নরকে জিজ্ঞেস করতে চাই- রাজ্যে কয়টি কারখানা স্থাপন করা হয়েছে? ২০১৯ সালের ৫ আগস্ট ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার সংক্রান্ত গৃহীত সিদ্ধান্তটি ছিল সর্বকালের সবচেয়ে খারাপ সিদ্ধান্ত।

‘বিজেপির ভুল নীতির জন্য জম্মু-কাশ্মীরে সন্ত্রাসবাদ বৃদ্ধি পেয়েছে। ন্যাশনাল কনফারেন্সের আমলে ২০১১-১৪ পর্যন্ত কিছু যুবক বন্দুক তুলে নিয়েছিল, কিন্তু এখন কিশোররাও বন্দুক হাতে তুলে নিয়েছে এবং ক্রমশ তা দ্রুতগতিতে বাড়ছে বলেও ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লাহ মন্তব্য করেন।

 

ঘটনাপ্রবাহ : কাশ্মীর সংকট