গোরক্ষকদের হাতে নিহত পেহলু খানের শহরের শুভমের ইতিহাস
jugantor
গোরক্ষকদের হাতে নিহত পেহলু খানের শহরের শুভমের ইতিহাস

  অনলাইন ডেস্ক  

২৩ নভেম্বর ২০২০, ১৩:০৮:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

গোরক্ষকদের  হাতে নিহত পেহলু খানের শহরে ইতিহাস গড়লেন শুভম

ভারতে গোরক্ষকদের বেধড়ক পিটুনিতে নিহত হয়েছিলেন পেহলু খান ও আকবার। ২০১৭ সাল ও তার পরের বছর এই দুটো ঘটনা ঘটেছিল।

রাজস্থানের সেই অলওয়ার শহরের বাসিন্দা শুভম যাদব নামের এক যুবককে যা ব্যাপক নাড়া দিয়েছিল। ইসলাম নিয়ে লেখাপড়ার তীব্র ইচ্ছে তৈরি হয়ে যায় তার মনে।

ভারতীয় বাংলা দৈনিক আনন্দবাজারপত্রিকার খবরে এমন তথ্য জানা গেছে। শুভম বাবা-মাকে বোঝালেন, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি নিয়ে স্নাতকোত্তর করতে চান।

এরপর দুবছর পরে ইতিহাস গড়ে ফেললেন এই শিক্ষার্থী। কাশ্মীর কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলাম শিক্ষা বিভাগে স্নাতকোত্তরের সর্বভারতীয় প্রবেশিকা পরীক্ষায় শীর্ষ স্থানটি পেয়েছেন তিনি।

পরীক্ষা হয়েছিল গত ২০ সেপ্টেম্বর, ফল বেরিয়েছে ২৯ অক্টোবর। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হামিদ নাসিম রফিয়াবাদি বলেন, আগে আমরা (এই বিভাগে) অ-মুসলিম ছাত্রদের পেয়েছি। কিন্তু এই প্রথম বার প্রবেশিকা পরীক্ষায় এমন এক জন প্রথম হলেন, যিনি মুসলমান নন।

২১ বছরের শুভম দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দর্শনের স্নাতক। কলেজে পড়ার সময়েই ইসলাম নিয়ে চর্চার একটা আগ্রহ ছিল তার।

শুভমের ভাষায়, সমাজে বিভেদ বাড়ছে। আমার মতে, আমরা যদি পরস্পরের সংস্কৃতিকে জানি, একমাত্র তবেই সামাজিক সমস্যাগুলোর সুরাহা সম্ভব। সে কারণেই এই বিষয়টাকে বেছে নেয়া।

তার মতে, ইসলাম নিয়ে অনেক ভ্রান্ত ধারণা আছে। ইসলামকে একটা উগ্র ধর্ম হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। অনেক রাষ্ট্রপ্রধানও এই ধর্ম নিয়ে তাদের মতামত দিয়েছেন। এ সবও ইসলাম চর্চা নিয়ে তার স্নাতকোত্তরের পড়াশোনার ইচ্ছের একটা কারণ।

তিনি বলছেন, ধর্মীয় মেরুকরণের এই পরিবেশে আমি দুধর্মের মধ্যে সেতুবন্ধনের কাজ করতে চাই।

ভবিষ্যতে সিভিল সার্ভিসের পরীক্ষায় বসতে চান তিনি। আমলা হিসেবে চাকরিজীবনেও স্নাতকোত্তরের পড়াশোনা তাকে সাহায্য করবে বলে শুভম আত্মবিশ্বাসী।

গোরক্ষকদের হাতে নিহত পেহলু খানের শহরের শুভমের ইতিহাস

 অনলাইন ডেস্ক 
২৩ নভেম্বর ২০২০, ০১:০৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
গোরক্ষকদের  হাতে নিহত পেহলু খানের শহরে ইতিহাস গড়লেন শুভম
ছবি: আনন্দবাজারপত্রিকা

ভারতে গোরক্ষকদের বেধড়ক পিটুনিতে নিহত হয়েছিলেন পেহলু খান ও আকবার। ২০১৭ সাল ও তার পরের বছর এই দুটো ঘটনা ঘটেছিল।

রাজস্থানের সেই অলওয়ার শহরের বাসিন্দা শুভম যাদব নামের এক যুবককে যা ব্যাপক নাড়া দিয়েছিল। ইসলাম নিয়ে লেখাপড়ার তীব্র ইচ্ছে তৈরি হয়ে যায় তার মনে। 

ভারতীয় বাংলা দৈনিক আনন্দবাজারপত্রিকার খবরে এমন তথ্য জানা গেছে। শুভম বাবা-মাকে বোঝালেন, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি নিয়ে স্নাতকোত্তর করতে চান। 

এরপর দুবছর পরে ইতিহাস গড়ে ফেললেন এই শিক্ষার্থী। কাশ্মীর কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলাম শিক্ষা বিভাগে স্নাতকোত্তরের সর্বভারতীয় প্রবেশিকা পরীক্ষায় শীর্ষ স্থানটি পেয়েছেন তিনি।

পরীক্ষা হয়েছিল গত ২০ সেপ্টেম্বর, ফল বেরিয়েছে ২৯ অক্টোবর। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হামিদ নাসিম রফিয়াবাদি বলেন, আগে আমরা (এই বিভাগে) অ-মুসলিম ছাত্রদের পেয়েছি। কিন্তু এই প্রথম বার প্রবেশিকা পরীক্ষায় এমন এক জন প্রথম হলেন, যিনি মুসলমান নন।

২১ বছরের শুভম দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দর্শনের স্নাতক। কলেজে পড়ার সময়েই ইসলাম নিয়ে চর্চার একটা আগ্রহ ছিল তার।

শুভমের ভাষায়, সমাজে বিভেদ বাড়ছে। আমার মতে, আমরা যদি পরস্পরের সংস্কৃতিকে জানি, একমাত্র তবেই সামাজিক সমস্যাগুলোর সুরাহা সম্ভব। সে কারণেই এই বিষয়টাকে বেছে নেয়া।

তার মতে, ইসলাম নিয়ে অনেক ভ্রান্ত ধারণা আছে। ইসলামকে একটা উগ্র ধর্ম হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। অনেক রাষ্ট্রপ্রধানও এই ধর্ম নিয়ে তাদের মতামত দিয়েছেন। এ সবও ইসলাম চর্চা নিয়ে তার স্নাতকোত্তরের পড়াশোনার ইচ্ছের একটা কারণ। 

তিনি বলছেন, ধর্মীয় মেরুকরণের এই পরিবেশে আমি দুধর্মের মধ্যে সেতুবন্ধনের কাজ করতে চাই।

ভবিষ্যতে সিভিল সার্ভিসের পরীক্ষায় বসতে চান তিনি। আমলা হিসেবে চাকরিজীবনেও স্নাতকোত্তরের পড়াশোনা তাকে সাহায্য করবে বলে শুভম আত্মবিশ্বাসী।