আর্মেনিয়াকে কড়া বার্তা আজারবাইজানের প্রেসিডেন্টের
jugantor
আর্মেনিয়াকে কড়া বার্তা আজারবাইজানের প্রেসিডেন্টের

  অনলাইন ডেস্ক  

১৯ নভেম্বর ২০২০, ১৭:১০:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ইলহাম আলিয়েভ

আজারবাইজানি ভূখণ্ডে অপরাধ সংঘটন করায় আন্তর্জাতিক আদালতে আর্মেনিয়াকে জবাবদিহিতা করতে হবে মন্তব্য করেছেন আজেরি প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ।গত সোমবার নাগোরনো-কারাবাখের দখলমুক্ত অঞ্চলে সফরে গিয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

তিন দশক পর আর্মেনিয়ার দখল থেকে উদ্ধার হওয়া ফুজুলি ও জাবরাইল অঞ্চলে সেনাবাহিনীর পোশাক পরে সফরে যান প্রেসিডেন্ট আলিয়েভ। এ সময় তার সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ফাস্টলেডি মেহরিবান আলিয়েভা।

আলিয়েভ জানান, আর্মেনীয়রা এই অঞ্চলটি ত্যাগ করার সময় সব দালান ধ্বংস ও লুটপাট চালিয়েছে। আর্মেনীয়দের উদ্দেশ আজারবাইজানিরা যেন এখানে বসবাস না করতে পারেন।

আলিয়েভ বলেন, আমরা এখানে বাস করব!আমরা এখান চিরদিনের জন্য বাস করব!আমরা পুনরায় দালানগুলো মেরামত করব, সবকিছু করব।

আন্তর্জাতিকভাবে নাগোরনো-কারাবাখ আজারবাইজানের ভূখণ্ড হিসেবে স্বীকৃত। ১৯৯০ এর দশকে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের দুই দেশের মধ্যে সংঘাতে ৩০ হাজার মানুষ নিহত হয়। সেই সময় বিরোধীয় অঞ্চলটির নিয়ন্ত্রণ নেয় জাতিগত আর্মেনীয়রা।

সর্বশেষ আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে নতুন করে যুদ্ধ শুরু হয়। ছয় সপ্তাহ চলা যুদ্ধে আজারবাইজান কারাবাখে দ্বিতীয় বৃহত্তর শহর শুশা দখল করে। আজারবাইজানের একের পর এক হামলায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে আর্মেনীয় বাহিনী। এরপরই রাশিয়ার হস্তক্ষেপে দুই দেশের মধ্যে ১০ নভেম্বর শান্তি চুক্তি হয়।এর ফলে যুদ্ধ ছাড়াই কয়েকটি অঞ্চলের দখল আসবে আজারবাইজানের হাতে।

ইয়েনি শাফাক

আর্মেনিয়াকে কড়া বার্তা আজারবাইজানের প্রেসিডেন্টের

 অনলাইন ডেস্ক 
১৯ নভেম্বর ২০২০, ০৫:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ইলহাম আলিয়েভ
ইলহাম আলিয়েভ। ফাইল ছবি

আজারবাইজানি ভূখণ্ডে অপরাধ সংঘটন করায় আন্তর্জাতিক আদালতে আর্মেনিয়াকে জবাবদিহিতা করতে হবে মন্তব্য করেছেন আজেরি প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ।গত সোমবার নাগোরনো-কারাবাখের দখলমুক্ত অঞ্চলে সফরে গিয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন। 

তিন দশক পর আর্মেনিয়ার দখল থেকে উদ্ধার হওয়া ফুজুলি ও জাবরাইল অঞ্চলে সেনাবাহিনীর পোশাক পরে সফরে যান প্রেসিডেন্ট আলিয়েভ।  এ সময় তার সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ফাস্টলেডি মেহরিবান আলিয়েভা।  

আলিয়েভ জানান, আর্মেনীয়রা এই অঞ্চলটি ত্যাগ করার সময় সব দালান ধ্বংস ও লুটপাট চালিয়েছে। আর্মেনীয়দের উদ্দেশ আজারবাইজানিরা যেন এখানে বসবাস না করতে পারেন। 

আলিয়েভ বলেন, আমরা এখানে বাস করব!আমরা এখান চিরদিনের জন্য বাস করব!আমরা পুনরায় দালানগুলো মেরামত করব, সবকিছু করব। 

আন্তর্জাতিকভাবে নাগোরনো-কারাবাখ আজারবাইজানের ভূখণ্ড হিসেবে স্বীকৃত। ১৯৯০ এর দশকে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের দুই দেশের মধ্যে সংঘাতে ৩০ হাজার মানুষ নিহত হয়। সেই সময় বিরোধীয় অঞ্চলটির নিয়ন্ত্রণ নেয় জাতিগত আর্মেনীয়রা। 

সর্বশেষ আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে নতুন করে যুদ্ধ শুরু হয়। ছয় সপ্তাহ চলা যুদ্ধে আজারবাইজান কারাবাখে দ্বিতীয় বৃহত্তর শহর শুশা দখল করে। আজারবাইজানের একের পর এক হামলায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে আর্মেনীয় বাহিনী। এরপরই রাশিয়ার হস্তক্ষেপে দুই দেশের মধ্যে ১০ নভেম্বর শান্তি চুক্তি হয়।এর ফলে যুদ্ধ ছাড়াই কয়েকটি অঞ্চলের দখল আসবে আজারবাইজানের হাতে। 

ইয়েনি শাফাক

 

ঘটনাপ্রবাহ : আর্মেনিয়া-আজারবাইজান সংঘাত