দখলমুক্ত মসজিদে চুমু খেয়ে ঢুকলেন আজেরি প্রেসিডেন্ট
jugantor
দখলমুক্ত মসজিদে চুমু খেয়ে ঢুকলেন আজেরি প্রেসিডেন্ট

  অনলাইন ডেস্ক  

২৪ নভেম্বর ২০২০, ১৭:৪৪:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

আজারবাইজান

আর্মেনিয়ার হাত থেকে দখলমুক্ত করা মসজিদে চুমু খেয়ে ঢুকেছেন আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ। মসজিদে ঢুকে দোয়া প্রার্থনার পাশাপাশি কোরআন শরিফ রেখেছেন।

সোমবার ২৭ বছর পর দুখলমুক্ত বিরোধীয় নাগোরনো-কারাবাখের আগদাম অঞ্চল সফরে যান বাকুর প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ফাস্ট লেডি মেহরিবান আলিয়েভা।

এদিন স্ত্রী আলিয়েভা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটার ও ইন্সটাগ্রামে কয়েকটি ছবি পোস্ট করেন। পাশাপাশি ভিডিও আপলোড করেন। নিজস্ব যানবহনের চেপে অঞ্চলটিতে সফর করেন দেশটির প্রধান।

ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা ছবিতে দেখা যায়, আগদামের একটি মসজিদে প্রেসিডেন্ট আলিয়েভ এবং তার স্ত্রী ও প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট মেহরিবান আলিয়েভাকে নিয়ে মসজিদে প্রবেশ করছেন। এসময় তিনি ও তার স্ত্রী মসজিদের ফটকে চুমু খেয়ে তাতে প্রবেশ করেন। এ সময় তিনি ও তার স্ত্রী কুরআনে চুমু খেয়ে সেটি মসজিদে রাখেন।

ভিডিওতে প্রেসিডেন্ট আলিয়েভ জানান, আজারবাইজানের সেনাবাহিনী কোনো বুলেট ব্যবহার না করেই আগদাম বিজয় করেছে।

এসময় আলিয়েভ আর্মেনিয়দের হাতে ধ্বংস হওয়া এলাকা দেখিয়ে বলেন, সমগ্র বিশ্বকে এসব দেখা উচিত। এখানে ভালো কোনো স্থাপনা নেই। সব আর্মেনিয়রা ধ্বংস করে ফেলেছে।

সাবেক সোভিয়েতভুক্ত দুই দেশের মধ্যে নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে যুদ্ধ চলে আসছে বহু আগে থেকেই। ১৯৯১ সোলে আর্মেনিয়া যখন নাগোরনো-কারাবাখ দখল করলে দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়।
ওই যুদ্ধে ৩০ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলটি আন্তর্জাতিকভাবে আজারবাইজানের ভখণ্ড হিসেবে স্বীকৃত।

পরে চুক্তির মাধ্যমে যুদ্ধ বন্ধ হলেও সর্বশেষ ২৭ সেপ্টেম্বর আবারো দুই দেশ যুদ্ধে জড়ায়। পরে আর্মেনিয়া গত ১০ নভেম্বর রাশিয়ার মধ্যস্থতায় আজারবাইানের সঙ্গে চুক্তি করতে বাধ্য হয়।

৪৪ দিন চলা এই যুদ্ধে বাকু ৩০০টির বেশি বসতি ও এলকা দখলমুক্ত করে।

চুক্তিটি আজারবাইজানের জয় ও আর্মেনিয়ার পরাজয়ের দলিল হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। এ চুক্তিটিকে তুরস্ক সমর্থন জানিয়েছে।

ইয়েনি শাফাক

দখলমুক্ত মসজিদে চুমু খেয়ে ঢুকলেন আজেরি প্রেসিডেন্ট

 অনলাইন ডেস্ক 
২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৫:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আজারবাইজান
ছবি: টুইটার থেকে সংগৃহীত

আর্মেনিয়ার হাত থেকে দখলমুক্ত করা মসজিদে চুমু খেয়ে ঢুকেছেন আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ। মসজিদে ঢুকে দোয়া প্রার্থনার পাশাপাশি কোরআন শরিফ রেখেছেন। 

সোমবার ২৭ বছর পর দুখলমুক্ত বিরোধীয় নাগোরনো-কারাবাখের আগদাম অঞ্চল সফরে যান বাকুর প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ফাস্ট লেডি মেহরিবান আলিয়েভা। 

এদিন স্ত্রী আলিয়েভা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটার ও ইন্সটাগ্রামে কয়েকটি ছবি পোস্ট করেন। পাশাপাশি ভিডিও আপলোড করেন। নিজস্ব যানবহনের চেপে অঞ্চলটিতে সফর করেন দেশটির প্রধান।  

ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা ছবিতে দেখা যায়, আগদামের একটি মসজিদে প্রেসিডেন্ট আলিয়েভ এবং তার স্ত্রী ও প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট মেহরিবান আলিয়েভাকে নিয়ে মসজিদে প্রবেশ করছেন। এসময় তিনি ও তার স্ত্রী মসজিদের ফটকে চুমু খেয়ে তাতে প্রবেশ করেন। এ সময় তিনি ও তার স্ত্রী কুরআনে চুমু খেয়ে সেটি মসজিদে রাখেন।

ভিডিওতে প্রেসিডেন্ট আলিয়েভ জানান, আজারবাইজানের সেনাবাহিনী কোনো বুলেট ব্যবহার না করেই আগদাম বিজয় করেছে।

এসময় আলিয়েভ আর্মেনিয়দের হাতে ধ্বংস হওয়া এলাকা দেখিয়ে বলেন, সমগ্র বিশ্বকে এসব দেখা উচিত। এখানে ভালো কোনো স্থাপনা নেই। সব আর্মেনিয়রা ধ্বংস করে ফেলেছে।

সাবেক সোভিয়েতভুক্ত দুই দেশের মধ্যে নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে যুদ্ধ চলে আসছে বহু আগে থেকেই। ১৯৯১ সোলে আর্মেনিয়া যখন নাগোরনো-কারাবাখ দখল করলে দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়।
ওই যুদ্ধে ৩০ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। নাগোরনো-কারাবাখ অঞ্চলটি আন্তর্জাতিকভাবে আজারবাইজানের ভখণ্ড হিসেবে স্বীকৃত। 

পরে চুক্তির মাধ্যমে যুদ্ধ বন্ধ হলেও সর্বশেষ ২৭ সেপ্টেম্বর আবারো দুই দেশ যুদ্ধে জড়ায়। পরে আর্মেনিয়া গত ১০ নভেম্বর রাশিয়ার মধ্যস্থতায় আজারবাইানের সঙ্গে চুক্তি করতে বাধ্য হয়।

৪৪ দিন চলা এই যুদ্ধে বাকু ৩০০টির বেশি বসতি ও এলকা দখলমুক্ত করে।

চুক্তিটি আজারবাইজানের জয় ও আর্মেনিয়ার পরাজয়ের দলিল হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। এ চুক্তিটিকে তুরস্ক সমর্থন জানিয়েছে। 

ইয়েনি শাফাক
 

 

ঘটনাপ্রবাহ : আর্মেনিয়া-আজারবাইজান সংঘাত