কর্মসংস্থান না থাকায় জম্মু-কাশ্মীরের যুবকরা অস্ত্র তুলে নিচ্ছে: মেহেবুবা
jugantor
কর্মসংস্থান না থাকায় জম্মু-কাশ্মীরের যুবকরা অস্ত্র তুলে নিচ্ছে: মেহেবুবা

  অনলাইন ডেস্ক  

১০ নভেম্বর ২০২০, ১২:৩৬:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও পিডিপি সভানেত্রী মেহেবুবা মুফতি বলেছেন, উপত্যকার যুবকদের কোনো কর্মসংস্থান নেই। এ কারণে এখন তাদের সামনে অস্ত্র তুলে নেয়া ছাড়া আর কোনো উপায় নেই।

সন্ত্রাসী ক্যাম্পে এ জাতীয় লোকেদের নিয়োগ বাড়তে শুরু করেছে। সোমবার তিনি এ মন্তব্য করেন। খবর জম্মু লিংকের।

বিজেপি নেতা অমিত মালব্য বলেন, যুবসমাজকে উসকে দিয়ে মেহবুবা মুফতি তার রাজনৈতিক ভিত্তি রক্ষায় এ ধরনের বক্তব্য দিচ্ছেন।

মেহেবুবা বলেন, জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা অপসারণের পর বিজেপি সরকার কাশ্মীরের চেয়েও জম্মুর পরিস্থিতি আরও বেশি খারাপ করে দিয়েছে।

জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখের মানুষের কর্মসংস্থান ও জমির অধিকারও কেড়ে নেয়া হয়েছে। এখানকার সম্পদ লুটের পাশাপাশি বিজেপি সরকার এখানকার মানুষের ভূমি ও কর্মসংস্থান ছিনিয়ে নিচ্ছে।

তিনি বলেন, কাশ্মীরের যুবকদের হয় কারাগারে বন্দি করা হচ্ছে, অথবা বন্দুক তুলে নিতে বাধ্য করা হচ্ছে। সরকার এমন পরিস্থিতি তৈরি করেছে যে যুবকদের কাছে কেবল বন্দুক তুলে নেয়া বা কারাগারে যাওয়ার বিকল্প কিছু নেই।

মেহেবুবা বলেন, বিজেপি জম্মু-কাশ্মীরের জমি বিক্রি করতে চায়। বাইরে থেকে লোকেরা এখানে এসে চাকরি করছে, তারা কাশ্মীরে চাকরি পাচ্ছে, কিন্তু আমাদের সন্তানরা চাকরি পাচ্ছে না।

মেহবুবা মুফতি বিহারের রাজনীতিতে উঠে আসা আরজেডি নেতা তেজস্বী যাদবকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। সাম্প্রতিক বিহার বিধানসভা নির্বাচনে তেজস্বী যাদবের দল ‘বিজেপি-জেডিইউ’ সমন্বিত এনডিএ জোটকে পরাজিত করতে সমর্থ হবে বলে নির্বাচনী জরিপে পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে।

মেহেবুবা বলেন, ৩৭০ ধারার মধ্য দিয়ে জম্মু-কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা দেয়ার ক্ষেত্রে সরদার প্যাটেল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। আমরা সুদসহ ৩৭০ ধারা ফিরিয়ে এনেই ছাড়ব। জম্মু-কাশ্মীরের পতাকা দেশের পতাকার মতোই তার কাছে প্রিয় বলেও পিডিপি সভানেত্রী মেহেবুবা মুফতি মন্তব্য করেন।

কর্মসংস্থান না থাকায় জম্মু-কাশ্মীরের যুবকরা অস্ত্র তুলে নিচ্ছে: মেহেবুবা

 অনলাইন ডেস্ক 
১০ নভেম্বর ২০২০, ১২:৩৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও পিডিপি সভানেত্রী মেহেবুবা মুফতি বলেছেন, উপত্যকার যুবকদের কোনো কর্মসংস্থান নেই। এ কারণে এখন তাদের সামনে অস্ত্র তুলে নেয়া ছাড়া আর কোনো উপায় নেই।

সন্ত্রাসী ক্যাম্পে এ জাতীয় লোকেদের নিয়োগ বাড়তে শুরু করেছে। সোমবার তিনি এ মন্তব্য করেন। খবর জম্মু লিংকের।

বিজেপি নেতা অমিত মালব্য বলেন, যুবসমাজকে উসকে দিয়ে মেহবুবা মুফতি তার রাজনৈতিক ভিত্তি রক্ষায় এ ধরনের বক্তব্য দিচ্ছেন।  

মেহেবুবা বলেন, জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা অপসারণের পর বিজেপি সরকার কাশ্মীরের চেয়েও জম্মুর পরিস্থিতি আরও বেশি খারাপ করে দিয়েছে।

জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখের মানুষের কর্মসংস্থান ও জমির অধিকারও কেড়ে নেয়া হয়েছে। এখানকার সম্পদ লুটের পাশাপাশি বিজেপি সরকার এখানকার মানুষের ভূমি ও কর্মসংস্থান ছিনিয়ে নিচ্ছে।

তিনি বলেন, কাশ্মীরের যুবকদের হয় কারাগারে বন্দি করা হচ্ছে, অথবা বন্দুক তুলে নিতে বাধ্য করা হচ্ছে। সরকার এমন পরিস্থিতি তৈরি করেছে যে যুবকদের কাছে কেবল বন্দুক তুলে নেয়া বা কারাগারে যাওয়ার বিকল্প কিছু নেই।

মেহেবুবা বলেন, বিজেপি জম্মু-কাশ্মীরের জমি বিক্রি করতে চায়। বাইরে থেকে লোকেরা এখানে এসে চাকরি করছে, তারা কাশ্মীরে চাকরি পাচ্ছে, কিন্তু আমাদের সন্তানরা চাকরি পাচ্ছে না।

মেহবুবা মুফতি বিহারের রাজনীতিতে উঠে আসা আরজেডি নেতা তেজস্বী যাদবকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। সাম্প্রতিক বিহার বিধানসভা নির্বাচনে তেজস্বী যাদবের দল ‘বিজেপি-জেডিইউ’ সমন্বিত এনডিএ জোটকে পরাজিত করতে সমর্থ হবে বলে নির্বাচনী জরিপে পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে।

মেহেবুবা বলেন, ৩৭০ ধারার মধ্য দিয়ে জম্মু-কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা দেয়ার ক্ষেত্রে সরদার প্যাটেল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। আমরা সুদসহ ৩৭০ ধারা ফিরিয়ে এনেই ছাড়ব। জম্মু-কাশ্মীরের পতাকা দেশের পতাকার মতোই তার কাছে প্রিয় বলেও পিডিপি সভানেত্রী মেহেবুবা মুফতি মন্তব্য করেন।

 

ঘটনাপ্রবাহ : কাশ্মীর সংকট